বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট, ২০২০

রাত ১২টার পর থেকে রূপগঞ্জ ইউনিয়ন লকডাউন

বৃহস্পতিবার, ১১ জুন ২০২০, ১৫:৫১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জ ইউনিয়নে আজ রাত ১২ থেকে লকডাউন ঘোষণা করে জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন। এর আগে রূপগঞ্জ ইউনিয়ন অধিক সংক্রমিত অঞ্চল হিসেবে ‘রেড জোন’ চিহ্নিত করে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। সংক্রমণ রোধে ইউনিয়নটি লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নেয় স্থানীয় প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) সকালে রূপগঞ্জ উপজেলা কনফারেন্স কক্ষে এ ঘোষণা দেন তিনি। আগামী ১৪ দিন, প্রয়োজনে ২১ দিন এলাকাটি লকডাউন রাখা হবে বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, ‘করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জের সকল শ্রেণি পেশার লোকজন আন্তরিক। তবু অনাকাক্সিক্ষতভাবে বেড়ে যাচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এমন ভয়াবহতা রোধ করতেই কঠোর লকডাউনে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম, জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মোহাম্মদ ইমতিয়াজ আহমেদ, সহকারী পুলিশ সুপার (গ সার্কেল) মাহিন ফরাজী, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভুঁইয়া, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আফিফা খান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার সাইদ আল মামুন, রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মাহমুদুল হাসান, রূপগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন ভুঁইয়া, রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক খলিল সিকদার প্রমূখ।

জানা যায়, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ভোটার সংখ্যা ৪৫ হাজার। এ ইউনিয়নে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ৭৪ জন। আক্রান্ত ৭৪ জনের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩৫ জন এবং মারা গেছেন ১ জন। রোগী বেশি হওয়াতে রূপগঞ্জ ইউনিয়নকে রেড জোন অর্থ্যাৎ অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ইউএনও মমতাজ বেগম বলেন, ‘এর আগেও রূপগঞ্জ লকডাউনে ছিল। আমরা সেই অভিজ্ঞতার আলোকে এগিয়ে যাচ্ছি। লকডাউন নিশ্চিতের প্রধান বিষয় হচ্ছে খাদ্য ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। আমরা এ বিষয়ে সর্বাত্মক ব্যবস্থা নিচ্ছি। আজ আমরা এলাকাটি পরিদর্শন করেছি এবং চেয়ারম্যানসহ সকল ওয়ার্ড মেম্বারদের সঙ্গে সমন্বয় করে ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটি গঠন করেছি। এছাড়া লকডাউন নিশ্চিতের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দল ও ভ্রাম্যমান আদালতের মনিটরিং থাকবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতের জন্য টেলিমেডিসিন, নমুনা সংগ্রহে আলাদা দল গঠন, হোম ডেলিভারি সার্ভিস, স্বাস্থ্যকর্মী, মৃতের সৎকার ব্যবস্থাপনা তো থাকবেই। এর বাইরে সম্পূর্ণ সেবা নিশ্চিতের জন্য আমাদের বিশেষ দল কাজ করবে। বিভিন্ন সময় আমরা দেখেছি লকডাউনে এলাকা বন্ধ করে আড্ডাবাজি হয়। এবার আমরা আরও কঠোরভাবে বিষয়গুলো দেখবো এবং বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করবো।’

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ