শনিবার ৩০ মে, ২০২০

ভয়াবহ সংকটে পড়তে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জের পোশাক খাত

শুক্রবার, ২০ মার্চ ২০২০, ১৯:৫৮

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: করোনা পরিস্থিতিতে বাতিল কিংবা স্থগিত হচ্ছে নারায়ণগঞ্জের শতাধিক গার্মেন্টের রফতানি আদেশ। এতে করে হুমকির মুখে পড়তে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জের তৈরি পোশাক খাত। গার্মেন্ট মালিকরা নতুন রফতানি আদেশ না পাওয়াতে বন্ধ হয়ে যেতে পারে অনেক গার্মেন্ট। পোশাক শ্রমিকদের বেতন দেয়া নিয়েও তৈরি হবে বড় ধরনের সঙ্কট। এদিকে সামনে রোজার ঈদ। সব মিলিয়ে সামনে অপেক্ষা করছে ভয়াবহ সঙ্কট।

এ প্রসঙ্গে বিকেএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, আমার পোল্যান্ডের এক ক্রেতা প্রতিষ্ঠান দু’দফার রফতানি আদেশ বাতিল করেছে। এর মধ্যে একটি আদেশ ছিল ২ লাখ ২০ হাজার ডলারের। আরেকটি আদেশ ছিল ২ লাখ ডলারের। তিনি জানান, করোনার কারণে এখন প্রতিদিন, প্রতি ঘণ্টায় রফতানি আদেশ বাতিল বা স্থগিতের মেইল পাচ্ছেন গার্মেন্ট মালিকরা। এ অবস্থায় সরকার যদি আমাদের পাশে না দাঁড়ায় তাহলে আমরা মারা পড়বো।

জানা যায়, গত ১৭ মার্চ নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ভুলতায় অবস্থিত ‘এ ওয়ান পোলার’ নামে একটি কারখানার ১৫ মিলিয়ন ডলারের রফতানি আদেশ বাতিলের কথা জানায় হল্যান্ডের ক্রেতা প্রতিষ্ঠান সিঅ্যান্ডএ। ই-মেইলের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির মালিককে জানানো হয় রফতানি আদেশ বাতিলের বিষয়টি।

বিকেএমইএ’র পরিচালক মাদার কালার লিমিটেডের সত্বাধিকারী এম মনসুর আহমেদ বলেন, ‘চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য ফেরত যাচ্ছে। ইউরোপ থেকে ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো অর্ডার বন্ধ রেখেছে। ইতালি, জার্মানি তো প্রচুর পণ্য নেয়। এখন ইতালির যে অবস্থা সেখানের ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো তো ফোনই ধরে না। করোনা মোকাবেলা করতে না পারলে গার্মেন্ট শিল্প ভয়াবহ হুমকির মুখে পড়বে, গার্মেন্ট টিকবে না।

করোনা মোকাবেলায় সরকারকে অনতিবিলম্বে টাস্কফোর্স গঠনের পরামর্শ দিয়ে মনসুর আহমেদ বলেন, ‘বিকেএমইএ, বিজেএমইএ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সাধারণ মানুষকে একত্রে নিয়ে সরকার এখনও কেন কোন পরিকল্পনা করছেন না? ইমিডিয়েটলি একটা টাস্কফোর্স গঠন করা দরকার। করোনা তো একার না, এটা মহামারি আকার ধারণ করেছে।’

বিকেএমইএ’র সচিব সুলভ চৌধুরী জানান, ‘এ পর্যন্ত ১২০ জনের মতো কারখানা মালিক জানিয়েছেন তাদের অনেক অর্ডার বাতিল করা হয়েছে। কারও অর্ডার স্থগিত করে রেখেছেন ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। বিকেএমইএ’র তো অনেক সদস্য। আমরা সকলের সাথেই কথা বলছি।’

তিনি আরও বলেন, গার্মেন্ট খাতের জন্য বিরাট হুমকি। সামনে ঈদ। শ্রমিকদের বেতনের বিষয়টিও আরেক চ্যালেঞ্জ। এই মুহুর্তে মেইনটেন সাপোর্ট জরুরিভাবে প্রয়োজন।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ