শনিবার ২৪ আগস্ট, ২০১৯

ফতুল্লায় স্বামীর পাশবিক নির্যাতনে স্ত্রীর মৃত্যু

রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ২১:২৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: যৌতুকের দাবিতে পরকীয়া প্রেমে লিপ্ত স্বামীর পাশবিক নির্যাতনে মুমূর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল ফতুল্লার কাশিপুর ইউনিয়নের হাটখোলা এলাকার খাদিজা আক্তার। গত ১২ দিন ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে (ঢামেক) চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার পর রোববার (২৪ মার্চ) সকাল ৮টায় মারা যান তিনি।

এদিকে গতকাল শনিবার (২৩ মার্চ) নিহতের বড় বোনের স্বামী বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় খাদিজার স্বামী ফরহাদসহ তার পরিবারের ৪ জনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। নিহত খাদিজা ফতুল্লা পাইকপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল রশিদ ও নূর জাহানের মেয়ে।

গত ১২ মার্চ সকালে খাদিজাকে মুমূর্ষ অবস্থায় তার শ্বশুর বাড়ি থেকে উদ্ধার করেন মা নূরজাহান বেগম। এরপর থেকেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন খাদিজা। মুমূর্ষ অবস্থায় ১২ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ার পর রোববার সকাল ৮টায় মারা যান তিনি।

পরিবারের সূত্রে জানা যায়, ৪ বছর পূর্বে ফতুল্লার কাশিপুর ইউনিয়নের হাটখোলা এলাকার ইয়ার হোসেন ভুট্টুর ছেলে ফরহাদের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে বিবাহ হয় খাদিজার। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় যৌতুকের জন্য মারধর করে আসছিল। এর মধ্যেই বিভিন্ন মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কে লিপ্ত হয় ফরহাদ। তাদের রায়হান নামে দেড় বছরের একটি ছেলে সন্তানও রয়েছে। ফরহাদ নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালের কর্মচারি ছিলেন।

নিহতের মা নূরজাহান বেগম অভিযোগ করে বলেন, গত ১২ মার্চ আমি আমার মেয়েকে তার শ্বশুরবাড়িতে দেখতে যাই। কিন্তু পরিবারের সদস্যরা আমাকে বাধা দেয়। জোর করে ঘরে প্রবেশ করে দেখি আমার মেয়েকে মেরে খাটের নিচে রেখে দিয়েছে।

নিহতের বড় বোন ফজিলত বলেন, বিয়ের পর থেকেই আমার বোন সুখে ছিল না। প্রতিনিয়ত তাকে নানা কারণে মারধর করতো। ওকে মেডিকেলে নিয়ে যাবার পর ডাক্তার আমাদের জানায়, খাদিজার গলা টিপে ধরে ওর গলার হাড় ভেঙ্গে ফেলেছে। এরপর বিষাক্ত কিছু খাওয়ানো হয়েছে। হারপিক জাতীয় কিছু।

এ বিষয়ে ফরহাদের বড় ভাই রাব্বির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি আলাদা বাসায় থাকি। তবে আমি মারধরের ঘটনা শুনেছি।

এ ঘটনায় গতকাল শনিবার (২৩ মার্চ) নিহতের বড় বোনের স্বামী বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় খাদিজার স্বামী ফরহাদসহ তার পরিবারের ৪ জনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের জানান, গতকাল এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছিল। ভুক্তভোগীর মারা যাওয়ার বিষয়টি আমি জানি না। তবে এ ঘটনায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ