সোমবার ২২ জুলাই, ২০১৯

রিকশাওয়ালার ছদ্মবেশে জঙ্গি কার্যক্রম, র‌্যাবের জালে তিন জঙ্গি

শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০১৯, ১৮:৫৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির তিন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১ এর নারায়ণগঞ্জের আদমজীনগর ক্যাম্পের একটি অভিযানিক দল।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) দিবাগত রাতে চট্টগ্রাম বন্দর থানার হালিশহর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ উগ্রবাদী বই ও লিফলেট উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

গ্রেফতারকৃতরা হলো নোয়াখালির বেগমগঞ্জের নরোত্তম এলাকার মো. আশফাক উর রহমান অয়ন ওরফে আরিফ ওরফে অনিক (২৬), সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জের রুদ্রপুর এলাকার মো. রনি আহম্মেদ ওরফে রনি (৩১) ও রাজবাড়ীর পাংশার কৃষ্টপুর এলাকার মো. রিপন মন্ডল ওরফে রিপন (৩০)।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, আশফাক-উর-রহমান ২০০৯ সালে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল হতে এসএসসি (বিজ্ঞান শাখা) ও ২০১১ সালে চট্টগ্রামের গভমেন্ট সিটি কলেজ হতে এইচএসসি পাশ করে এবং ২০১৬ সালে হয়রত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট হতে অনার্স (কম্পিউটার সায়েন্স) সম্পন্ন করে। সর্ব প্রথম ২০১৪ সালে মোল্লা ইব্রাহীমের বক্তব্য শুনে তার মাঝে উগ্রবাদী চেতনা জাগ্রত হয় এবং মোল্লা ইব্রাহীমের মাধ্যমে বাংলাদেশী জিহাদী তৎপরতা ও আল কায়দা সম্পর্কে ধারণা নেয়। পরবর্তীতে সিলেটে মোল্লা ইব্রাহীমের কয়েকজন ঘনিষ্ঠ অনুসারীর মাধ্যমে আশফাক আনসার-আল-ইসলামের কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে পড়েন। ২০১৫ সালের দিকে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন সংগঠনটির সামরিক শাখার আইটি বিভাগের দায়িত্বে নিযুক্ত হয়। একই বছর সে ঢাকায় ১২ দিনের প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশগ্রহন করে গেরিলা যুদ্ধ সম্পর্কে তাত্ত্বিক ধারনা নেয়। সেখানে তার সাথে মেজর জিয়ার পরিচয় ও ঘনিষ্ঠতা হয়। ২০১৬ সালে সিলেট থেকে ঢাকায় আনসার-আল-ইসলামের মিডিয়া উইংয়ের দায়িত্ব পালন করে। ২০১৭ সালে মে মাসের শুরুর দিকে সে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়। ২০১৭ সালের শেষের দিকে জামিনে এসে পুনরায় জঙ্গি কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ে। নিজের পরিচয় উৎঘাটিত হওয়ায় এবং সাংগঠনিক কর্মকান্ডের সুবিধার্থে জামাআতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশে (জেএমবি) যোগদানপূর্বক পূর্বের ন্যায় সামরিক শাখার আইটি বিভাগের শীর্ষ নেতা হিসেবে নিযুক্ত হয়ে জঙ্গী তৎপরতা অব্যাহত রাখে।

রনি আহম্মেদ ও রিপন মন্ডল দুজনই দীর্ঘ দিন ধরে চট্টগ্রামের ইপিজেডের দুটি বেসরকারি কোম্পানীতে চাকুরি করে। ২০১৬ সালের শুরুর দিকে জেএমবির সক্রিয় সদস্য মেহেদী হাসান ও আকবর হোসেন ওরফে সুমনের মাধ্যমে তারা উভয়ই উগ্রবাদী চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে জেএমবিতে যোগদান করে এবং জঙ্গি তৎপরতায় জড়িয়ে পড়ে। রনি আহম্মেদ চাকুরির পাশাপাশি জেএমবির সাংগঠনিক চালানোর সুবিধার্থে ছদ্মবেশে রাতে রিকশা চালাতো।

গ্রেফতারকৃত তিন জনের বিরুদ্ধে র‌্যাব-১১ কর্তৃক দায়েরকৃত সিদ্ধিরগঞ্জ ও বন্দর থানায় সন্ত্রাস বিরোধী (জঙ্গি) আইনে দুটি পৃথক মামলার পলাতক আসামি। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ