বুধবার ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

দিনভর তীব্র যানজটে নাকাল নগরবাসী

বৃহস্পতিবার, ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:৫৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: প্রথমত, সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস তার উপর এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলছে। সাথে যোগ হয়েছে অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা। এমন ব্যস্ততম একটি দিন নগরবাসীর কেটেছে তীব্র যানজটের মধ্য দিয়ে। নগরীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সড়ক বঙ্গবন্ধু সড়কে (বিবি রোডে) সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দেখা গেছে তীব্র যানজট। মূল সড়কে যানজট থাকার কারণে শহরের পাশ্ববর্তী সড়কগুলোতেও এর প্রভাব পড়েছে। এতে অফিসগামী, কর্মজীবী মানুষদের ঘন্টার পর ঘন্টা সড়কে অপক্ষোয় থাকতে হয়েছে। পুরো দিনজুড়ে ভোগান্তির শিকার হয়েছে সাধারণ মানুষ।

বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে (বিবি রোডে) দেখা যায়, পুরো বঙ্গবন্ধু সড়কজুড়ে ভয়ঙ্কর যানজট। যানজটের কবলে পড়ে চরম বিপাকে পড়েছেন স্কুলগামী শিক্ষার্থী ও তাদের স্বজনরা, অফিসগামী কর্মজীবী ও আদালতসহ গুরুত্বপূর্ণ কাজে বের হওয়া মানুষ। ফলে দীর্ঘক্ষন অপেক্ষার পরও যানজট না কমলে কেউ কেউ বাস থেকে নেমে পায়ে হেঁটে রওনা দিয়েছেন গন্তব্যে।

এদিকে শীতকাল হলেও দিনভর ছিল ভ্যাপসা গরম। একদিকে যানজট, অন্যদিকে ভ্যাপসা গরমে হাঁপিয়ে উঠা নগরবাসীর দুর্ভোগের মাত্রা যেন বেড়েছে বহুগুন। এতে এমন দুর্ভোগের শিকার ভুক্তভোগী নগরবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ দেখা যায়।

জেলা আদালতে একটি মামলার হাজিরার জন্য বন্দর থেকে আগত রিয়াজুল বাসে ওঠেন কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে। কিন্তু শহরজুড়ে তীব্র যানজটের কারণে প্রায় এক ঘন্টা পর পৌছান নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে। এদিকে হাজিরার সময় পেরিয়ে যাচ্ছে। তাই বাস থেকে নেমে পড়েন রিয়াজুল। নেমে যানজট দেখে রিকশা নিতেও সাহস পাচ্ছেন না তিনি। উপায় না দেখে হেটেই আদালতের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন তিনি। স্বাস্থ্যবান রিয়াজুল প্রেসক্লাব থেকে শহীদ মিনার পর্যন্ত হেটে আসতেই হাপিয়ে ওঠেন। কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন, প্রায় ঘন্টাখানেক আগে ১ নম্বর গেট থেকে বাসে উঠেছি। মাত্র পৌছেছি চাষাড়া। এদিকে মামলার সময় চলে যাচ্ছে। এখন সময় মতো আদালতে উপস্থিত হতে না পারলে কোন ঝামেলায় পড়ি তা নিয়ে চিন্তায় আছি।

এদিকে যানজটের কবলে পড়ে দুই নম্বর গেটের সামনে থেকে রিকশা ছেড়ে দেন অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষার্থী শিউলি আক্তার। পায়ে হেটেই পরীক্ষা কেন্দ্র সরকারি তোলারাম কলেজের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন তিনি। শিউলি বলেন, কিছুক্ষন পর পরীক্ষা। রিকশায় বসে থাকলে অর্ধেক পরীক্ষা শেষ হয়ে যাবে। তাই হেটেই চলে যাচ্ছি।

চাষাড়ায় দায়িত্ব ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট আলম খন্দকারের সাথে কথা হয়। যানজটের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের কারণে এ যানজট। তার সাথে এসএসসি পরীক্ষা চলছে। আর এমনি আজ একটু যানবাহনের সংখ্যা বেশি দেখা যাচ্ছে। তাই আমাদের সামাল দিতে একটু কষ্ট হচ্ছে। তবে আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। এটা নিয়ন্ত্রনে আমরা সবাই মাঠে আছি। শীঘ্রই এটা নিরসন হবে।

সব খবর
জনদুর্ভোগ বিভাগের সর্বশেষ