সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

সন্ত্রাসী মীরুর গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন

মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ২১:১৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: একাধিক হত্যা ও সন্ত্রাসী মামলার আসামী ফতুল্লার কুতুবপুরের মীর হোসেন মীরুর গ্রেফতারের দাবিতে নগরীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে কুতুবপুর এলাকাবাসীর ব্যানারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় মীর হোসেন মীরুর নির্যাতনের শিকার কুতুবপুর এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি মীরু বাহিনীর হাতে মারধরের শিকার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আক্তারুজ্জামান লিমন মানববন্ধনে বলেন, ‘শীর্ষ সন্ত্রাসী মীরুর জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে আমরা আজকে উপস্থিত হয়েছি। আমার বড় ভাই মুরাদ ভাইয়ের কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা চায় সন্ত্রাসী মীরু। পরে তার উপর হামলা করে মীরু বাহিনীর শাকিল, গেন্দু, খলিল, ভিপি রাজীব, সোহানসহ আরও কয়েকজন। আমি সেখানে গেলে আমাকেও মারধর করে। পরে পুলিশ আমাদের উদ্ধার করছে। এই হলো এলাকায় মীরু বাহিনীর অবস্থা।’

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী মুরাদ বলেন, আমরা চাই মাদক ব্যবসায়ী আর সন্ত্রাস আমাদের এলাকায় থাকতে পারবে না। দাবি করা চাঁদা না দেয়ায় আমার উপর হামলা চালায় মীরু বাহিনী। পরে এ নিয়ে থানায় অভিযোগ করলে সে আমাদের এখন নানাভাবে হুমকি-ধমকি দিতেছে। আমরা তার বিরুদ্ধে কথা বলছি এখন আমরা নিরাপত্তাহীনতায় আছি।

কুতুবপুর এলাকার রাজমিস্ত্রী আব্দুল জলিল বলেন, আমি একজন রাজমিস্ত্রী। আমার বাড়ি মীরুর বাড়ির পাশে। কয়েক মাস আগে এই মীরুর বাহিনী আমাকে মেরে হাত ভেঙ্গে দিছিল। আমি মামলা করেছি তাই আমার ঘরে রাতের বেলায় আগুন জ্বালিয়ে দেয়। ওই রাতে এলাকার মানুষের সহযোগিতায় আমরা ঘর থেকে বাইর হইছি। মীরুর জ্বালায় অত্র এলাকার কেউ শান্তিতে থাকতে পারে না। মীরুর নিজের হাত নাই কিন্তু তার লোকজন এলাকারে জিম্মি করে রাখছে। সাধারণ রাজমিস্ত্রী হইয়াও তার কাছ থেকে রেহাই পাই না। আমি তার বিচার চাই।

সম্প্রতি মীরুর বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগের বাদী জেলা মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক চাঁদ শিকদার সেলিম বলেন, আমার ভাই মুরাদের কাছে চাঁদা চায় মীরু। এই প্রতিবাদে আমি ফতুল্লা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি। পরে থানায় গেলে মীরুর ইন্ধনে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী আমাদের মারধর করে। পরে আমি আরও একটি অভিযোগ দায়ের করি থানায়। আমি তার গ্রেফতারের দাবি জানাই এবং কঠোর শাস্তির দাবি জানাই।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন বলেন, আমরা কোন সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ীদের কোন ছাড় দেবো না। যেকোন অভিযোগ পেলে তার তড়িৎ ব্যবস্থা নেবো।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ