শুক্রবার ০৫ মার্চ, ২০২১

যে কারণে বাদ পড়লেন বিএনপির হাই প্রোফাইল নেতারা

শনিবার, ৯ জানুয়ারি ২০২১, ২২:০৫

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটিতে হাই প্রোফাইল কয়েকজন নেতাকে স্থান দেওয়া হয়নি। এ প্রসঙ্গে কমিটির সদস্যসচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদ বলেছেন, ‘তারা আপাতত নাই। তারা এমনিতেই সিনিয়র এবং নানা কাজে-কর্মে ব্যস্ত থাকেন। যারা নির্বাহী কমিটিতে আছেন তারা নির্বাহী কমিটির কাজে ব্যস্ত থাকেন। আমরা যারা জেলা পর্যায়ে আছি এবং নির্বাহী কমিটিতে নাই। আমাদেরকে অগ্রাধিকার দিয়ে এই কমিটি করা হয়েছে। তার মানে তাদেরকে বাদ দেওয়া হয়েছে এই কথায় আমি একমত নই। পূর্ণাঙ্গ কমিটির সময় তাদের সকলকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। তারা সিনিয়র নেতা এবং তাদের সাথে বুদ্ধি পরামর্শ নিয়েই আমরা কাজ করছি। তাদের সাথে আমরা যোগাযোগ রাখছি এবং তারা আমাদের পেছনে আছেন। কাজেই কাউকে বাদ দিয়ে ছোট করা হয়নি। এটা সময়ের দাবি ৪১ জনের কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

শনিবার (৯ জানুয়ারি) বিকেলে দিনব্যাপী সাংগঠনিক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সামনে তিনি এসব কথা বলেন। নতুন আহ্বায়ক কমিটির প্রথম বৈঠক ছিল এটি। এ সময় কমিটির পরিচয় পর্বও অনুষ্ঠিত হয়।

অধ্যাপক মামুন মাহমুদ আরও বলেন, ‘যে উদ্দেশ্যে এই আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে সেই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে আমরা একটা টিমওয়ার্ক করেছি। কমিটির সকলের মধ্যে আন্তরিকতা রয়েছে। সকলেই সুচিন্তিত মতামত দিয়েছে। সকলের মতামতের ভিত্তিতে যে বিষয়টি বের হয়ে আসছে সেটি হল সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমরা এই সরকারকে মোকবেলা করবো। এবং আমরা টিম হিসেবে আমাদের সাংগঠনিক কাজগুলো করবো। আমাদের মধ্যে কোনো ভেদাভেদ নেই। আমাদরে মধ্যে যিনি এমপি হতে পারেন, নমিনেশন আনতে পারেন তিনি এমপি হবেন। যিনি থানার সভাপতি হওয়ার তিনি থানার সভাপতি হবেন। এভাবে আমরা যোগ্যতার নিরীক্ষে আমাদের পদগুলো বন্টন করে নিব।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই কমিটিতে যারা আছে তাদের মধ্যে কোন কোন্দল নেই এবং সকলেই পরীক্ষিত নেতা। যে লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য নিয়ে কেন্দ্র হতে দায়িক্ব দেওয়া হয়েছে সেই দায়িত্ব এবং লক্ষ্য আমরা অর্জন করতে সম্ভব হব। আমাদের আন্দোলন সংগ্রাম এবং সাংগঠনিক চর্চার প্রতিফলন উভয়ই আপনারা দেখতে পাবেন।’

সদস্যসচিব বলেন, ‘১০টি উপজেলা বা থানা কমিটি, ৫টি পৌর কমিটি রয়েছে। তিন মাসের জন্যে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সেই তিন মাসের মধ্যে কমিটি গঠন করার চেষ্টা করব। আমরা যদি সময় অনুযায়ী তা বাস্তবায়ন করতে না পারি তাহলে কেন্দ্রীয় কমিটির সাথে আলোচনা করে তার ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

নতুন কমিটির আহ্বায়ক অ্যাড. তৈমুর আলম খন্দকারের সভাপতিত্ব ও সদস্যসচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের সঞ্চালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি, মো. নাছির উদ্দিন, আব্দুল হাই রাজু, লুৎফর রহমান, অ্যাডভোকেট মাহফুজুর রহমান হুমায়ুন, জাহিদ হাসান রোজেল ও নজরুল ইসলাম পান্না মোল্লা, সদস্য আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, নজরুল ইসলাম টিটু, মোশারফ হোসেন, রহিমা শরীফ মায়া, রুহুল আমিন, নুরুন্নাহার প্রমুখ।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ