শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ: ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজন রিমান্ডে

সোমবার, ২০ জানুয়ারি ২০২০, ১৩:৫৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

গ্রেফতারকৃত তানভীর ও ফয়সাল

গ্রেফতারকৃত তানভীর ও ফয়সাল

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: রূপগঞ্জে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে তুলে নিয়ে দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনায় আরও তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে তানভীর এই মামলার এজাহারনামীয় আসামি। গ্রেফতার অন্যরা হলেন ফয়সাল আহমেদ ও রবিন ভূইয়া। ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত অভিযোগে তাদেরও এই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। এদিকে গ্রেফতার ফয়সাল আহমেদ তারাবো পৌর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

রোববার (১৯ জানুয়ারি) সকালে খাগড়াছড়ি সদর এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে রূপগঞ্জ থানা পুলিশ। গ্রেফতার তানভীর উপজেলার তারাবো পৌরসভার রূপসী এলাকার মৃত কবির হোসেনের ছেলে, ফয়সাল আহম্মেদ নোয়াপাড়া এলাকার বাদল মিয়ার ছেলে ও রবিন ভূইয়া মৃত আব্দুল বাতেন ভূইয়ার ছেলে।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার পরিদর্শক (অপারেশন) রফিকুল হক জানান, ঘটনার পর থেকেই তানভীর পলাতক ছিল। তদন্তের মাধ্যমে তানভীরের অবস্থান নিশ্চিত করে খাগড়াছড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িত ফয়সাল ও রবিন নামে আরও দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে সোমবার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে আসামিদের বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদন করে আদালতে হাজির করে রূপগঞ্জ থানা পুলিশ। পরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাওসার আলমের আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, গণধর্ষণ মামলার তিন আসামিকে আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন করলে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৯ জানুয়ারি দুপুরে বাড়ি ফেরার পথে রূপগঞ্জের গন্ধর্বপুর এলাকা থেকে ভুক্তভোগী কিশোরী স্কুলছাত্রীকে মাইক্রোবাসে তুলে অপহরণ করে তৌসিফ, আফজাল, সোহান ও তানভীরসহ অজ্ঞাত ২/৩ জন। পরে রূপসী ও কর্নগোপ এলাকার পৃথক দু’টি বাড়িতে দুইদিন আটক রেখে কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তারা। শুক্রবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে কিশোরীকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মৌচাক এলাকায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায় আসামিরা। পরে তার পরিবারের লোকজন তাকে মৌচাক থেকে উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় ওই কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে গত শনিবার রাতে তৌসিফ, আফজাল, সোহান ও তানভীরসহ অজ্ঞাত ২/৩ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলার পর ওই রাতেই অভিযান চালিয়ে তৌসিফ ও আফজালকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এদিকে মামলার অপর আসামি তারাবো পৌর ছাত্রলীগের সহসভাপতি আবু সুফিয়ানকে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করেছে আশুগঞ্জ থানা পুলিশ। তাকে ধর্ষণ মামলায়ও গ্রেফতার দেখানো হয়। এ ঘটনায় তাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে। তবে পলাতক ছিল এজাহারনামীয় আরেক আসামি তানভীর।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ