সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

সিভিল সার্ভিসে আমাকে অনেকে আইকন বলে থাকেন: বিদায়ী ডিসি

রবিবার, ২৩ জুন ২০১৯, ২৩:১১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মোঃ রাব্বী মিয়া বলেছেন, ছোট বেলা থেকে শিখেছি কিভাবে বড়দের সম্মান দিতে হয়। এই জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আসলে বড় মনের মানুষ। তিনি জানেন, ছোট বড়দের সম্মান করলে সম্মান কমে না বরং বৃদ্ধি পায়। তিনি হলেন নারায়ণগঞ্জের অনেকের গুরু । অনেকে বলেন এমপি শামীম ওসমান ও মেয়র ডাঃ আইভী সহ অনেকের রাজনীতি গুরু হলেন আনোয়ার হোসেন।

রবিবার (২৩ জুন) দুপুর সাড়ে ১২টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের কনফারেন্স রুমে জেলা পরিষদের আয়োজনে নিজের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি নারায়ণগঞ্জে প্রথমে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ছিলাম, তারপর এডিসি এখন ডিসি হয়ে মোট তিনবার তিন পদে দায়িত্ব পালন করেছি। আমি যেখান থেকে এসেছি সেই বিশ্বব্যাংকের সেখানে পদোন্নতি নিয়ে যাচ্ছি। সিভিল সার্ভিসে আমাকে অনেকে আইকন বলে থাকেন। প্রশাসন ক্যাডেটে অনেক ষ্টার আসেন, সেখান থেকে বলেছেন রাব্বী মিয়া আমাদের মডেল। 

তিনি সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, বাবা-মা যতই কাজ থাকুক, রাতে বেলা খাবার সন্তানদের নিয়ে বসে খেতে হবে। তাহলে পরিবারের মধ্যে ভালবাসা সৃষ্টি হবে। নিজের সন্তানকে যোগ্য হিসেবে গড়ে না তুলতে পারলে, আপনি সমাজে বড় হয়ে লাভ নেই। তাহলে আপনার বক্তব্যে কেউ মূল্যায়িত করবে না। প্রতিবেশীদের সাথে সর্ম্পক বজায় না রাখলে আপনি উপরে যেতে পারবেন না। এমন কি আপনার পিয়নের সাথে বন্ধু সুলভ ব্যবহার করতে হবে। তাহলে তিনি আপনার যে কোন সমস্যায় হলে আপনার পাশে থাকবে। এমন কি আপনার চেহারা দিয়ে ঘাম বের হলে, বলবে স্যার আপনার শরীর খারাপ না কি? আপনি যত ছোটদের সাথে চলবেন, আপনি তত বড় চেয়ার পাবেন। আর আপনি যত বড়দের সাথে চলবেন, তত ছোট চেয়ার আপনি পাবেন। আপনারাই সিদ্ধান্ত নিন, আপনার কোন চেয়ার প্রয়োজন? আপনি যখন মন্ত্রী এমপিদের সাথে চলবেন, তখন আপনার চেয়ার কোথায়? আর আপনি যখন চেয়ারম্যান ও মেম্বার হিসেবে জনগনের কাছে যাবেন তখন আপনার চেয়ার কোথায় রয়েছে। যখন বুঝবেন আল্লাহ আপনাকে কোথায় রেখেছেন, কি দায়িত্ব পেয়েছেন। জীবনে যদি ছাড় না শিখেন, তা হলে জীবন আশা পূরর্ণ হবে না। এই ছাড় জীবনে কি পরিবর্তন হয় তা আপনাদের সন্তানকে শিখাতে হবে। মানুষ হয়ে জন্ম হলে মানুষ হয় না। যদি আপনার মানুষের মানুষ্য না থাকে, তাহলে আপনার জীবন পুরো বৃথা।

আনোয়ার হোসেনে সাথে সম্পর্ক নিয়ে বিদায়ী ডিসি বলেন, চেয়ারম্যান হিসেবে নয় ব্যক্তি হিসেবে সর্ম্পক। তার ভিতরের অনেক ভাল দিক রয়েছে, সেগুলো দেখেছি। 

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেছেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচনের পর জেলা প্রশাসক মোঃ রাব্বী মিয়াকে বড় ধরণে সংবর্ধণা আয়োজন করার ইচ্ছা ছিলো। জেলা পরিষদ বুঝ বুঝতে কিভাবে সময় চলে গেলো, তা বুঝে উঠতে পারিনি। জেলা প্রশাসন ও জেলা পরিষদের একত্রে কাজ করে যাচ্ছে, আগামীতেও যাবে, ইনশাল্লাহ। জেলা প্রশাসক হিসেবে মোঃ রাব্বী মিয়া দীর্ঘ ৩টি বছর সকল ম্যানেজ করে সুন্দরভাবে দায়িত্ব পালন করে গেছেন। তিনি নিয়ম মোতাবেক পদোন্নতি নিয়ে আমাদের এই নারায়ণগঞ্জ থেকে বিদায় নিচ্ছেন। তাকে ডিসি হিসেবে নয় মোঃ রাব্বী মিয়া-কে নারায়ণগঞ্জবাসীর অন্তরে থাকবে।

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তারা সুব্রত পাল, সদস্য এডঃ নূর জাহান, মজিবুর রহমান, মোস্তফা হোসেন চৌধুরী, জাহাঙ্গীর হোসেন, আবু জাহের, মোস্তাফিজুর রহমান, ফার”ক হোসেন, নূরে আলম খান, খোরশীদ আরম, মাহবুবুর রহমান রোমান, মোস্তাফিজুর রহমান, কামর”ল হাসান ভূঞা, জাহাঙ্গীর আলম, আলাউদ্দিন, উপ প্রকৌশলী মোঃ ওয়ালি উল্যাহ, আবু আশরাফুল হাসান ও চেয়ারম্যানের স্ত্রী রাজিয়া আনোয়ার প্রমুখ।

 

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ