শুক্রবার ১৬ নভেম্বর, ২০১৮

লিংক রোডের দুই পাশে আবর্জনার স্তুপ, ভোগান্তি

বুধবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৪:৩২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের দুই পাশে দীর্ঘদিন ধরে মালামাল ফেলে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি নিয়মিত ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। এগুলো অপসারণ না করায় সাধারণ মানুষকে পোহাতে হচ্ছে দুর্ভোগ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সদর উপজেলার ফতুল্লার লামাপাড়া এলাকায় খান সাহেব ওসমান আলী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পূর্ব পাশের গেট বরাবর ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের পশ্চিম পাশে ফেলে রাখা হয়েছে বিদ্যুতের খুঁটি, তারের বড় বড় রোলার। ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে ময়লা-আবর্জনা। স্টেডিয়ামের পূর্ব পাশে আছে পরিবেশ অধিদপ্তর, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, কলকারখানা পরিদর্শকের কার্যালয়সহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। লামাপাড়া থেকে জালকুড়ি পর্যন্ত লিংক রোডের দুই পাশে ময়লা-আবর্জনার স্তুপ। এছাড়া রাস্তার পাশে গড়ে তোলা হয়েছে গাড়ির গ্যারেজ। সকালে রাস্তার পাশে এসব ট্রাক পার্ক করে রাখা হয়, যার ফলে সরু হয়ে পড়ে রাস্তা।

জালকুড়ি থেকে ভুঁইগড় পর্যন্ত লিংক রোডের দুই পাশে আবর্জনার স্তূপ। দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। পথচারী ও যানবাহনের যাত্রীদের চলাচলের সময় নাকে রুমাল চেপে রাখতে হয়। স্থানীয় লোকজন জানান, মাঝেমধ্যে সড়কের পাশ থেকে ময়লা বুলডোজার দিয়ে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু ময়লা ফেলা বন্ধ হচ্ছে না। এলাকাবাসীর অভিযোগ, আগে সিটি করপোরেশন, ফতুল্লা ও কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন এলাকার ময়লা-আবর্জনা সেখানে ফেলা হতো। এখন সিটি করপোরেশন ময়লা-আবর্জনা ফেলছে না। তবে বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ময়লা সংগ্রাহকেরা এখানে ময়লা ফেলছে।

শিবু মার্কেট এলাকার বাসিন্দা সোহেল আরমান বলেন, ‘লিংক রোডটি খুব অবহেলিত। সড়কের দুই পাশে বিভিন্ন মালামাল ও ময়লা-আবর্জনা থাকলেও দেখার যেন কেউ নেই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পাশে রাস্তার এই দুরবস্থায় আমরা হতবাক।’

জালকুড়ি এলাকার বাসিন্দা কাজী আবদুল্লাহ বলেন, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলার সঙ্গে যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম লিংক রোড। অথচ রাস্তার দুই পাশে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ। মালামাল ফেলে রাস্তা দখল করে রাখা হয়েছে। স্বস্থ্য ও পরিবেশ সচেতন নগরের জন্য লিংক রোড এখন গোদের ওপর বিষফোড়ার মতো। রাস্তাটি পরিচ্ছন্ন রাখা জরুরি।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নারায়ণগঞ্জের বিভাগীয় প্রকৌশলী আলীউল হোসেন বলেন, ‘সড়কের দুই পাশে বিদ্যুতের খুঁটিগুলো সরিয়ে নেওয়ার জন্য ডিপিডিসিকে অনেকবার বলা হয়েছে। চিঠিও দেয়েছি। তারা কিছু সরিয়ে নিয়েছে, বাকিগুলোও সরাবে বলে জানিয়েছে।’ ময়লা-আবর্জনা বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এখানে বিভিন্ন এজেন্সি ময়লা-আবর্জনা ফেলছে। মাঝেমধ্যে আমরা ময়লা-আবর্জনা সরিয়ে দিই। কিন্তু বারবার তো এভাবে সরানো সম্ভব হয় না। এ ক্ষেত্রে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।’

জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, লিংক রোডের পাশ থেকে ময়লা-আবর্জনা ও মালামাল অপসারণে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সূত্র: প্রথম আলো

সব খবর
জনদুর্ভোগ বিভাগের সর্বশেষ