বুধবার ২৩ অক্টোবর, ২০১৯

বাজেট নিয়ে না.গঞ্জবাসীর ভাবনা 

শুক্রবার, ৮ জুন ২০১৮, ২১:৩৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

মাহমুদুন নবী (প্রেস নারায়ণগঞ্জ): ৭ দশমিক ৮ মাত্রার প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৫৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। যা ২০১৭-১৮ অর্থবছরের মূল বাজেটের তুলনায় ৬৪ হাজার ৩০৭ কোটি টাকা বেশি। আর ২০১৭-১৮ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের তুলনায় এর বেড়েছে ৯৩ হাজার ৭৮ কোটি টাকা। আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের এটিই শেষ বাজেট ।

সাধারণ মানুষের অধিকাংশই বোঝেন না বাজেট কী বা এটা কী কাজে আসে। কিন্তু বোঝেন দ্রব্যমূল্য কিংবা তাদের জীবনযাত্রার অনেকটা অংশ নিয়ন্ত্রণ করে এই বাজেট। তাই কোন পণ্যের দাম বাড়লো আর কোনটার দাম কমলো শুধু এটুকু জানতেই অনেকেই শুক্রবার (৮জুন) দিনের অধিকাংশ সময় চোখ রেখেছেন টিভি পর্দায়। কিংবা বিভিন্ন অনলাইন পত্র-পত্রিকায়। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে আলাপচারিতার মধ্যেই ফুঁটে উঠেছে তাঁদের সেই সকল উদ্বেগ ও স্বস্তির কথা। আর শহর ঘুরে বাজেট নিয়ে সেই সকল শ্রেণি পেশার মানুষের নানা প্রতিক্রিয়া জানা গেল।

ঈদের মার্কেটিংয়ে আসা ক্রেতা

ঈদের মার্কেটিংয়ের উদ্দেশ্যে আসা বেসরকারি ক্লিনিকের ম্যানেজার আলিফ হোসেন বাজেট প্রসঙ্গে বলেন, আমাদের দেশ ইতমধ্যে অনুন্নত দেশের তালিকা থেকে উন্নয়ণশীল দেশের তালিকায় নাম লিখিয়েছে। এমন একটি স্বীকৃতির পর এটাই প্রথম বাজেট অধিবেশন। যা দেশের সম্পূর্ণ অর্থনৈতিক চাকা নিয়ন্ত্রণ করে। তাই এবারের বাজেট গত অর্থবছরের বাজেটের চাইতে ৬৪ হাজার কোটি টাকা বেশী হলেও সেই স্বীকৃতির তুলনায় তা অনেকটাই কম। 

পোশাক ব্যাবসায়ী

বাজেট ভাবনা নিয়ে হক প্লাজার পোশাক বিক্রেতা মাসুদ প্রেস নারায়ণগঞ্জকে জানান, বাজেটে আর তেমন কী হবে? যা কিছুর দাম বাড়ার বাড়বে, যা কমার কমবে। খেয়ে পড়ে চলতে পারাটা আল্লাহ্ তা’আলার হাতে। তিনি নিশ্চই কারো প্রতি অবিচার করবেন না। এতো কিছুর পরেও বাজেটের প্রতি দিনব্যাপি মনযোগ ছিলো ব্যবসার স্বার্থেই। আমাদের অনেক পণ্যই বাইরে থেকে ইমপোর্ট করা হয় সেগুলোর উপর নতুন কোনো কর আসলো কীনা তা জনতেই একটু খোঁজখবর রেখেছি। 

শিক্ষক

একটি কিন্ডারগার্ডেনে শিক্ষকতা করেন বলে পরিচয় দিয়ে কামরুল হাসান নামে এক পথচারী জানান, এটা সরকারের নির্বাচনী বাজেট। এখানে জনগণের কথা বিবেচনা করে এক পয়সাও রাখা হয়নি। অন্য কখনও জনগণের জন্যে রাখা হয় তেমনটা নয়। তবে এটা নির্বাচনী বছর তাই নিঃসন্দেহে বলা যায় এটা নির্বাচনী বাজেট।

রিক্সাচালক

বাজেট সম্পর্কে কিছু জানেন কীনা এমন প্রশ্নের জবাবে শহরে রিক্সাচালক শাহীন আলম জানান, বাজেট কী সেইটাই বুঝি না; জাইনাই বা করমু কী। জিনিপত্রের দাম যা বাড়ার তাতো রোজার আগে থেকেই বেড়ে গেছে। নতুন কইরা কী বাড়বে।

ভ্রাম্যমাণ হকার

বিবি রোডের ভ্রাম্যমাণ হকার ইয়াছিন বাজেট নিয়ে তার মতামত প্রকাশকালে বলেন, জিনিসপত্রের দাম তো ইচ্ছা হইলেই বাড়াইয়া দেয় এটা আর নতুন কী। কিন্তু আমাগো যে পেটে ভাত নাই সেদিকে তো কারও নজর পড়ে না। একটা টুকরী মাথায় নিয়া ব্রাশ, দাঁত খিলান আর ছোট ছোট এমিটিশনের জিনিস বিক্রি করি তাও করতে দেয় না। সেদিন এক পুলিশ আইসা লাথি মাইরা ফালাইয়া দিছে। ভালো কাজ কইরা খাওনের কোনো উপায়ই তো রাখলো না

উল্লেখ্য, শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদ ভবনে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য এই বাজেট অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এরপর মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাওয়া প্রস্তাবিত বাজেটে সম্মতিসূচক স্বাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

এবারের বাজেটে মোট রাজস্ব প্রাপ্তি ও বৈদেশিক অনুদান ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক রাজস্ব প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা ২ লাখ ৯৬ হাজার ২০১ কোটি টাকা। এনবিআর বহির্ভূত কর ৯ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা। কর ব্যতিত রাজস্ব প্রাপ্তি ৩৩ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা। বৈদেশিক অনুদান ৪ হাজার ৫১ কোটি টাকা। এডিপি ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা ও ঘাটতি ১ লাখ ২১ হাজার ২৪২ কোটি টাকা। এদিকে নিট ঋণ ধরা হয়েছে ৫০ হাজার ১৬ কোটি টাকা এবং অভ্যন্তরীণ ঋণ ৭১ হাজার ২২৬ কোটি টাকা।

বাজেটে কৃষি জমির রেজিষ্ট্রেশন ফি, রড, সিমেন্ট, হাইব্রিড মোটরকার, ক্যানসারের ওষুধ, টায়ার-টিউব তৈরির কাঁচামাল, কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ, গুঁড়ো দুধ ও পাউরুটিসহ কিছু পণ্যের দাম কমেছে। দাম বেড়েছে এনার্জি ড্রিংক, প্রসাধন সামগ্রী, সানস্ক্রিন সানগ্লাস, আফটার শেভ লোশন, সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুল আরও অনেক কিছুর।

সব খবর
অর্থনীতি বিভাগের সর্বশেষ