সোমবার ০১ জুন, ২০২০

বন্দরে নিরাপত্তাহীনতায় করোনায় নিহত নারীর পরিবার

শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০, ২১:৩৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের বন্দরের এক নারীর মৃত্যু পর করোনা শনাক্ত হয়। এ ঘটনায় ওই রসূলবাগ এলাকাটি লকডাউন করে দিয়েছে প্রশাসন। তবে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন ওই নারীর ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের লোকজন।

নিহত নারীর ছেলে মোহাম্মদ পাভেলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমরা তো জানতাম না যে, মায়ের করোনা হইসে। কালকে আইসা ডাক্তাররা বললো এ কথা। এখন এলাকা লকডাউন করা হইছে। এজন্য এলাকার লোকজন আমাদের দুষছেন।

পাভেল আরও বলেন, ‘লোকজন বলতেছে, একজনের লাইগা পুরা এলাকা লকডাউন করছে। আমাদের এলাকা থেকে বের করে দিবে, মারবে। এইরকম বলতাছে। জানালা দিয়া এইসব শুনতে পাই। আমাদের কি দোষ! আমরা তো নিজেরাই ঝামেলায়।’

তিনি বলেন, আমাদের মুখে এখন কোনো কথা নাই। কী বলবো বুঝতে পারতাছি না। সবাইকে তো আমরা সাহযোগিতা করতাছি। আমরা তো পারলে খালি নিজেরাই লকডাউনে থাকতাম, কাউরে কষ্ট দিতাম না।

তিনি আরও জানান, তাদের পরিবারের কেউই প্রবাসী নন। তার মা কীভাবে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন তিনি তা জানেন না।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন ঘরে জীবানুনাশক ছিটিয়ে গেছেন। কিন্তু আমাদের স্যাভলন কিংবা ডেটল, মাস্ক এসব লাগবে। বিশেষ করে কিছু টিস্যু লাগবে। এসব পেলে ভালো হয়। প্রশাসন থেকে সহযোগিতার আশ্বাস তো দিছে, কতটুকু করে সেটা দেখার বিষয়।

মায়ের মৃত্যুর পূর্বে চিকিৎসকদের সহযোগিতা পাননি অভিযোগ করে তিনি বলেন, হাসপাতালে-হাসপাতালে গেছি কোথাও ভর্তি নেয় নাই। নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকা মেডিকেল, তারপর আবার কুর্মিটোলা। সেখানে ভর্তির আগেই মা মারা গেছেন। পরে জানলাম করোনা আক্রান্ত ছিলেন তিনি।

নিরাপত্তার বিষয়ে বন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, আমার পুলিশ সেখানে চব্বিশ ঘন্টা মোতায়েন আছে। সব ধরনের নিরাপত্তা দেওয়া হবে ওই পরিবারের লোকজনকে। পাভেলের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত আছে।

এ বিষয়ে বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুক্লা সরকার বলেন, ওই এলাকায় পুলিশের অবস্থান আছে। মানুষের ভালোর জন্যই লকডাউন করা হয়েছে। ওই পরিবারের নিরাপত্তায় পুলিশ সবসময় সতর্ক অবস্থানে আছে। কোনো পক্ষ থেকেই অনাকাঙ্খিত কোনো ঘটনা ঘটানোর সুযোগ দেওয়া হবে না।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ