মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর, ২০১৯

শহরে ‘বেদে নারী’ আতঙ্ক

শনিবার, ৯ নভেম্বর ২০১৯, ১৮:৫০

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: প্রায় সময় নগরীর বিভিন্ন সড়কে দেখা যায় একদল নারীর উপস্থিতি। কাপড়ের আচল কোমড়ে গুজা, রঙিন খোপা আর মুখ ভর্তি পান। বেদে পল্লীর এই নারীরা এখন নগরবাসীর আতঙ্কের কারণ। ছেলে বা মেয়ে এদের হাত থেকে রেহাই নেই কারোর। মাঝ রাস্তায় পথ আটকে ধরেই বলবে, ‘টাকা দে। তোর হাতটা ধরি, কয়টা টাকা দে। বাইদ্দানি বইলা ঘিন্না করলি। আমরাও মানুষ এত ঘিন্নাইস না। টাকা দেনা।’ ১৬-১৭ বছরের নারীদের এমন কথায় অনেকেই মানিব্যাগ বের করে টাকা দেয়। আর এই পরিস্থিতির সুযোগ নেয় তারা। অশোভনীয় ও আবেগঘন কথার ফাঁদে প্রায় জোরপূর্বক হাতিয়ে নেয় অনেকটা টাকা। আর যদি টাকা দিতে অস্বীকার করে তাহলে মাঝ সড়কে সকলের সামনে অপমান করে পথচারীদের। প্রায় সময় অশ্লীল আচরণ করতেও দেখা যায়।

তাদের হয়রানির শিকার হয়নি এমন মানুষ খুব কমই আছে। তাই অনেকেই হয়রানি থেকে বাঁচার জন্য এড়িয়ে চলে এদের। অনেকে এদের দেখলেই বদলে ফেলে তাদের পথ। তবু এড়ানো যায় না তাদের। প্রায় সময় সড়কের মাঝে বেদে কিশোরীদের সঙ্গে ঝগড়া করতে দেখা যায় পথযাত্রীদের। এতদ্বা সত্ত্বেও এদের বিরুদ্ধে নেই কোনো পদক্ষেপ। এরা প্রতিদিনই শহরে ঘুরে বেড়াচ্ছে, অবাধে সবাইকে হয়রানি করে বেড়াচ্ছে।

বেদে কিশোরীদের হয়রানির শিকার হওয়া নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষার্থী আবির হোসেন বলেন, ‘কলেজের প্রথমবর্ষে প্রথম বেদে কিশোরীদের মুখোমুখি হই। তখন ওদের সম্পর্কে তেমন কিছুই জানতাম না, বুঝতামও না। ক্লাস শেষে বন্ধুদের সঙ্গে যাচ্ছিলাম তখন দুজন আমাদের পথ আটকে ধরে টাকা চাইতে শুরু করে। এমন এমন কথা বলছিল যে লজ্জায় পরে যাই। দশ টাকা ভাংতি ছিল না তাই একশ টাকার নোট দিয়েছিলাম। সে পুরো রেখে দিল তার অন্তবাসে। লজ্জায় কিছু বলতেও পারিনি।’

আবির বলেন, ‘এখন এদের দেখলেই পথ এড়িয়ে চলি। তারপরও মাঝে মাঝে সামনে পড়ে যাই। কোন কথা না বলে টাকা দিয়ে দেই।’

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী আব্দুল্লা ওয়াজিব বলেন, ‘টাকা না দিলে ওরা খুব বাজে ব্যবহার করে। কিছু বলতে গেলেই রাস্তার মধ্যে বাজে বাজে কথা বলে আর সবার সামনে অপমান করে। ওদের হয়রানির শেষ নেই। প্রতিদিনই এমন করে ওরা। বেদে মেয়ে বলে কিছু বলাও যায় না।’

হকার তাজুল মিয়া বলেন, ‘এটা ওগো প্রতিদিনের ধান্দা। সবাইরে ধরে, আমাগো ছাড়ে না। পুলিশ তো আশেপাশেই থাকে। সবাই দেখে কিন্তু কিছু কয় না। সুযোগ পাইলে চুরিও করে। ধরা পরলেই বা কি! মেয়ে মানুষ। ওদের কি কেউ চেক করবো। আগে রাস্তাঘাটে হিজড়ারা এমন করতো এখন ওরা করে।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ