বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯

শামীম ওসমানের জনসভা নিয়ে যা বললেন জেলা ও মহানগরের শীর্ষ দুই নেতা

শুক্রবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:২৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর ৩টায় শহরের চাষাঢ়ায় জনসভা ডেকেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান। জনসভাকে সফল করতে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে অনুসারী নেতাকর্মীরা। তবে জনসভা নিয়ে ধোয়াশায় রয়েছেন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন সূত্রে জানেন জনসভা হবে কিন্তু এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছুই জানেন না অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ। এই জনসভা সাংসদ শামীম ওসমানের নিজের কর্মীসভা বলেও মন্তব্য করেছেন একাধিক নেতৃবৃন্দ।

তবে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এই সাংসদের জনসভা সফল করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ সাংসদ অনুসারী নেতাকর্মীরা। ইতিমধ্যেই তারা তাদের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। কে বিশাল জমায়েত করবে অনুসারীদের মধ্যে এমন প্রতিযোগিতাও চলছে।

গত মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে চাষাঢ়া ও ফতুল্লার পঞ্চবটিতে পৃথক দুই কর্মীসভার আয়োজন করেন সাংসদ শামীম ওসমান। ওই সভাতে তিনি ৭ সেপ্টেম্বর শহরের চাষাঢ়া চত্বরে ইতিহাসের সেরা জনসভা করার ঘোষণা দেন। জনসভা সফল করার জন্য অনুসারী নেতাকর্মীদের বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন।

জনসভার ঘোষণা দেওয়ার সময় শামীম ওসমান বলেন, ‘আগামী ৭ সেপ্টেম্বর জনসভা করতে চাই। ওই জনসভা যেন ইতিহাসে লেখা থাকে। যারা ষড়যন্ত্র করে সেসব ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধেই হবে এই জনসভা। ওই দিন সকল ষড়যন্ত্রের জবাব দেওয়া হবে। যে ভাষায় জবাব দেওয়ার দরকার সেই ভাষাতেই জবাব দেওয়া হবে। যারা ষড়যন্ত্র করছে তাদের বুক যেন থরথর করে কাঁপে এমন জনসভা করা হবে।’

তবে জনসভার বিষয়ে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতৃবৃন্দ তেমন কিছুই জানেন না। জেলা নাকি মহানগর নাকি অন্য কোন ব্যানারে হবে এই জনসভা সে বিষয়ে পরিষ্কার নন তারা। তবে জেলা কিংবা মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় শনিবারের জনসভার বিষয়ে এমন কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

জনসভার বিষয়ে জানতে চাইলে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এটাতো মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মসূচি না। এটা নিয়ে আমাদের প্রস্তুতি নেই। এটা এমপি সাহেব করবেন, এটা তো মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটির সিদ্ধান্তে হচ্ছে না। আমি তো মহানগর আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট। এই কর্মসূচি তো আমার সাথে আলাপ করে নেয় নাই কিংবা আমাদের কার্যকরী কমিটির কোন সিদ্ধান্তও হয় নাই।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল বলেন, আমরা দাওয়াত পেয়েছি আমরা যাবো। জেলা আওয়ামী লীগ দাওয়াত পাইছে, জেলা আওয়ামী লীগ যাবে। আমার এমপি আমার দলের বাইরের কেউ না। তিনি স্বাধীনতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের বিপক্ষে সভা দিয়েছেন। বিষয়টা আওয়ামী লীগের, এখানে আমরা অবশ্যই থাকবো।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাইয়ের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার মুঠোফোনের নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। অন্যদিকে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহার মুঠোফোনে কল করলে তিনি মিটিংয়ে আছেন এবং পরে ফোন দিতে বলে কলটি কেটে দেন।

জানা গেছে, দুপুর তিনটায় শহরের চাষাঢ়ার বাগে জান্নাত মসজিদের সামনে নবাব সলিমউল্লাহ সড়কের উপর এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ