বুধবার ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯

সাবেক স্বামীর সাথে সম্পর্ক রাখায় স্ত্রীকে হত্যা

মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০১৯, ২১:৩৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: দু’জনই ছিলেন বিবাহিত। আগের বিয়ের সম্পর্কে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে সুখের সন্ধানে প্রেমের টানে নতুন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন মামাতো-ফুফাতো ভাই-বোন। স্ত্রীর আগের সংসারের নয় বছরের এক ছেলেকে নিয়ে সংসার শান্তিতেই চলছিল দুজনের। কিন্তু বিয়ের কয়েকমাস পর জানতে পারেন পূর্বের স্বামীর সাথে এখনো মোবাইল ফোনে যোগাযোগ চলে স্ত্রীর। এরই জের ধরে দুই জনের মধ্যে দাম্পত্য কলহ চলতে থাকে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি চরম পর্যায়ে পৌছালে রাগে-ক্ষোভে স্ত্রীকে ধারালো বটি দিয়ে কুপিয়ে ও কাঠ দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেন স্বামী। স্ত্রীকে হত্যার পর নিজেও বিষ পান করে আত্মহত্যা করেন। পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনায় মা-বাবা দুজনকেই হারালো শিশু সন্তানটি।

সোমবার (৮ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় এমনই ঘটনা ঘটে ফতুল্লার দেওভোগের পশ্চিম আদর্শনগরের মোশারফ হোসেনের ভাড়াটিয়া বাড়িতে। নিহত স্ত্রী পলি আক্তার পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ থানার ময়দশ্রীনগর এলাকার শাহজাহান শিকদারের মেয়ে। আর নিহত জামাল হোসেন একই উপজেলার সুবিদখালীর সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।

নিহত পলি আক্তার ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরীর ফকির এ্যাপারেলসের শ্রমিক ও জামাল হোসেন শহরের চাষাঢ়ায় চা বিক্রি করতো। তারা সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাই-বোন।

নিহতের ছোট ভাই মাঈনুল ইসলাম জানান, তার বড় বোন পলির আগে বিয়ে হয়েছিল। সেই সংসারে শাহাজাদা নামে নয় বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। আগের স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে মামাতো ভাই জামালকে বিয়ে করে। তারা ফতুল্লার পশ্চিম দেওভোগ আদর্শনগর এলাকায় মোশারফ হোসেন মিয়ার টিনশেডের ভাড়াটিয়া বাসায় বসবাস করে। সোমবার রাতে তাদের রুমে দেখতে পায় তার বোন পলি রক্তাক্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে রয়েছে। আর বোন জামাই জামাল হোসেনের মুখ দিয়ে ফেনা বের হচ্ছে। পরে তাদের দুইজনকে দ্রুত নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের ডাক্তার পলিকে মৃত ঘোষণা করে এবং জামালকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করলে সেখানকার ডাক্তার জামালকে মৃত ঘোষণা করেন।

মোশারফ হোসেনের বাড়ির অন্য ভাড়াটিয়ারা বলেন, রাত বারোটা কিংবা সাড়ে বারোটার দিকে ছেলেটা ঘর থেকে চিৎকার দিয়ে উঠলে আমরা ঘরে গিয়ে দেখি দুইজনই লুটিয়ে পড়ে আছে। স্বামীর মুখ দিয়ে ফ্যানা বেরুচ্ছে আর স্ত্রী অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে আছে।

বাড়ির বাড়িওয়ালা মোশারফ হোসেন বলেন, ‘বছরখাকে আগে তারা আমার বাড়ির একটি ঘর ভাড়া নেয়। তাদের আগের বিয়ের কথা জানতাম না। এই ঘটনার পর তাদের আত্মীয় স্বজনকে জিজ্ঞেস করলে তারা জানায়, দু’জনই আগের থেকে বিবাহিত। আগের স্বামী ও স্ত্রী বাদ দিয়ে দু’জনে নতুন করে বিয়ে করে। আত্মীয়রা বললেন, আগের স্বামীর সাথে নাকি ফোনে কথা বলতো পলি। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াও হয়েছে বেশ কয়েকবার। হয়তো এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই এমন কান্ড ঘটিয়েছে।’

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘দু’জনেরই আগের সংসার ছিল। ওই সংসার বাদ দিয়ে তারা বিয়ে করেছে। পারিবারিক কলহের জের ধরেই এ ঘটনা ঘটেছে।’

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ