রবিবার ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯

নেতাকর্মীদের নিয়ে শামীম ওসমানের রুদ্ধদ্বার বৈঠক

সোমবার, ৪ নভেম্বর ২০১৯, ২০:৩১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে আলোচিত পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদের বদলির আদেশের এক দিন পরই অনুসারী নেতাকর্মীদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান।

সোমবার (৪ নভেম্বর) বিকেলে চাষাঢ়ায় রাইফেলস্ ক্লাবে নেতাকর্মীদের নিয়ে আলোচনায় বসেন তিনি। সন্ধ্যায় মাগরিবের আযানের সময় বৈঠক শেষ হয়। এ সময় একে একে নেতাকর্মীরা বেরিয়ে আসেন। ওই আলোচনায় গণমাধ্যমকর্মীদের প্রবেশ নিষেধ রাখা হয়।

বৈঠক উপস্থিত নেতাকর্মীদের সূত্রমতে, সাম্প্রতিক বিভিন্ন ইস্যুকে কেন্দ্র করে শর্ট নোটিশে নেতাকর্মীদের ডাকেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সাংসদ একেএম শামীম ওসমান। পরে তাদের নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করেন। এ সময় নেতাকর্মীদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন শামীম ওসমান।

বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফউল্লাহ বাদল বলেন, এটা নিজেদের মধ্যে বৈঠক। নিজেদের মধ্যেই আলাপ-আলোচনা হয়েছে। এর বেশি কিছু নয়।

উক্ত রুদ্ধদ্বার বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি চন্দন শীল, এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফউল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমএ রশীদ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মিয়া, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী, নাসিক ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজল, নাসিক ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু, নাসিক ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি, নাসিক ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহজালাল বাদল, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান স্মৃতি, মহানগর কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান লিটন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, সাফায়েত আলম সানি, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসমাঈল রাফেল প্রধান, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, হারুন অর রশীদ নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করার পর থেকেই তার সাথে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের সম্পর্ক নিয়ে এক ধরণের আলোচনা চলছিল। এসপি হারুনের নেতৃত্বে জেলা পুলিশের এ্যাকশনে সাংসদ শামীম ওসমানের আত্মীয়, ঘনিষ্টজন ও অনুসারী অনেক নেতাকর্মী হাজতবাস করেছেন। শামীম ওসমানের অনুসারীরা এসপি হারুন ও জেলা পুলিশের উপরে এক প্রকারের বিষোদগারও করেছেন। এমনকি খোদ শামীম ওসমানও এ নিয়ে বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে কথা বলেছেন। বিভিন্ন সভা-সমাবেশে পরোক্ষভাবে পুলিশ ও প্রশাসনের নিয়ে বক্তৃতা করেছেন শামীম ওসমান। সর্বশেষ ৭ সেপ্টেম্বর শহরে আয়োজিত শামীম ওসমানের জনসভায় এক ঘন্টারও বেশি সময় ধরে করা বক্তৃতার বেশিরভাগ সময় জুড়েই ছিল পুলিশ প্রসঙ্গ। পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তা নিয়ে সাংসদ যে ক্ষুব্দ তার প্রমাণও মিলেছে শামীম ওসমানের ওই জনসভায় রাখা বক্তৃতায়। এসব বিষয়ে জাতীয় ও স্থানীয় গণমাধ্যমে লেখালেখিও হয়েছে। সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে অনেক ঘটনা ঘটে গেলেও আলোচনার শেষ হয়নি।

এদিকে গত রোববার (৩ নভেম্বর) রাষ্ট্রপতির আদেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এক প্রজ্ঞাপনে পুলিশ হেড কোয়ার্টারে বদলি করা হয় জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদকে। এসপি হারুনের বদলির আদেশের একদিন পরই নেতাকর্মীদের নিয়ে এই রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন এমপি শামীম ওসমান।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ