রবিবার ২১ জুলাই, ২০১৯

বন্দর উপজেলা নির্বাচন: আগেই হেরে গেছেন তারা

শুক্রবার, ১৪ জুন ২০১৯, ২২:৪২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: সমঝোতার মাধ্যমে আগামী ১৮ জুন অনুষ্ঠিতব্য বন্দর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এই নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী পাঁচ জন হলেও সমঝোতার মাধ্যমে সরে দাড়িয়েছেন চারজন। জাতীয় পার্টির নেতা সানাউল্লাহ সানু স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমর্থন নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন জোর প্রচারণা।

বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদ প্রার্থীদের গত ৩১ মে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতীক বরাদ্দের পর গত ৩ মে সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুলের বাসায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের উপস্থিতিতে সমঝোতার লক্ষ্যে বৈঠক হয়। এ সময় বর্তমান চেয়ারম্যান এমএ রশীদও উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে জাপা নেতা সানাউল্লাহ সানুকে সমর্থন দেওয়া হয়। বাকিদের সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচনে নিরব ভূমিকা পালন করার প্রস্তাব ওঠে। সমঝোতার সুরে অনিচ্ছা সত্ত্বেও এই প্রস্তাব মেনে নেন বাকিরা। নির্বাচন থেকে সরে দাড়ান তারা।

‘তালা’ প্রতীকের মো. নুরুজ্জামান প্রেস নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা সবাই সানাউল্লাহ সানুকে সমর্থন জানিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাড়িয়েছি। নির্বাচনের কোন প্রচারণা চালাই নি, চালাচ্ছিও না।’

‘চশমা’ প্রতীকের হাফেজ পারভেজ প্রায় ক্ষোভের সুরেই বলেন, ‘নির্বাচনের কোন খবর আমার কাছে নেই। জানতে হলে নির্বাচন অফিসে গিয়ে জেনে নিন। নির্বাচনে আমি নেই।’

এদিকে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন সানাউল্লাহ সানু। নিশ্চিত জয় জেনেও জোর প্রচারণা চালাচ্ছেন তিনি। তিনি প্রেস নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ মানুষের সমর্থন আমার পক্ষে রয়েছে। আমি বিজয়ী হবো ইনশাল্লাহ।’

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ