রবিবার ১৮ আগস্ট, ২০১৯

মাদক ব্যবসায়ী কাউন্সিলর দুলাল!

শুক্রবার, ২ আগস্ট ২০১৯, ১৩:০১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের দুইবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল৷ ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তিনি৷ জনপ্রতিনিধি ও ক্ষমতাসীন দলের নেতা এই পরিচয়ের আড়ালে সে এবং তার সহযোগীরা একে অপরের সহায়তায় দীর্ঘ দিন যাবৎ ফেন্সিডিলের ব্যবসা করে আসতেছিল।

শুক্রবার (২ আগস্ট) সকালে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়৷

এর আগে বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শহরের হাজীগঞ্জ-নবীগঞ্জ গুদারাঘাট এলাকা থেকে কাউন্সিলর দুলাল ও তার সহযোগীদের ফেন্সিডিলসহ আটক করা হয়৷

এ ঘটনায় কাউন্সিলর দুলালকে (৩৮) প্রধান আসামি করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে৷ মামলার অন্য আসামিরা হলো, কাউন্সিলার দুলালেল সহযোগী কামাল হাসানের (৪৭), মনির হোসেন মনু (৫০), তানভীর আহম্মেদ সোহেল (৪১), মো. মজিবর রহমান (৫২)।

আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানায় পুলিশ৷

জেলা পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের এসআই আব্দুল জলিল মাতুব্বর, এসআই খোকন চন্দ্র সরকার, এএসআই আমিনুল ইসলাম ও সঙ্গীয় অন্যান্য ফোর্সসহ সদর এলাকায় মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনাকালে নবীগঞ্জ ফেরিঘাটে অবস্থান করছিল৷ এমন সময় গোপন সূত্রে সংবাদ পায় যে, চাষাঢ়া হতে একটি সাদা রঙের মিনি হাইয়েস গাড়িতে (ঢাকা মেট্রো-চ:৫৩-৯৪৮৭) কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী মাদক নিয়ে নবীগঞ্জ ঘাটের দিকে যাচ্ছে। উক্ত সংবাদের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য ডিবির টিম রাত পৌনে ১০টায় উক্ত মিনি হাইয়েস গাড়িটি নবীগঞ্জ ফেরি ঘাটে পৌছানোর পর যাত্রী ছাউনির সামনে পাকা রাস্তার উপর থামানো হয়।

উক্ত যাত্রী ছাউনিতে ও আশপাশে থাকা উপস্থিত সাক্ষীদের উপস্থিতিতে উক্ত গাড়িসহ গাড়ির ভেতরে থাকা যাত্রীদের তল্লাশীকালে আসামি সাইফুদ্দীন আহম্মেদ দুলাল প্রধানের দেহতল্লাশী করে তার প্যান্টের সামনের ডান পকেটে ২ বোতল, অপর আসামি কামাল হাসানের (৪৭) প্যান্টের সামনের ডান পকেটে ২ বোতল ফেন্সিডিল পাওয়া যায়৷

আটককৃত গাড়ি তল্লাশী করে গাড়ির মাঝখানের সিটের নিচে একটি শপিং ব্যাগের মধ্যে ২০ বোতল, গাড়ির পেছনের সিটের নিচে অপর আরেকটি শপিং ব্যাগের মধ্যে ২০ বোতল এবং ড্রাইভারের সিটের পেছনের পকেটে রাখা আরো ৬ বোতল অবৈধ মাদক দ্রব্য ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়৷ মোট ৫০টি ফেন্সিডিলের বোতল জব্দ করা হয়

এছাড়া ধৃত আসামী দুলাল প্রধানের শার্টের বুক পকেট থেকে ফেন্সিডিল বিক্রির নগদ ৩২ হাজার টাকাও জব্দ করা হয় বলে জানায় পুলিশ৷

জেলা পুলিশ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানায়, উক্ত আসামিদের জিজ্ঞাবাদে মূল আসামি দুলাল প্রধান স্বীকার করে যে, তিনি একজন কাউন্সিলর এবং মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক উক্ত পরিচয়ের আড়ালে সে এবং তার সহযোগীরা একে অপরের সহায়তায় ফেন্সিডিলের ব্যবসা করে আসতেছিল।

এ বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেন, মাদকের সাথে কোন আপোস নাই। অপরাধী যেই হোক না কেন, অপরাধ করলে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

প্রসঙ্গত, কাউন্সিলার দুলালের বিরুদ্ধে সম্প্রতি জমি দখলের অভিযোগ উঠেছিল। এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনও করেন ভুক্তভোগীরা। এছাড়া গত বছর ডিবির একটি টিম দুলাল প্রধানের বাড়ির সামনে থেকে ১৩ জন মাদক বিক্রেতাকে গ্রেপ্তার করেছিল।

কাউন্সিলর দুলাল নিজে মাদক ব্যবসার সাথে যুক্ত থাকলেও বিভিন্ন সভায় মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন তিনি৷ গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বন্দরের ইস্পাহানি বাজার এলাকায় মাদক বিরোধী সভা হয়। সভায় কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। ঘোষনার পরের দিনই ওই এলাকা হতে রিজিয়া নামে এক নারীকে ফেন্সিডিলসহ আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন তিনি৷ এবার নিজেই ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার হয়েছেন দুলাল৷ 

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ