সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

বন্দরে জমি নিয়ে দুই ভাইয়ের বিরোধে লাঞ্চিত ইমামরা

শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ২১:০১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: বন্দরে দুই ভাইয়ের মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হাতাহাতির ঘটনায় লাঞ্চনার শিকার হয়েছেন স্থানীয় কয়েকজন ইমাম। শনিবার (১৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৮টায় বন্দরের কদম রসূল বড়বাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বন্দরের বড়বাড়ী এলাকায় নইমুদ্দিন আহমেদের দুই ছেলে ডালিম ও হাবীব উদ্দিন হাবিব মধ্যে জমি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিল। আজ জমিজমা মাপার জন্য বৈঠকে বসার কথা ছিল। ওই বৈঠকে পুলিশও উপস্থিত থাকার কথা ছিল। এদিকে বাড়িতে মিলাদের আয়োজন করেন হাবীব উদ্দিন। জমি মাপার দিনে মিলাদের আয়োজন করাতে ক্ষেপে যান হাবীবের ছোট ভাই ডালিম। পরে এ নিয়ে তাদের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। এতে যোগ দেন পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও। তাদের থামাতে গিয়ে লাঞ্চনার শিকার হন মিলাদে আসা স্থানীয় মসজিদের ইমামরা। এ ঘটনায় আহত হন দুই ভাইই।

লাঞ্চনার শিকার ইমামরা হলেন- পূর্বপাড়া জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব আলহাজ্ব মাওলানা সামসুদ্দোহা, মাওলানা আমিনুল হক রিপন, হাফেজ আনোয়ার হোসেন, বড়বাড়ী জামে মসজিদের ইমাম ও বন্দর কেন্দ্রীয় ঈদগাহের প্রধান খতিব আলহাজ্ব মাওলানা সোহরাব আলী, নবীগঞ্জ কবরস্থান জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা রবিউল আউয়াল, মাওলানা আ. রহমান, হাফেজ মাওলানা শহীদুল্লাহ, মাওলানা জামির হোসেন, কদম রসূল দরগাহ মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা শরীফুল্লাহ শাহীন ও হাফেজ আমজাদ হোসেন।

ইমামরা জানান, নবীগঞ্জ কবরস্থান কমিটির সভাপতি হাবীব উদ্দিন হাবিবের বাসায় খতমে কোরআন ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। সকালে তারা দাওয়াত পেয়ে হাবি মিয়ার বাসায় আসেন। এ সময় হাবীব ও তার ভাই ডালিমের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় লাঞ্চনার শিকার হন তারাও।

এ বিষয়ে হাবীবের ছেলে মুগ্ধ বলেন, জমি মাপার দিন জ্যাঠায় মিলাদ রাখায় বাবা ক্ষেপে যান। এ ঘটনায় তর্কবিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে হাতাহাতির দিকে চলে যায়। এ সময় হুজুররা থামাতে আসলে তারাও লাঞ্চনার শিকার হন। বাবা আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন আছেন।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল, মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা হুমায়ূন কবির মৃধা ও থানা পুলিশ।

বন্দর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল বলেন, আজ জমিজমার বিষয় নিয়ে বসার কথা ছিল। এ নিয়েই তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। পরে আর আজকে বসা হয়নি। এ ব্যাপারে সোমবার দুই পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসবো।

এ ব্যাপারে বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠাই। জানা গেছে, দুই ভাইয়ের মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে। এ নিয়ে আজকে বৈঠকে বসার কথা ছিল। কিন্তু একই দিনে এক ভাই মিলাদের ব্যবস্থা করলে তাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এ সময় উপস্থিত ইমামরাও লাঞ্চিত হয়েছেন বলে শুনেছি।

তিনি আরও বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় কোন পক্ষ থেকেই এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ পাইনি। তবে আগামী সোমবার তাদের জমিজমার বিষয়ে ঝামেলা নিয়ে দুই পক্ষকে নিয়েই বসবো।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ