সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

লবণ নিয়ে গুজবের বিরুদ্ধে মাঠে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ

মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ২২:২৫

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: শহরের সর্বত্র লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজবের ছড়াছড়ি। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মাছের বাজার, কর্পোরেট অফিস থেকে সরকারি দফতর। সব জায়গায়ই আলোচনার মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে লবণ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো এই গুজব সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করেছে। মুখে মুখেই যেন বেড়ে যাচ্ছে লবণের দাম। যার ফলে স্বল্পমূল্যে লবণ কেনার জন্য দোকান, বাজারে ভিড় করতে থাকে ক্রেতারা। আর এরই সুযোগ নেয়া শুরু করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা। খুচরা বা পাইকারি বাজার, বাদ যায়নি আড়তগুলোও। মজুদ থাকার পরেও লবণ বিক্রি করছেন না তারা। গুজবের সুযোগ নিয়ে অসাধু কিছু ব্যবসায়ী লবণের মূল্য ৫/১০ টাকা বাড়িয়েও দিয়েছেন। তবে এসবের বিরুদ্ধে সরব জেলা প্রশাসন ও পুলিশ।

লবণের মূল্যবৃদ্ধির গুজব মোকাবেলা ও পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে মাঠে নেমেছে জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশ। মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) বিকেলে জেলার প্রতিটি থানার বিভিন্ন স্থানে সাধারণ মানুষকে সচেতন ও গুজব কান না দেয়ার অনুরোধ করে মাইকিং করেছে পুলিশ। কালিরবাজার, বউ বাজার, দিগু বাজারসহ সদরের বিভিন্ন স্থানেও মাইকিং করা হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লবণের দাম বৃদ্ধি ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে দুইজনকে আটকও করেছে পুলিশ। অন্যদিকে জেলা প্রশাসন থেকে শহরে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

লবণের এই দাম বৃদ্ধির গুজবের বিষয়ে তৎপর জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশ। জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন ফেসবুকে এক বার্তায় বলেন, ‘বর্তমানে দেশে চাহিদার চেয়ে অনেক বেশি লবন মজুদ আছে। সুতরাং গুজবে বিভ্রান্ত হবেন না।’

জেলা পুলিশ সুপার (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘গুজবে কান দিবেন না। কেউ গুজব ছড়ালে কিংবা গুজবের সুবিধা নিয়ে বেশী দাম রাখলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাজারে পর্যাপ্ত লবণ মজুদ আছে।’

আড়াইহাজারে লবণ নিয়ে কেউ গুজব ছড়ালে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের হুশিয়ারি দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহাগ হোসেন। তিনি বলেন, ‘বাজারে লবণের কোনো ঘাটতি নেই। পর্যাপ্ত পরিমাণে লবণ মজুদ রয়েছে। লবণ নিয়ে কোনো গোষ্ঠী বা ব্যক্তি যদি গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করেন; তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে।’

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘গুজব প্রতিরোধে জেলা পুলিশ তৎপর। আমাদের পুলিশ সুপার মহোদয় বিভিন্ন বাজার পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ কালিরবাজার, বউ বাজার, দিগুবাবুর বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে মাইকিং করেছে। মূল্য বৃদ্ধির বিষয়টি সম্পূর্ণ গুজব। কেউ এমন গুজব ছড়ালে কিংবা গুজবের সুবিধা নিয়ে বেশি দাম রাখলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন বলেন, ‘লবণের মূল্য বৃদ্ধি পায়নি। তারপরও দাম বেড়ে যাচ্ছে কেউ কেউ এমন গুজব ছড়াচ্ছে। আমরা সতর্ক রয়েছে। বিভিন্ন বাজারে পুলিশ পাঠিয়ে সতর্ক করে দেওয়া হচ্ছে।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ