রবিবার ২১ জুলাই, ২০১৯

ফিলোসোফিয়া স্কুলে অভিভাবকদের তুলকালাম কান্ড

সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯, ২৩:০৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নগরীর ডন চেম্বারে অবস্থিত ফিলোসোফিয়া স্কুলে অধ্যায়নরত এক শিক্ষার্থীর অভিভাবকদের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলের অফিস স্টাফদের উপর হামলা ও স্কুল বন্ধ করে দেয়ার হুমকির অভিযোগে উক্ত শিক্ষার্থীর অভিভাবকদের বিরুদ্ধে সোমবার (১৭ জুন) সকালে সদর থানায় এই অভিযোগ দায়ের করা হয়।

স্কুলটির প্রিন্সিপাল সেলিনা বেগম অভিযোগে উল্লেখ করেন, রবিবার ১৬ জুন দীর্ঘ এক মাস ঈদুল ফিতরের বন্ধের পর স্কুল ড্রেস ছাড়া ঈদের পোশাক পরে ঈদ আনন্দ ক্লাসের আয়োজন করা হয়। সেখানে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের মতোই প্রতিষ্ঠানের বাংলা মিডিয়াম সেকশনের কেজি টু শ্রেণির ৬ বছর বয়সী শিক্ষার্থী মো. নূসাইব আল ইসলাম ক্লাস শুরুর আধা ঘন্টা পূর্বে স্কুলে উপস্থিত হয়। তবে শিশুটি তার ক্লাশ ৫ম তলায় কেজি-টু (বাংলা মিডিয়াম) শ্রেণিকক্ষের পরিবর্তে ভুলক্রমে ৩য় তলায় অবস্থিত কেজি-টু (ইংলিশ ভার্সন) শ্রেণিকক্ষে ক্লাস করতে থাকে। স্কুল ড্রেস না থাকায় ইংলিশ ভার্সনের কেজি-টু এর শ্রেণি শিক্ষিক উক্ত ছাত্রের পরিচিতি যথাযথভাবে নির্ণয় করতে পারেননি।

অন্যদিকে বাংলা মিডিয়াম কেজি-টু এর ক্লাস শিক্ষিকা অত্র ছাত্রের মা কোরাতুন আইন সমীকে ক্লাসে তার সন্তানের অনুপস্থিতির কথা জানালে মা ছাত্রের চাচা মো. দীপু, মামা মো. তাজবির, নানা মো. শাহজাহানকে বাচ্চা পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানায়। মুহুর্তেই এ ছাত্রের চাচা, মামা ও নানা কতিপয় বহিরাগত ব্যক্তিদের সাথে নিয়ে স্কুলে আসেন। এ সময় তারা স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে কোনরুপ আলোচনা না করে, উক্ত ছাত্রকে খোঁজ করার সময় ও সুযোগ না দিয়ে, সিসি টিভির ফুটেজ দেখার সময়ও সুযোগ না দিয়ে অতর্কিতভাবে স্কুলের দারোয়ান, পিয়ন, শিফট ম্যান, অফিস স্টাফ ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের উপর উপুর্যপরি আক্রমণ চালায়।

তাদের হামলার শিকার হয়ে গেটম্যান কামরুল ইসলামসহ ৩ জন আহত হন। পরবর্তিতে বিষয়টি সুরাহার জন্য তাদের স্কুল কর্তৃপক্ষের অফিসে ডাকা হলে স্কুলের শিক্ষকসহ সকলের সামনে তারা অশ্রাব্য ভাষায় গাল-মন্দ করে ও শিক্ষকসহ স্কুল কর্তৃপক্ষের সকলকে নানা হুমকি দেয়।

এ সময় তারা স্কুল বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে বলেও দায়েরকৃত সাধারণ ডায়েরিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ওই শিক্ষার্থীর চাচা মো. দিপু প্রেস নারায়ণগঞ্জকে বলেন, আমার ভাতিজিকে আমি নিজে স্কুলে দিয়ে আসছি। অথচ গার্ড বলে সে স্কুলেই আসেনি। বারবার বলার পরও তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছিল না। মেয়েকে না পেয়ে উত্তেজিত হয়ে তাকে একটা চড় দিয়েছি।

সব খবর
শিক্ষাঙ্গন বিভাগের সর্বশেষ