রবিবার ১৯ মে, ২০১৯

৩ নারী নির্যাতনের ঘটনায় ইউসুফ মেম্বার রিমান্ডে

মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:০২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: বন্দরে তিন নারীকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের ঘটনায় মূল আসামি বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ইউসুফ আলীকে দুই দিনের রিমান্ডে নেয়ার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালত এ আদেশ দেন। এর আগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইউসুফ মেম্বারকে রিমান্ড আবেদন করে আদালতে পাঠায় বন্দর থানা পুলিশ।

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় দক্ষিন কলাবাগ এলাকা থেকে ইউপি মেম্বার ইউসুফ আলীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই মামলার এক নম্বর আসামি তিনি।

এর আগে সোমবার বিকেলে ইউপি সদস্য ইউসুফসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী নারী ফাতেমা বেগম ওরফে ফতেহ। এছাড়া অজ্ঞাত আরো ১৫-২০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার অন্য দুই নারী হলেন, বন্দর শাহী মসজিদ এলাকার বাছেদ আলীর মেয়ে আসমা বেগম (৩৫) ও বুরুন্দি এলাকার বকুল মিয়ার স্ত্রী বানু বেগম (৩০)।

এ ঘটনার বিস্তারিত জানতে সোমবার বেলা ১২টায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) আল মাহমুদ ফায়জুল কবিরের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি টিম জেলা আদালতে আসেন। টিমের অন্য দুই সদস্য হলেন, উপ পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) গাজী সালাম ও সদস্য বাঞ্চিতা চাকমা।

এ সময় ভুক্তভোগী ফাতেমা আক্তার ওরফে ফতেহকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে আসা হয়। পরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের একটি কক্ষে ভুক্তভোগীর কাছ থেকে ঘটনার বিস্তারিত জানেন মানবাধিকার কমিশনের সদস্যরা। ভুক্তভোগী ফাতেমা মানবাধিকার কমিশনের সদস্যদের কাছে তার উপর নির্যাতনের ঘটনা বিস্তারিত খুলে বলেন। শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্নগুলোও দেখান তিনি।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) আল মাহমুদ ফায়জুল কবির সাংবাদিকদের জানান, ভুক্তভোগীর সাথে আলাপ হয়েছে। তার কাছ থেকে বিস্তারিত জেনেছি। পরে বন্দরের ওসি সাহেবের সাথে আলাপ হয়েছে। যে ঘটনা ঘটেছে তা জামিন অযোগ্য অপরাধ। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদী হয়ে থানায় মামলা করবেন। থানায় মামলা নেয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এই মামলা পরিচালনায় ভুক্তভোগীর সর্বাত্মক সহযোগিতায় পাশে থাকবে মানবাধিকার কমিশন।

এছাড়া জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকের সাথে এ বিষয়ে আলাপ করবেন বলেও জানান তিনি।

এদিকে জেলা বারের সাবেক সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা এড. আনিসুর রহমান দিপু বলেন, এই মামলায় ভুক্তভোগীদের সহায়তা করবো আমি। এই মামলার দায়িত্ব আমি নিতে চাই। আইনি যেকোন সহযোগিতার জন্য আমি তাদের পাশে আছি।

প্রসঙ্গত, গত শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বন্দরের দক্ষিন কলাবাগ এলাকায় পতিতা আখ্যা দিয়ে তিন নারীকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালানো হয়। এ সময় ওই তিন নারীর চুলও কেটে দেয়া হয়। পরে কয়েক ঘন্টা তাদের গাছের সাথে বেঁধে রাখা হয়।

নির্যাতনের শিকার হওয়া ওই ৩ নারী হচ্ছেন, বন্দর ইউনিয়নের দক্ষিন কলাবাগ খালপারের মৃত মফিজ উদ্দিনের মেয়ে ফাতেমা বেগম ওরফে ফতেহ (৫০), বন্দর শাহী মসজিদ এলাকার বাছেদ আলীর মেয়ে আসমা বেগম (৩৫) ও বুরুন্দি এলাকার বকুল মিয়ার স্ত্রী বানু বেগম (৩০)।

খবর পেয়ে বন্দর থানা পুলিশ নির্যাতিত ওই তিন নারীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এরপর তাদের ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ