বৃহস্পতিবার ২৭ জুন, ২০১৯

সরকারি বিদ্যালয়ের ১২টি শ্রেণিকক্ষের ৩টিই পানির নিচে

সোমবার, ১১ মার্চ ২০১৯, ২১:৪৫

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: সদর উপজেলা ফতুল্লা থানাধীন ৭২নং ইসদাইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তাকালে মনে হবে, একটি অত্যাধুনিক একটি বিদ্যালয়। সুসজ্জিত শ্রেণীকক্ষ, আধুনিক বেঞ্চ, দেয়ালে সুসজ্জিত বিভিন্ন শিক্ষণীয় চিত্র, শিক্ষার্থীদের আঁকা ছবি দিয়ে ভরা গ্যালারি। বিদ্যালয়টিতে বিভিন্ন ক্লাসের ৫৪৮ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। পড়ালেখার ফলাফল ছাড়াও রয়েছে খেলাধুলায় ভালো ফলাফল। কিন্তু বছরব্যাপী জলাবদ্ধতার করণে ব্যাহত হচ্ছে বিদ্যালয়টির স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম।

বিদ্যালয়টি সরকারি অথচ বিদ্যালয়ের ১২টি শ্রেণিকক্ষের ৩টিই পানির নিচে। বিদ্যালয়টির সামনের প্রাঙ্গণ বছরব্যাপী জলাবদ্ধতা থাকায় শ্রেণিকক্ষের বেঞ্চ দিয়েই পারাপারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এভাবেই দীর্ঘদিন যাবত পাঠ কার্যক্রমের জন্য চলাচল করছে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। সংশ্লিষ্টদের অবহেলায় দীর্ঘদিন যাবত এই ভোগান্তি পোহাচ্ছে তারা।

বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বিদ্যালয়ের ও সড়কটির জলাব্ধতার দূর করণের জন্য নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী, নারায়ণগঞ্জে জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার অহীন্দ্র কুমার মন্ডলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। তবু অবহেলিত এই অবহেলিত ছিটমহল বাসির দুর্ভোগ দেখার কেউ নেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসদাইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন যাবত দুর্ভোগে আছি। সকল জনপ্রতিনিধি, ডিসি সকলের কাছে গিয়েছি, কিছুই হয়নি। এমনকি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কাছেও আরজি করেছিলাম, কোনো লাভ হয়নি। নির্বাচনের সময় এমপি শামীম ওসমানের নির্দেশে মাঠে মাটি ফেলা হয়েছিলো। কিন্তু দুদিন পর আবার সেই অবস্থা। আমরা আস্থা হারিয়ে ফেলেছি। আমাদের কেউ দেখবে না। আমাদের পাশের ইসদাইর রাবেয়া হোসেন হাইস্কুল। তাদের কোনো সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গে সমাধান করা হয়। কারণ ওসমান পরিবার তাদের সঙ্গে। কিন্তু আমাদের সঙ্গে কেউ নেই।’

এ বিষয়ে স্কুল কমিটির সভাপতি আব্দুল আওয়াল জানান, ‘আমরা চেষ্টা করছি। বিভিন্ন সময় সড়ক এবং স্কুলের জলাবদ্ধতার কথা জন প্রতিনিধির কাছে তুলেছি। স্কুলে মাটি ফেলেও দেখেছি কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হচ্ছে না।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ