মঙ্গলবার ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮

শায়েস্তা খাঁ’র অনন্য কীর্তি: বিবি মরিয়মের সমাধিসৌধ

মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮, ১২:৪৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: বাঙালীরা এমনিতেই ঘুরতে খুব ভালোবাসে। আর তা যদি ছুটির দিন হয় তাহলে তো কথাটাই বদলে যায়। আর এ ধরণের বাঙালীয়ানায় আর সকল জেলার মানুষ থেকে কোনো অংশেই পিছিয়ে নেই নারায়ণগঞ্জবাসী। তবে সকলের ঘুরতে যাবার পছন্দ এক নয়। কেউ শুধু নির্জন পরিবেশে বসে আড্ডাতেই মশগুল থাকতে ভালোবাসেন, কেউবা ভালোবাসেন প্রকৃতির সান্নিধ্য, কারও আবার আগ্রহের সবটা জুড়েই থাকে কোনো ঐতিহাসিক স্থান ঘুরে দেখবার নেশা। তাদের জন্যেই প্রেস নারায়ণগঞ্জের আজকের আয়োজনে থাকছে শহরের অন্যতম প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বিবি মরিয়মের সমাধি সৌধ নিয়ে একটি প্রতিবেদন।

বিবি মরিয়মের সমাধি হাজীগঞ্জের কিল্লারপুলে অবস্থিত। হাজীগঞ্জের বিবি মরিয়ম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পেছনেই মাজারটির অবস্থান। ধারনা করা হয় প্রায় সাড়ে তিনশ বছর পূর্বে বিবি মরিয়মের মাজার ১৬৬৪-৮৮ সালে মধ্যে স্থাপন করা হয়। সমাধীটি তৎকালীন মুঘল সম্রাট নিয়োজিত সুবেদার শায়েস্তা খাঁন কতৃক নির্মিত বলে ধারণা করে থাকেন ঐতিহাসিকরা । এটি একটি সমাধী সৌধ। সমাধিতে শায়িত ‘বিবি মরিয়ম’কে তৎকালীন বাংলার মুঘল সুবাদার শায়েস্তা খাঁনের কন্যা এবং ইরান দখত এর বোন তুরান দখত হিসেবে মনে করা হয়।

বিবি মরিয়মের সমাধি সৌধটি সুউচ্চ প্রাচির দিয়ে ঘেরা একটি আয়াতাকার প্রাঙ্গনের মাঝখানে ভুমি থেকে উচু ভিতের মাঝে নির্মিত। বর্গাকার ইমারতটিতে একটি গম্বুজ পরিলক্ষিত হয়ে। এছাড়াও ভবনের চারদিকে খিলান ছাদ বিশিষ্ট বারান্দা ঘিরে রয়েছে। সমাধি সৌধট্রি কেন্দ্রস্থলে চতুস্কোন কক্ষে রয়েছে তিন ধাপ বিশিষ্ট সমাধি। সমাধিটি শ্বেত পাথরে নির্মিত ও লতা পাতার নকশা অঙ্কিত। এছাড়া ও কবর ফলক ও সমাধি লাগোয়ো বারান্দায়ে বেশ কয়েকটি সাধারন কবরও রয়েছে।

সমাধি সৌধটির পশ্চিম পাশে তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ রয়েছে যার নির্মাণকাল সৌধটির সমসাময়িক অর্থাৎ ১৬৬৪-৮৮ সালে শায়েস্তা খাঁন নির্মাণ করেছিলেন বলে মনে করা হয়। এবং সমাধিতে শায়িত বিবি মরিয়ম এর নামেই একে বিবি মরিয়ম এর মসজিদ নাম করন করা হয়েছে। পূর্ব দিকে নির্মান করা হয়েছে প্রহরিদের থাকার জায়গা। সমাধী সৌধে প্রবেশের জন্য উত্তর দিকে নির্মান করা হয়েছিল গেইট। গেইটটি দিয়েই একসময় হজীগঞ্জ কেল্লায় প্রবেশ করতো। কিন্তু এখন গেইটটি পরিত্যাক্ত রয়েছে। এই এছাড়া অঞ্চলটিতে নারী শিক্ষা উন্নয়নের জন্য বিবি মরিয়মের সমাধীর পাশেই একটি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় নির্মান করা হয়। বিদ্যালয়টির নাম বিবি মরিয়মের নামে নামকরন করা হয়।

ঈদে ঘুরতে যাওয়ার জন্য বিবি মরিয়মের সমাধী একটি আদর্শস্থান হতে পারে। কিন্তু দুঃখের বিষয় অযতœ আর অবহেলায় দিনদিন ভ্রমণ উপযোগিতা হারিয়ে ফেলছে এটি। প্রহরিদের থাকার জায়গায় ময়লা-আবর্জনা ফেলে রাখা হয়েছে। অযতœ আর অবহেলায় কয়েক জায়গায় ভেঙে পড়েছে গেইটটিও। প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তর থেকে যদি উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়, তবে ফিরে পেতে পারে আগের পরিবেশ।

 

সব খবর