রবিবার ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯

শেখ হাসিনার কথা ছাড়া রাস্তার লাইটও জ্বলে না: খালেকুজ্জামান

শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ২১:৫৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রতি কথায় বলেন, শেখ হাসিনা এটা বলেছেন, ওটা বলেছেন। শেখ হাসিনার কথা ছাড়া রাস্তার লাইটও জ্বলে না। এক ব্যক্তির নির্দেশে যখন সমস্ত কিছু পরিচালিত হয় তখন সেই ব্যবস্থাকে স্বৈরাচারী ব্যবস্থা বলে। আর যার নির্দেশে সেই ব্যবস্থা পরিচালিত হয় তিনি স্বৈরশাসকে পরিণত হন।’

শুক্রবার (২২ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টায় রুশ সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের ১০২তম বার্ষিকী ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ শহীদ মিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতারা, এমপিরা, মন্ত্রীরা প্রতিনিয়ত দেশের মানুষের কাছে প্রধানমন্ত্রীকে স্বৈরশাসক হিসেবে তুলে ধরছেন। তাহলে আমলাতন্ত্রের, পার্লামেন্টের দরকার কী? প্রধানমন্ত্রী তিস্তা চুক্তির জন্য গিয়ে ফেনী নদীর ১.৮২ কিউসেক পানি দিয়ে এসেছেন। এসে বললেন তারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে সহায়তা করছে তাদের প্রতি সহমর্মিতার কারণে অল্প একটু পানি দিয়ে এসেছি। তারা আমাদের সহায়তা করেছে তার জন্য আমরা কৃতজ্ঞ। কিন্তু তার মানে তো এই না যে পুরো দেশ বিলিয়ে দিয়ে আসবো।

তিনি আরও বলেন, কিছুদিন আগে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বিএসএফ এর এক কর্মকর্তা বলেছেন, ফেনী নদীর পানি চুক্তির অনেক আগে থেকেই সেখানে ভারতের ৩৬টি পাম্প লাগানো আছে। প্রতি পাম্পে ২ কিউসেক করে পানি উত্তোলন হয়। তার মানে ৭২ কিউসেক পানি তো ভারত আমাদের থেকে অবৈধ ভাবে এমনেই নিতো। প্রধানমন্ত্রী গিয়ে সেটি শুধু আইনিভাবে বৈধ করে দিয়েছেন।

বাসদের জেলা সমন্বয়ক নিখিল দাসের সভাপতিত্বে জনসভায় আরও বক্তব্য রাখেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর কমিটির আহ্বায়ক বজলুর রশীদ ফিরোজ, সিপিবি জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা সভাপতি সেলিম মাহমুদ, বাসদ সোনারগাঁ উপজেলার সমন্বয়ক বেলায়েত হোসেন, ফতুল্লার সমন্বয়ক এমএ মিল্টন, রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক এসএম কাদির, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি সুলতানা আক্তার প্রমুখ।

বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশিদ ফিরোজ বলেন, আমাদের এইবার ৭ লক্ষ ২৩ হাজার কোটি টাকার বাজেট। সেই বাজেটের টাকা যদি লুটপাট করার পরও তো কিছু কাজ করতে হয়। সেটা দেখানোর জন্য আপনারা শুনছেন এখানে ফ্লাইওভার হচ্ছে, ঐখানে পদ্মাসেতু হচ্ছে, চার লেনের রাস্তা হচ্ছে। সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছিলেন, যতবড় প্রকল্প তত বড় চুরি। এই কথা তিনি পার্লামেন্টে দাড়িয়ে বলেছিলেন। মাঝে মধ্যে রাবিশ কথাবার্তা বলতেন কিন্তু যখন মুখ ফসকাতো তখন অনেক সত্য কথাও বলে ফেলেছিলেন। ভারতে চার লেনের সড়ক তৈরিতে লাগ ১০ কোটি টাকা, চীনে লাগে ১৩ কোটি টাকা। আমাদের দেশে ঢাকা-সিলেট হাইওয়ে চার লেনের সড়ক তৈরিতে লাগলো ১ কিলোমিটারে ৬৫ কোটি টাকা। ভারত যদি ১০ কোটি টাকা দিয়ে চার লেনের রাস্তা করতে পারে আমরা কেন পারবো না। আমাদের কেন ৬৫ কোটি টাকা লাগবে? এটাই আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন। এটাই শেখ হাসিনার উন্নয়ন।

তিনি আরও বলেন, আমরা পদ্মা সেতু করবার সময় প্রধানমন্ত্রী বললেন, নিজেদের টাকায় পদ্মা সেতু করবো। আমরা খুবই বেশি হলাম কারণ বাপের বেটি নিজেদের টাকাতেই সেতু করবে। কিন্তু মাজেজা হলো- পদ্মাসেতু করবার সময় প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছিল ১২ হাজার কোটি টাকা আর বর্তমানে সেই প্রাক্কলিত ব্যয় গিয়ে দাড়িয়েছে ৩৬ হাজার টাকা। ক্যাসিনোর জন্য যখন সম্রাটকে ধরা হলো তখন সম্রাট বলেছিলো, আমাকে কেন ধরেছেন আমি যাদেরকে চাঁদা দিয়ে ক্যাসিনো চালিয়েছি তাদেরকেও ধরেন। সম্রাট যে তালিকা দিয়েছে তাদেরকেও ধরেন। প্রধানমন্ত্রীকে বলতে চাই আপনি শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন শুদ্ধি অভিযান ঘর থেকে শুরু করলে হবে না ঐ গণভবন থেকে শুদ্ধি অভিযান শুরু করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে বাসদের জেলা সমন্বয়ক নিখিল দাস বলেন, শীতলক্ষ্যা ও বুড়িগঙ্গা নদী দূষিত হয়ে নর্দমায় পরিণত হয়েছে। দূষণ বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নেই। নিত্যপণ্যের দামবৃদ্ধির পাশাপাশি বাড়ছে অনিয়ন্ত্রিত বাড়িভাড়া। এলাকাভিত্তিক বর্গফুট ও অন্যান্য সুবিধা হিসেবে যৌক্তিক বাড়িভাড়া আইন প্রণয়ন করে তা কার্যকর করতে হবে। ভয়াল নগরী বলে পরিচিত পাওয়া নারায়ণগঞ্জকে গুম, খুন, সন্ত্রাস, ধর্ষণ ও মাদকমুক্ত করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন নামে অযৌক্তিক ফি আদায় ও কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করে প্রকৃত শিক্ষার পরিবেশ তৈরী করতে হবে। নারায়ণগঞ্জে একটি পুর্ণাঙ্গ পাবলিক বিশ^বিদ্যালয় নির্মাণ করা জনদাবিতে পরিণত হয়েছে। রেলওয়ের অপ্রয়োজনীয় উচ্ছেদ বন্ধ করতে হবে। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রেল রুটে ডাবল লাইন প্রকল্পের জন্য ঘোষণাকৃত রেলের দুপাশে ৪৫ ফুটের বাইরে উচ্ছেদকৃত ব্যবসায়ীদের দোকান নির্মাণের সুযোগ এবং সরকারি নিয়মবিধি মেনে স্থায়ী বন্দোবস্ত দিতে হবে।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ