বৃহস্পতিবার ০৯ এপ্রিল, ২০২০

রূপগঞ্জে নিহত ডাকাতের বন্ধুর লাশ শীতলক্ষ্যায়

বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ ২০২০, ১৮:১৫

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

স্ত্রী ও ছেলের সাথে নিহত শামীম

স্ত্রী ও ছেলের সাথে নিহত শামীম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে উদ্ধারকৃত অজ্ঞাত দুই যুবকের মধ্য একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম শামীম (২৯), সে রংপুরের মো. চাঁন মিয়ার ছেলে। নিহতের পরিবারের লোকজন জানান, নিহত শামীম গত মঙ্গলবার রূপগঞ্জে গণপিটুনির পর পুলিশি হেফাজতে নিহত ডাকাত স্বপন মিয়ার (২৮) বন্ধু।

বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) সকালে মৃত শামীমের স্ত্রী আমেনা বেগম (২৬) নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে এসে লাশ শনাক্ত করেন।

আমেনা বেগম জানান, কাজের সুবাদে শামীম দীর্ঘদিন রূপগঞ্জে বসবাস করে আসছিলেন। সে রূপগঞ্জের যাত্রামুড়া এলাকায় জোবেদা স্পিনিং মিলে কর্মরত ছিল। সেখানে তাদের পরিচয় এবং বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর আমেনাকে রংপুর গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দেন তার বাবার কাছে। ছোটবেলায় মা মারা গেছেন শামীমের, বৃদ্ধ বাবা আর সৎ মা রয়েছে রংপুরে।

নিহতের শ্যালক বারেক বলেন, গত ৪ মাস আগে শামীম রূপগঞ্জ ছেড়ে রংপুরে চলে যান। তবে রূপগঞ্জে আসা-যাওয়া ছিল তার। চনপাড়ায় স্বপন নামে এক বন্ধু থাকতো শামীম ভাইয়ের। ডাকাতির ঘটনায় গণপিটুনিতে সে নাকি মারা গেছে।

শামীমের স্ত্রী আমেনা জানান, গত ১০-১২ দিন আগে রংপুর থেকে রূপগঞ্জ আসেন শামীম। মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) তার রংপুর ফিরে যাবার কথা ছিল। রোববার মোবাইলে স্ত্রীর সাথে শেষ কথা হয় তার। এরপর থেকে ফোনে আর পাওয়া যায়নি তাকে। পরে শামীমের শ্যালক বারেক তার দুলাভাই নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে রূপগঞ্জ থানায় জিডি করতে গেলে পুলিশ তাকে দুটি অজ্ঞাত লাশ উদ্ধারের কথা জানায়। পরে বোনকে জানায় সে।

আমেনা বলেন, ‘রূপগঞ্জ কার কাছে এসেছিল আমি জানি না। সে তার শ্যালকের কাছে যায়নি। গত রোববার তার সঙ্গে আমার শেষ কথা হয়েছিল। এর পরদিন থেকেই তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। আজ হাসপাতালে আইসা দেখি তার লাশ। আমি এখন কি করমু জানি না। আমার আর কেউ রইলো না। ছোট্ট ছেলেটারে নিয়া একা একা কি করমু।’

লাশ নিয়ে আসা রূপগঞ্জ থানার কনস্টেবল সোহেল বলেন, লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। দাফনের জন্য রূপগঞ্জের চনপাড়া এলাকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান জানান, গত ১৬ মার্চ রাতে ৭/৮ জনের একদল ডাকাত দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একটি নৌকায় করে ডাকাতির করতে উপজেলার মুড়াপাড়া বাজারে যায়। ডাকাতির প্রস্তুতিকালে স্থানীয়রা ডাকাত দলের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের ধাওয়া দেন। এ সময় একজনকে ধরতে পারলেও বাকি ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা ডাকাত স্বপন মিয়াকে গনপিটুনি দিয়ে মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম করে। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে ডাকাত স্বপন মিয়াকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য রূপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে চিকিৎসা দেয়। পরে স্বপন মিয়ার বিরুদ্ধে রূপগঞ্জ থানায় ডাকাতি মামলা দায়ের করা হয়।

উল্লেখ্য, গতকাল ১৮ মার্চ নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে অজ্ঞাত দুই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। শীতলক্ষ্যা নদীর মুড়াপাড়া বাজার ঘাট ও কায়েতপাড়ার বাউলিয়াপাড়া ঘাট এলাকা থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়। এর আগে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে গণপিটুনিতে আহত ডাকাত স্বপন মিয়ার (২৮) মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সন্ধ্যায় রূপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত ডাকাত স্বপন মিয়া উপজেলার চনপাড়া পূর্নবাসন কেন্দ্র এলাকার সাত্তারের ছেলে।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ