সোমবার ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮

মহিলা কলেজের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ (ভিডিওসহ)

বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৬

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। এদিকে কলেজের শিক্ষার্থীরা কলেজের পক্ষে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে। অপরদিকে জমির মালিক জায়নাল আবেদীন অভিযোগ করেন, অধ্যক্ষ কলেজের সামনের ৫ শতাংশ জায়গা দখল ও শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত ও বাধ্য করে স্বেচ্ছাচারীতা করছেন।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের প্রশাসনিক ভবনের পাশে আল জয়নাল ট্রেড সেন্টাররের মালিক ও জাতীয় পার্টির নেতা মো. জয়নাল আবেদীনের ব্যক্তিগত ৫ শতাংশ জমি রয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত জমিটি পরে থাকলেও সম্প্রতি সেখানে একটি কিন্ডারগার্টেন করার উদ্যোগ নেন তিনি। কিন্তু এতে কলেজটির অধ্যক্ষ বাধা দেন। তাই মো. জয়নাল আবেদীন অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন।

বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সকালে কলেজের কিছু সংখ্যক শিক্ষার্থী মিলে জমির উপরের স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলে এবং পরবর্তীতে তাতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। পরে বেলা ১২টায় কলেজের দেড় হাজার শিক্ষার্থী স্মারকলিপি নিয়ে বিশাল র‍্যালি করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের যায়। তাদের সঙ্গে কলেজের ৪জন শিক্ষক ও রোবার স্কাউটের সদস্যরা তাদের ইউনিফর্মে উপস্থিত ছিলো। এ ছাড়া তাদের সঙ্গে ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের ছাত্র সংসদের কয়েক সদস্য।

আরেকটি সূত্রে জানা যায়, বুধবার কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা চলছিলো। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী জানান, পরীক্ষা শেষে সকল শিক্ষার্থীদের কলেজ গেটে আটকে দেয়া হয়। তখন তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়, কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা ও কলেজের কিছু সমস্যা সম্পর্কিত একটি স্মারকলিপি জমা দেবার জন্য র‍্যালি করে জেলা প্রশাসকের কাছে যেতে হবে। এ সময় কিছু সংখ্যক শিক্ষার্থী যেতে অসম্মতি জানালে তাদের যেতে বাধ্য করা হয়।

কলেজের একটি সূত্র জানায়, সকালে যে শিক্ষার্থীরা জয়নাল আবেদীনের জমিতে দেওয়া বেড়া ভেঙ্গেছে তারা কলেজের রোবার স্কাউটের সদস্য। তারা মূলত কলেজ কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই বেড়া ভেঙ্গেছে। কলেজ সূত্রের এ কথার সত্যতা পাওয়া যায় শিক্ষার্থীদের বেড়া ভাঙ্গাকালীন একটি ভিডিওতে। ভিডিওটিতে দেখা যায়, যে শিক্ষার্থীরা বেড়া ভাঙ্গছে তারা রোবার স্কাউটের পোশাক পড়া।

আল জয়নাল ট্রেড সেন্টারের প্লাজার মালিক ও জাতীয় পার্টির নেতা মো. জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ‘জায়গাটি আমি ক্রয় করেছি। এখানে আমি একটি প্রতিষ্ঠান করতে চাই কিন্তু কলেজের অধ্যক্ষ আমাকে তা করতে দিচ্ছেন না। উল্টো জমি দখল করতে চাচ্ছেন। উনার সঙ্গে একাধিকবার আলোচনায় গেলে তিনি বলেন, জায়গাটি কলেজের নামে করে দিতে। তাহলে আমার নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা হবে। কিন্তু আমি জমি দিতে অস্বীকার করি।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘কলেজের শিক্ষার্থীদের দিয়ে উনি সেচ্ছাচারীতা করছেন। শিক্ষার্থীদের অপব্যবহার করছেন। ’

তবে এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ বেদৌড়া বিনতে হাবিবের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ