মঙ্গলবার ২৬ মে, ২০২০

ভবন মালিকের গাফিলতিতে ঝরলো তিন তাজা প্রাণ, হচ্ছে মামলা

শুক্রবার, ৮ মে ২০২০, ২০:১৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের বন্দরে বহুতল ভবনের সেপটিক ট্যাংক বিস্ফোরণে অন্তঃসত্ত্বা নারী ও দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হচ্ছে। বাড়িওয়ালার গাফিলতি ও অবহেলার কারনেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর অভিযোগ।

এ বিষয়ে বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, বিস্ফোরণের ঘটনায় বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা এই দুর্ঘটনার জন্য বাড়িওয়ালাকে দায়ি করছেন। তার অবহেলা ও গাফিলতির কারনেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পরিবারগুলোর।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (৮ মে) সকাল ৬টার দিকে বন্দরের উইলসন রোডের দীঘিরপাড় মোল্লাবাড়ির রফিকুল ইসলামের মালিকানাধীন রাবেয়া মঞ্জিম নামে পাঁচতলা ভবনের নিচতলায় বিকট শব্দে বিস্ফোরণ হয়। ওই ঘরে ঘুমোচ্ছিল ভবনটির নিচতলার ভাড়াটিয়া খোরশেদ আলমের দুই ছেলে মাসনুন (১২) ও জিসান (৮)। বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই মারা যায় দুই ভাই। এদিকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান পাশের বাড়ির হুমায়ূন কবিরের ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী লাবনী আক্তার (৩০)। বিস্ফোরণে পাশের একটি ৪ তলা বাড়ি ও একটি টিনশেড বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। আহত হন আরও ৫ জন। তারা হলেন, নিহত নারীর মেয়ে নাবিলা, তামান্না, শহীদ, রেকমত শেখ, রুবেল।

ঘটনার পরপরই পালিয়ে যান বাড়িওয়ালা রফিকুল ইসলাম। বিস্ফোরণের ঘটনায় বাড়িওয়ালাকে দায়ী করে তাৎক্ষনিক বিক্ষোভ করে ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজন ও এলাকাবাসী। পরে পুলিশ তাদের নিভৃত করে।

বন্দর ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার জিন্নাত আলী খান জানান, বাড়িটির নির্মাণ কাজে ত্রুটি ও ভবন মালিকের ত্রুটি থাকার কারণে এই বিস্ফোরণ হয়ে থাকতে পারে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুক্লা সরকার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (‘খ’ সার্কেল) খোরশেদ আলম।

মুঠোফোনে খোরশেদ আলম বলেন, ভবন মালিকের গাফিলতির কারনেই এ ঘটনা ঘটেছে বলে ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজনের অভিযোগ। তারা নিয়মিত সেপটিক ট্যাংক পরিষ্কার করলে এ দুর্ঘটনা এড়ানো যেতো। এ ঘটনায় থানায় মামলা হচ্ছে।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ