বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯

ফতুল্লায় আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে মেয়েসহ আটক

বৃহস্পতিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৯:০৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

বামে এমএ ছাত্তার ডানে তার ছেলে রবিউল ইসলাম

বামে এমএ ছাত্তার ডানে তার ছেলে রবিউল ইসলাম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লার কাশীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ সাত্তারের ছেলে রবিউল ইসলাম ধিরাজকে (২৫) এক স্কুল ছাত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় এলাকাবাসী।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কাশীপুরের বাংলাবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ছেলে ও মেয়েকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। ঘটনার পর বিকেলে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলীকে থানায় দেখা যায়। তবে তিনি অন্য কোন বিষয়ে থানায় এসেছেন বলে সাংবাদিকদের জানান।

আটক রবিউল ইসলাম ধিরাজ রাজধানীর ধানমন্ডির একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। তার বাবা আওয়ামী লীগ নেতা এমএ ছাত্তার কাশীপুরের দেওভোগ হাজী উজির আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য এবং কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য। এমএ সাত্তার ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম সাইফুল্লাহ বাদলের ঘনিষ্ঠজন বলে পরিচিত।

অন্যদিকে মেয়েটি শহরের ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড সংলগ্ন হেরিটেজ স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী।

এলাকাবাসী জানান, আপত্তিকর অবস্থায় সাত্তার মেম্বারের ছেলে ধিরাজকে একটি মেয়ের সাথে একটি ফ্ল্যাট থেকে আটক করা হয়। এ সময় মেয়েটিকে জোর করে এই ফ্ল্যাটে আনা হয়েছে বলে দাবি করে সে। পরে পুলিশে খবর দিয়ে তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

তবে এ বিষয়টি পারিবারিকভাবে সুরাহা করতে চাইছেন ছেলে ও মেয়েপক্ষ। থানায় স্কুল ছাত্রীর মা সাংবাদিকদের জানান, এ বিষয়ে তারা কোন অভিযোগ করবেন না। ছেলে ও মেয়ে রাজি থাকলে তাদের বিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসলাম হোসেন জানান, এলাকাবাসী থানায় খবর দিলে তাদের থানায় নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিকভাবে শুনেছিলাম মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা একে-অপরের পূর্ব পরিচিত। তাদের মধ্যে প্রেমঘটিত সম্পর্ক রয়েছে। ছেলেটি মেয়েটিকে নিয়ে কাশীপুর বাংলাবাজারের পরিচিত একজনের ফ্লাটে যায়। এদিকে এলাকাবাসী কোনভাবে খবর পেয়ে তাদেরকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়।

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় ছেলে ও মেয়েপক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছিল। দুই পক্ষই পারিবারিকভাবে বিষয়টির সুরাহা করতে চান। মেয়ের পক্ষ থেকে কোন প্রকার অভিযোগ করা হয়নি। কোন অভিযোগ দিলে আমরা সেই সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেবো।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ