বৃহস্পতিবার ০৯ এপ্রিল, ২০২০

বেগম জিয়াকে স্বাধীন দেখতে চায় মানুষ: মামুন মাহমুদ

বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০, ২০:১৫

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ বলেছেন, ‘২৫ মার্চ বিকেলে বেগম খালেদা জিয়া দীর্ঘ ২৫ মাস ১৭ দিনের মাথায় সরকারের নির্বাহী আদেশে পিজি হাসপাতালের প্রিজন সেল থেকে মুক্তি পান। আমরা কিছুটা হলেও যেন স্বস্তির নিশ্বাস ফেলতে পারলাম। হঠাৎ মুক্তির কারণ বুঝতে না পারলেও, যে বিষয়টি বলতে পারি দীর্ঘদিন পর হলেও যেন সরকারের বোধোদয় হয়েছে। আমরা সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই। বেগম জিয়ার মুক্তি অবশ্যই গণতন্ত্রের পথে উত্তরায়ণে একধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।’

বুধবার (২৫ মার্চ) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, যে দুটি মামলায় তাকে সাজা দেয়া হয়েছিল সে মামলার ব্যাপারে বেগম জিয়ার আইনজীবীরা বরাবর বলে আসছিলেন যে, মামলায় সাজা হওয়ার মত কোনো উপাদান নেই। তারপরও সাজা দেয়া হয়েছিল। সাজা দেয়ার পরে আইনজীবীরা বলেছিলেন, জামিনযোগ্য মামলা এবং জামিনযোগ্য শাস্তি, তারপরেও তাকে আদালত জামিন দিতে অপারগ ছিলেন। এই বিষয়টিকে আইনজীবীরা ব্যাখ্যা করছিলেন আদালতের উপর সরকারের হস্তক্ষেপ হিসেবে। আইনজীবীদের এই বক্তব্যটি প্রমাণিত হয়ে শেষ পর্যন্ত সরকারের নির্দেশেই বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পেলেন।

মামুন মাহমুদ বলেন, আদালত থেকে জামিন পেলে তিনি হয়ত বেশকিছুর স্বাধীনতা ভোগ করতে পারতেন, যা এখন সরকারের নির্বাহী নির্দেশে হওয়ায় তার স্বাধীনতা অনেকাংশে রহিত থাকবে। যেমন, তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না, নিজের পছন্দের বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পারবেন না এবং কোনো রাজনৈতিক সভা, সমাবেশ কিংবা কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। যা পুরোপুরি তাকে মুক্ত মানুষ বলে স্বীকৃতি দেয় না। আপাতত তার মুক্তিতে বাংলার ১৭ কোটি মানুষের মনে স্বস্তি ফিরে আসলেও জনগণ তাকে মুক্ত, স্বাধীন হিসেবে দেখতে চায়। দেশের গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, মানুষের অধিকার আদায়ে জনগণ বেগম খালেদা জিয়াকে তাদের পাশে দেখতে চায় কারণ যখনই গণতন্ত্র হারিয়েছে সঠিক পথ তখনি বেগম জিয়ার আপোষহীন লড়াই জনগণকে মুক্তির পথ দেখিয়েছে এবং বার বার বেগম জিয়ার হাত ধরেই গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠা হয়েছে। গণতন্ত্রের বিজয় অবশ্যম্ভাবী।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ