সোমবার ২৭ মে, ২০১৯

বাজারে এসেছে সোনারগাঁয়ের লিচু

বুধবার, ১৫ মে ২০১৯, ২০:৫৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলা এই ফলের কারণে বিখ্যাত হলেও সোনারগাঁয়ের আগাম জাতের লিচুর বেশ নাম রয়েছে। ইতিমধ্যে বাজারে আসতে শুরু করেছে এই লিচু। দেশের বিভিন্ন জেলার পাইকাররা এখান থেকে লিচু নিয়ে যাচ্ছেন ঢাকার বাদামতলীসহ বিভিন্ন বাজারে।

সরেজমিনে দেখা যায়, সোনারগাঁয়ের লিচু বাগানের গাছ ভর্তি লাল টকটকে লিচু। বাগানের সৌন্দর্য দেখতে পর্যটকদের ভিড় জমছে। শিলা বৃষ্টি ও বৈরি আবহাওয়ার কারণে এবারের লিচু উৎপাদন অন্যান্য বারের তুলনায় তেমন ভালো হয়নি। গরম আবহাওয়া ও প্রচন্ড রোদের কারণে লিচু ভালো ফলেনি বলে জানান বাগান মালিকরা।

তারা জানান, স্বাদে ভালো হওয়ায় সোনারগাঁয়ের লিচুর আলাদা চাহিদা রয়েছে। সোনারগাঁয়ে তিন জাতের লিচু উৎপাদন হয়। চায়না থ্রি, কদমি ও পাতি লিচু।

চাষি শুক্কুর আলী জানান, এ বছর একাধিকবার শিলা বৃষ্টি এবং বৈরী আবহাওয়ার কারণে লিচু উৎপাদন কম হয়েছে। গত বছর যে বাগান এক থেকে দেড় লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছে, এবার সেই বাগান বিক্রি হয়েছে ৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকায়। তিনি বলেন, ‘প্রচন্ড রোদের কারণে লিচু বেশি ফোলেনি।’

গোয়ালদী গ্রামের লিচুর বাগানের মালিক আলমগীর মীর জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর সব বাগানেই লিচুর ফলন কিছুটা কম হয়েছে। তবে সোনারগাঁয়ের লিচু স্বাদে ভালো হওয়ায় প্রতি বছরই বাজারে এর কদর থাকে।

লিচু বাগানের ক্রেতা আব্দুল জলিল বলেন, এবার রোদের কারণে লিচু ফোলেনি। আবার কোনও কোনও বাগানের লিচু ভালো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘সোনারগাঁয়ের লিচু দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকারা নিতে আসছেন। এই লিচু আগে আসে বলে দাম কিছুটা বেশি।’

এদিকে সোনারগাঁ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনিরা আকতার জানান, এ বছর লিচুর ফলন তুলনামূলক ভালো হয়েছে। শিলা বৃষ্টি ও ঝড়-তুফান কম হওয়ায় লিচুর দাম ভালো পাচ্ছেন কৃষকরা। লিচুর আবাদ আরও বাড়ানোর জন্য কৃষি অফিস কাজ করছে।

তিনি আরও জানান, সোনারগাঁয়ে প্রায় একশ’ একর জমিতে প্রায় দুই শতাধিক বাগানে লিচুর আবাদ হয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে সোনারগাঁয়ে লিচু চাষ বাড়াতে লিচু চাষিদের নিয়ে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ