সোমবার ১৯ আগস্ট, ২০১৯

হাসপাতালের অব্যবস্থাপনায় ওয়েটিং রুমেই প্রসব, নবজাতকের মৃত্যু

রবিবার, ২৬ মে ২০১৯, ১৯:২০

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ঘড়ির কাঁটায় তখন সকাল সোয়া আটটা। প্রসব যন্ত্রণায় কাতর স্ত্রীকে নিয়ে শহরের খানপুরের নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালে আসেন গামেন্ট কর্মী শেখ কাউসার অপু। স্ত্রীকে চেয়ারে বসিয়ে রেখে চিকিৎসার জন্য ছোটাছুটি করছেন। টিকেট কাউন্টার, জরুরী বিভাগ, অপারেশন থিয়েটারে হন্তদন্ত হয়ে ছুটে বেড়ালেও হাসপাতালের কারোর সাহায্য পাচ্ছেন না। এদিকে প্রসূতির প্রসব বেদনা বেড়েই চলছে।

এভাবে কেটে যায় প্রায় দেড় ঘন্টা। প্রসূতির অবস্থা বেগতিক দেখে হাসপাতালের এক নারী পরিচ্ছন্ন কর্মী প্রসূতি ওয়ার্ডের একজনকে ট্রলি নিয়ে আসতে বলেন। ট্রলি নিয়ে আসার পর হাসপাতালেরই এক কর্মী বলে ওঠেন, ‘বাচ্চা তো বেরিয়ে এসেছে।’ তড়িঘড়ি করে প্রসূতিকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষন পর চিকিৎসক জানান, ‘নবজাতক শিশুটিকে বাচানো সম্ভব হয়নি।’

এ ঘটনায় হাসপাতালের অব্যবস্থাপনাকে দায়ি করছেন ভুক্তভোগী ও তার পরিবার। শেখ কাউসার অপু অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার প্রথম সন্তান। ডাক্তাররা যদি আগে দেখতো তাহলে এই ঘটনা এড়ানো যেতো।’

কান্নাজড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, ‘ডাক্তার, নার্সরা যদি একবার আমার কথা শুনতো, আমার বউটারে দেখতো তাহলে এই ঘটনা ঘটতো না। আর আমার বাচ্চাও মরতো না।’

এদিকে একই সময়ে ৩শ’ শয্যা হাসপাতালে হয়রানির শিকার হন আরেক ব্যক্তি। পরিচয় গোপন রাখার শর্তে ওই ভুক্তভোগী বলেন, ‘আমার বোনের মেয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে। ওর প্রসবের তারিখ দেয়া হয়েছে ঈদের তিন দিন পর। কিন্তু আজ হঠাৎ আমাদের বললো, আর্জেন্টলি সিজার করতে হবে। এই বলে ঔষধের একটি লিস্ট দিয়ে দিলো। আমরা লিস্ট অনুযায়ী সব ঔষধ কিনে নিয়ে গেলাম। সব আত্মীয়-স্বজনকে ডাকলাম যাতে রক্ত ও অন্যান্য বিষয়গুলোতে সাহায্য হয়। পরবর্তীতে একজন নার্স এসে বললেন, এখন সার্জারি করা হবে না। ঈদের তিনদিন পর হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এভাবে হয়রানি করার কোনো মানে আছে? তারা এভাবেই আমাদের বিপদে ফেলে। কোন ফন্দি করে সার্জারির কথা বলল আবার কোন কারণে মানা করে দিল তারাই জানে।’

এদিকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবু জাহের বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নই। ওই সময়ে কোন চিকিৎসক দায়িত্বে ছিলেন সেসব বিষয়ে খোঁজ নিয়ে ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ