বৃহস্পতিবার ০৪ জুন, ২০২০

বিনা কারণে সাহস দেখিয়ে বাইরে বের হবেন না: শামীম ওসমান

বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল ২০২০, ১৯:০৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: করোনা সংক্রমন রোধে সাধারণ ছুটির দিনগুলোতে বাড়িতে থাকার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে বের হলে কঠোর ব্যবস্থারও হুশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। সরকারের এই নির্দেশ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, ‘সরকারের নির্দেশনা মানতে হবে এটা কোন অনুরোধ না। মানতে হবে এন্ড দ্যাট ইজ ফাইনাল। সেখানে কোন খাতির হবে না। এটা আমাদের নারায়ণগঞ্জ। আমাদের নারায়ণগঞ্জে আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করবো। সেখানে কে কোন সাংবাদিক, কে কোন দল করে, পার্টি করে সেটি বিষয় না।’

বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) বিকেলে শহরের চাষাঢ়ায় রাইফেল ক্লাবে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

জনসাধারণকে বিনা কারণে বাইরে বের না হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই সাংসদ বলেন, ‘নিজে সাহসী প্রমাণ করতে চাইলে ঘরে বসে থাকেন। রাস্তায় ঘোরাটা বাহাদুরি না। আপনি সচেতন না হয়ে বিনা কারণে সাহস দেখিয়ে মানুষের মৃত্যুর কারণ হবেন না। এই মৃত্যু আমাদের কাম্য না। সব ধর্মেই সচেতনতার কথা বলা হয়েছে। আমাদের এটা মেনে চলা উচিত। আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী এটা মেনে চলবো। প্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাব সেনাবাহিনী যদি রাস্তার মানুষ সরাতে ব্যস্ত রাখি তাহলে অন্য কাজ তারা কীভাবে করবে।’

তিনি বলেন, সবাই সবার প্রতি সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেই। সেই জায়গাটির প্রতি লক্ষ্য রেখে কেউ যাতে গুজব না ছড়াই। এই গুনাহটা কেউ কইরেন না। এটা একটা পাপের কাজ। গুজবের কারণে অনেকের প্যানিক অ্যাটাকের সৃষ্টি হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক।

নারায়ণগঞ্জে ক্লিনিক বন্ধ রাখা প্রসেঙ্গ সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিভিল সার্জন বলেন, মাননীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রীর সাথে প্রাইভেট ক্লিনিক মালিকদের বৈঠক হবে শনিবার। সেই মিটিংয়ের পর সব কিছু স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে আশা করছি।

এ প্রসঙ্গে সাংসদ শামীম ওসমান বলেন, ঐটা তো কেন্দ্রীয়ভাবে হবে। আপনি (সিভিল সার্জন) স্থানীয়ভাবে আজকেই জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলেন। আমরা নারায়ণগঞ্জবাসীর থেকে ক্লিনিকগুলো কোটি কোটি টাকা উপার্জন করে। কিন্তু বিপদের সময় পাবো না, এটা হতে পারে না। প্রয়োজনে আমাকে জানান। আমি নিজে তাদের সাথে কথা বলবো।

জেলা প্রশাসকের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনারা সাংবাদিকদের নিয়ে, সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব এবং যারা সরকারি নির্দেশনায় নির্দিষ্টভাবে দায়িত্বে আছেন এই কাজগুলো করার জন্য আমরা একসাথে বসতে পারি। আমরা সবাই মিলে একসাথে উদ্যোগ নিতে পারি। যখন সবাই মিলে সাংবাদিক, প্রশাসন, সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব ও রাজনীতিবিদ আমরা সবাই মিলে যখন একসাথে উদ্যোগ নিবো তখন আশা করি সেটাকে চ্যালেঞ্জ করার মত ক্ষমতা কেউ রাখে না, কেউ পারবেও না। কারণ আমরা যা করছি তা মানুষকে বাঁচানোর স্বার্থে। আমি জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে তৎক্ষণাৎ এটি করার চেষ্টা করবো। যেহেতু আমরা জয়েন্ট টিম। একটি নির্দিষ্ট রেখায় সেলফ কোয়ারেন্টিন রেখে যেনো আমরা বসতে পারি। তাহলে আমার মনে হয় প্রাতিষ্ঠানিকভাবেই আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি।’

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ