বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯

ভয় দেখিয়ে ১২ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে সেই মাদ্রাসা শিক্ষক

শনিবার, ৬ জুলাই ২০১৯, ১৭:০৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ১২ ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ফতুল্লার মাহমুদপুর এলাকার বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা আল আমিনকে গ্রেফতারের পর র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর কিছু তথ্য। প্রথমে কোন এক ছাত্রীকে টার্গেট করতো আল আমিন। তারপর পানি আনানো, মাদ্রাসা ঝাড়ু দেওয়ানোসহ নানা ছুতোয় কিংবা ভয়ভীতি দেখিয়ে টার্গেট করা ওই ছাত্রীকে মাদ্রাসা ছুটির পরও আটকে রাখতো সে। পরে ফাঁকা মাদ্রাসায় তাকে ধর্ষণ করতো। এছাড়া ছাত্রীদের পর্নোগ্রাফি ভিডিও চিত্র দেখিয়ে এবং তাদের ছবি যুক্ত করে পর্নোগ্রাফি বানিয়ে ব্ল্যাকমেইল করতো আল আমিন। এভাবেই ২০১৮ সাল থেকে ১২ জন ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতন করে সে।

গত বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) এক ছাত্রীর অভিভাবকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠানটিতে অভিযান চালায় র‌্যাব। পরে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক আল আমিনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

জানা যায়, কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার ভুইয়াপাড়ার মৃত আব্দুল জলিল রেনু মিয়ার ছেলে আল-আমিন। প্রায় আট বছর আগে সে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি কান্দাপাড়া এলাকায় আসে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি কওমি মাদ্রাসা থেকে দাওরায়ে হাদিস পাস করে আল-আমিন ফতুল্লা থানা সংলগ্ন মাহমুদপুর পাকা রাস্তার মাথায় এক মসজিদে ইমামতি শুরু করে। ২০১৫ সালের দিকে সে বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসা গড়ে তোলে। ওই মাদ্রাসা চালু হলে ধীরে ধীরে তার আর্থিক অবস্থায় পরিবর্তন আসে। বর্তমানে ওই মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৮০ জন।

র‌্যাব-১১ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আল-আমিন মাদ্রাসার ১২ ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের কথা স্বীকার করেছে। একই সঙ্গে সে শিশু শিক্ষার্থীদের পর্নোগ্রাফি ভিডিও চিত্র দেখিয়ে এবং তাদের ছবি যুক্ত করে পর্নোগ্রাফি বানিয়ে ব্ল্যাকমেইল করতো বলেও জানিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘ধর্ষণ-যৌন নির্যাতনের শিকার হওয়া ১২ জন ছাত্রীর খোঁজ পেয়েছি আমরা। ওই ছাত্রীরা আল-আমিনের হাতে নির্যাতিত হওয়ার বর্ণনাও দিয়েছে।’

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরও জানান, ওই শিক্ষকের মুঠোফোন ও কম্পিউটারে তল্লাশি চালিয়ে একাধিক ছাত্রীর এডিট করা ছবি ও পর্নোগ্রাফি ভিডিও পাওয়া গেছে। সেগুলো জব্দ করে মামলার আলামত হিসেবে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ