রবিবার ১৮ আগস্ট, ২০১৯

শিশু ধর্ষনের অভিযোগে মসজিদের ইমাম রিমান্ডে

বৃহস্পতিবার, ৮ আগস্ট ২০১৯, ২৩:২০

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লার চাঁদমারী এলাকায় শিশু ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে মসজিদের ইমামের বিরুদ্ধে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) বিকেলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার আলমের আদালত এ নির্দেশ দেন।

গত বুধবার ৮ বছর বয়সী শিশুকে ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে ইমাম ফজলুর রহমান ওরফে রফিকুল ইসলামসহ (৪৫) ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। ইমাম ফজলুর রহমান নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়ার সরাপাড়া এলাকার মৃত রিয়াজউদ্দিনের ছেলে।

এ মামলার অন্য ৫ আসামি মো. রমজান আলী, মো. গিয়াস উদ্দিন, হাবিব এ এলাহী ওরফে হবি, মো. মোতাহার হোসেন ও মো. শরিফ হোসেনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় শিশুটির পিতা বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানা ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর শিশুকে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে আসামিদের বিরুদ্ধে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আসামিদের আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ।

ভুক্তভোগীর পরিবারের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, ভুক্তভোগী দ্বিতীয় শ্রেণির মাদ্রাসা ছাত্রী। সে রাতে দুঃস্বপ্ন দেখতো বলে তার বাবা মসজিদের ইমাম ফজলুর রহমানের কাছ থেকে পানি পড়া ও ঝাড়ফুঁক দিতে নিয়ে যায়। ঝাড়ফুঁকের কথা বলে মসজিদের তৃতীয় তলায় নিজের শয়ন কক্ষে নিয়ে গিয়ে মুখ ও হাত বেঁধে শিশুটিকে ধর্ষণ করে ফজলুর রহমান। পরে এ ঘটনা না জানানোর জন্য শিশুটিকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। কিন্তু শিশুটি বাসায় ফিরে বাবা-মাকে এ বিষয়ে জানালে শিশুটির বাবা মসজিদ কমিটির লোকজনের কাছে নালিশ করে। কিন্তু মসজিদ কমিটির কিছু লোক ও ইমামের অনুসারীরা তাকে এ বিষয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য শাসায় এবং শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তির ব্যাপারেও বাধা প্রদান করে। শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানেও খুঁজতে যায় ইমামের অনুসারীরা। এক পর্যায়ে শিশুটির বাবা হাসপাতালের এক নার্সের বোরকা পড়ে লুকিয়ে র‌্যাবের কাছে গিয়ে এ বিষয়ে অভিযোগ জানায়।

র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলেপ উদ্দিন বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর হাসপাতালে আমাদের নিরাপত্তা চৌকি স্থাপন করি। পরে বুধবার সকালে উত্তর চাষাঢ়ার চাঁদমারী এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত ইমাম ও তার অনুসারীদের আটক করা হয়।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ