শুক্রবার ১৪ আগস্ট, ২০২০

যে চিকিৎসায় সুস্থ হলেন নারায়ণগঞ্জের একই পরিবারের ১৮ জন

বৃহস্পতিবার, ১৪ মে ২০২০, ১৪:৫৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

আফসানা আক্তার (প্রেস নারায়ণগঞ্জ): নারায়ণগঞ্জে করোনা যুদ্ধে জয়ী হয়েছেন একই পরিবারের ১৮ জন সদস্য। বাড়ির প্রতিটি সদস্য করোনা আক্রান্ত হবার পরও হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি তাদের। ধীর মনবল ও একে অপরের সহযোগিতায় সুস্থ হয়ে উঠেন তারা সকলে।

নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শিল্পী আক্তারের বাবা-মায়ের যৌথ পরিবারে ২১ এপ্রিল প্রথম আক্রান্ত হন ডা. শিল্পী আক্তারের ছোট ভাই। এরপর পরিবারের বাকিদের নমুনা পরীক্ষা করা হলে দুদিন পর পরিবারের আরো ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৭৪ বছরের বৃদ্ধ এবং ১৪ বছর বয়সী কিশোরও রয়েছে।

বুধবার (১৩ মে) দ্বিতীয় ফলোআপ নমুনা পরীক্ষরা ফলাফল অনুযায়ী ওই পরিবারের ১৮ জনই এখন সম্পূর্ণ সুস্থ্য। এর আগে ৫ মে প্রথম ফলোআপ পরীক্ষায় ১৭ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ ও একজনের পজেটিভ আসে।

আক্রান্ত হবার পরপরই বাড়িতে রেখে পরিবারের সকলকে চিকিৎসা দেয়ার জন্য সকল প্রস্তুতি নেন ডা. শিল্পী আক্তার। করোনাভাইরাস চিকিৎসার সঙ্গে যুক্ত থাকার সুবাধে চিকিৎসা বিধি সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবগত ছিলেন তিনি। একই সঙ্গে চিকিৎসা সরঞ্জাম, ঔষধ প্রস্তুত রাখেন। এমনকি সর্বোচ্চ খারাপ অবস্থার জন্যও প্রস্তুতি নিয়েছিলেন এই চিকিৎসক। তবে সে প্রস্তুতির সম্পূর্ণ ব্যবহারের প্রয়োজন হয়নি বলেন জানান ডা. শিল্পী আক্তার।

শিল্পী আক্তার বলেন, ‘করোনা শনাক্ত হওয়ার পরই ভেবে নিয়েছিলাম বাসায় রেখে চিকিৎসা করাবো। কেননা আমার পরিবারের ১৮ জন আক্রান্ত ছিলেন। ১৮ জনকে একই সঙ্গে, একই হাসপাতালে ভর্তি করানো সম্ভব নয়। একাধিক হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে তাদের দেখাশোনা করা সম্ভব ছিল না। কেননা দেখাশোনা করার মত কেউ ছিলোই না। তাই যা করার ছিল সব আমাকেই করতে হত। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম বাসায় রাখবো। এছাড়া বাসায় তাদের আলাদা আলাদা আইসোলেশনে রাখার মত পর্যাপ্ত কক্ষ ছিলো। তাই সময় ব্যয় না করে সকল প্রস্তুতি নিয়ে নেই। তবে আমাদের সৌভাগ্য যে, কারো শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটেনি।’

তিনি বলেন, ‘আমার বাবার বয়স ৭৪ বছর। সে সবচেয়ে বেশী ঝূঁকিতে ছিলেন কিন্ত আক্রান্ত হবার পর তার কোনো উপসর্গ দেখা যায়নি। জ্বর, ঠান্ডা, কাশি, শ্বাসকষ্ট কিছুই তার ছিলনা। পরিবারের এক সদস্যের জন্য শুধু একবার নেবুলাইজিং মেশিন ব্যবহার করতে হয়েছে।’

শিল্পী আক্তার জানান, তার পরিবারের সকলে আলাদা আলাদা কক্ষে আইসোলেশনে ছিলেন, চিকিৎসকদের দেয়া ঔষধ নিয়মিত গ্রহণ করেছেন, ভিটামিন সি জাতীয় খাবার খেয়েছেন, কিছু ব্যায়াম, গরম পানি পান করা, গরগরা করার মত সকল স্বাস্থ্য বিধিই তারা পালন করেছেন।

তাদের সুস্থ হয়ে উঠার পিছনে ছিল তাদের ধীর মনোবল ও একে অপরের প্রতি সহযোগিতা এমন মন্তব্য করে শিল্পী আক্তার বলেন, ‘করোনা শনাক্ত হওয়ার পর আমরা সবাই ভয় পেয়ে যাই। তার উপর এলাকাবাসীর অমানবিক আচরণ আমাদের আরো মনোবল ভেঙ্গে দেয়। তবে প্রশাসনিক সহযোগিতা ও উৎসাহ আমাদের মনোবল তৈরি করে। তারপর আসে আইসোলেশনের দিনগুলো। তখন তাদের কাছে কেউ ছিল না তারা নিজেরা ব্যতিত। আমি বাইরে থেকে তাদের সার্বিক সহযোগিতা করলেও তাদের কাছে ছিলাম না। যা করতে হয়েছে তা তারাই করেছেন। যখন যা প্রয়োজন ছিল তা বাড়ির সামনে দিয়ে আসা হত। কিন্তু রান্না-বান্নাসহ বাড়ির সকল বিষয় তাদের দেখতে হয়েছে। আগে যেমনটা বলেছিলেম, আমাদের সৌভাগ্য আমাদের সদয় ছিল। ফলে বাড়ির একজন অসুস্থবোধ করলে আরেকজন কাজ সামলে নিয়েছেন। আর সদস্য বেশী হওয়ায় এক্ষেত্রে তেমন কোনো সমস্যা হয়নি। তাদের ধীর মনোবল ও একে অপরের পাশে ছিলেন বলেই আজ তারা সুস্থ।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ