বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

বার নির্বাচন: প্রচারণায় সরগরম আদালতপাড়া

বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ১৮:৫৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: জমে উঠেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যকরী পরিষদের নির্বাচন। প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণায় সরগরম পুরো আদালতপাড়া। নির্বাচনের আর মাত্র ৭ দিন বাকি, প্রচারণার বাকি ৬ দিন। তাই প্রচারণায় ব্যস্ত দুই প্যানেলের ৩৪ প্রার্থী আর স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী। প্রার্থীদের পাশাপাশি তাদের পক্ষে প্রচারণায় নেমেছেন সাবেক আইনজীবী নেতারাও।

ভোটারদের হাতে হাতে লিফলেট, কার্ড বিতরণ, ম্যাসেজ, ফোন কলসহ বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্যানেল ও নিজের জন্য ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা। একই সঙ্গে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে ভোটের মাঠে ব্যবহার করছেন সব রকম কলাকৌশল। ভোটারদের দিচ্ছেন বিভিন্ন আশ্বাস।

বুধবার (২২ জানুয়ারি) নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় দেখা যায়, আইনজীবীদের উপস্থিতিতে সরগরম আদালতপাড়া। শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত চারপাশ। চলছে কুশল বিনিময়। আইনজীবীদের টেবিলে টেবিলে নির্বাচনী প্রচারণা সম্বলিত কার্ড, প্যানেলের লিফলেটের স্তুপ। প্রার্থীদের সমর্থকরা আদালতের সামনে দাঁড়িয়ে হাতে হাতে বিলি করছেন প্রচারপত্র। আদালতপাড়া জুড়ে চলছে গণসংযোগ।

নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে একদিকে প্রচারণা চালাচ্ছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ। অন্যদিকে বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ। এতদিন প্রার্থী ও প্যানেল প্রচারণা চালালেও এবার প্রার্থীদের পাশাপাশি প্রচারণায় নেমেছেন দুই দলেরই সাবেক আইনজীবী নেতারা।

নির্বাচনী প্রচারণায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত মুহাম্মদ মোহসীন মিয়া ও মাহবুবুর রহমানকে নিয়ে প্যানেলের প্রার্থী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সদস্য সচিব ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পিপি ওয়াজেদ আলী খোকন, সিনিয়র আইনজীবী আব্দুর রশিদ, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল ইসলাম ভূঁইয়া, এড. মাসুদুর রউফ, এপিপি এড. জাসমিন আহমেদ, সুইটি ইয়াসমিনসহ অন্যন্য আইনজীবীরা। এ সময় তারা ডিজিটাল বার ভবন সম্পূর্ণ করার আশ্বাস দেন। একই সঙ্গে তাদের সমর্থনে থাকা নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য ও মন্ত্রীর কথা উল্লেখ করেন। তারা বলেন, ‘মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, সাংসদ শামীম ওসমান, সেলিম ওসমান, নজরুল ইসলাম বাবু এবং লিয়াকত হোসেন খোকা আমাদের সঙ্গে আছেন। সেলিম ওসমান ডিজিটাল বার ভবনের জন্য অনেক টাকা দিয়েছেন। এই প্যানেল সাংসদ সেলিম ওসমান ও শামীম ওসমানের আশীর্বাদপুষ্ট। আমরা নির্বাচিত হলে বার ভবনের কাজ সম্পূর্ণ ও ডিজিটাল বার ভবন উপহার দেবো।’

অন্যদিকে বিএনপি সমর্থিত হুমায়ূন-জাকির প্যানেলের পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছেন মহানগর বিএনপির সহসভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী পরিষদের সিনিয়র নেতা এড. আব্দুল হামিদ খান ভাষানী, এড. খোরশেদ মোল্লা, এড. মশিউর রহমান শাহীনসহ আইনজীবীরা। এ সময় এই প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী এড. সরকার হুমায়ূন কবির ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী এড. আবুল কালাম আজাদ জাকিরসহ অন্যান্য প্রার্থীরাও উপস্থিত ছিলেন। শুরু থেকে নির্বাচন কমিশনের প্রত্যাহার দাবি করা বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীরা নির্বাচনে অংশ নিলেও সে দাবি অব্যাহত রেখেছেন। বিএনপি নেতারা বলেন, ‘আওয়ামীলীগপন্থী প্যানেলের আইনজীবীরা চাচ্ছেন আমরা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াই এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে যাক। কিন্তু আমরা তা হতে দেবো না। আমরা সব সময় আন্দোলন সংগ্রামে আছি, থাকবো। এই নির্বাচন আমাদের আন্দোলনের একটি অংশ।’

অন্যদিকে চারবারের নির্বাচিত সভাপতি ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা এড. আনিসুর রহমান দিপুর নেতৃত্বে দিপু-পলু প্যানেলের বাকিরা প্রার্থীতা প্রত্যাহার করলেও এখনো নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন এই প্যানেলের সমাজসেবা সম্পাদক পদপ্রার্থী এড. রোমেল মোল্লা এবং আপ্যায়ন সম্পাদক পদে প্রার্থী এড. মামুন সিরাজুল মজিদ। একইভাবে তারাও প্রাচরণা চালাচ্ছেন এবং ভোটাদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন।’

প্রসঙ্গত, আগামী ২৯ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতি পরিচালনা পরিষদ নির্বাচন। ১৬ জানুয়ারি প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই এবং ১৯ জানুয়ারি ছিল মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। ২০ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশন তিন প্যানেলের ৩৬ প্রার্থীর বৈধ তালিকা প্রকাশ করে। এই নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এড. আখতার হোসেন। অন্য কমিশনাররা হলেন- সিনিয়র আইনজীবী এড. আশরাফ হোসেন, এড. মেরিনা বেগম, এড. আব্দুর রহিম, এড. শুকচাঁদ সরকার।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ