সোমবার ১৪ অক্টোবর, ২০১৯

নির্বাচন সুষ্ঠ হলে পূর্ণ প্যানেল নির্বাচিত হবে: সাখাওয়াত

শনিবার, ২০ জানুয়ারি ২০১৮, ১৮:০৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ ডটকম: নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের প্যানেল থেকে ১৭টি পদের জন্য লড়ছেন ১৭ জন। এই ১৭ জনের প্যানেলকে বিজয়ী করতে মূল সমন্বয়কের ভুমিকা পালন করছেন অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। যিনি দুই বারের সেক্রেটারী ও দুই বারের সভাপতি ছিলেন জেলা আইনজীবী সমিতির। আলোচিত সাতখুন মামলা ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী হয়ে ব্যাপকভাবে আলোচিত ও পরিচিতি হয়েছেন। বর্তমানে তিনি নারায়ণগঞ্জ মাহনগর বিএনপির সহ-সভাপতি। আসন্ন জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনী পরিবেশ, প্যানেলের অবস্থা, নির্বাচনী প্রস্তুতি, প্রচরানা, প্যানেলকে বিজয়ী করতে করনীয় নানা বিষয় নিয়ে খোলা মেলা কথা বলেছেন প্রেস নারায়ণগঞ্জ এর সাথে।

প্রশ্ন: আসন্ন আইনজীবি সমিতির নির্বাচন নিয়ে কিছু বলেন।
সাখাওয়াত হোসেন খান: আইনজীবি পরিষদ নির্বাচনে আমি ২ বার সাধারণ সম্পাদক ছিলাম, এবং ২ বার সভাপতি ছিলাম। একটা কথা হলো বিএনপি একটি বড় রাজনৈতিক দল এবং নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতি একটি বড় সংগঠন। এখানে অধিকাংশ আইনজীবি বিএনপির যে আইনজীবি সংগঠন আছে জাতীয়তাবাদী আইনজীবি ফোরাম, এবং ২০ দলীয় জোটের অন্যান্য সংগঠনের আইনজীবীই বেশি।

প্রশ্ন: আপনাদের মধ্যে একটা বিবেদ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই বিবেদ নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করেন?
সাখাওয়াত হোসেন খান: নানান সময়ে বিভিন্ন সংগঠনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি হয়। বর্তমানে আমাদের সিনিয়র আইনজীবি ও আমাদের হস্তক্ষেপে এই দুরত্ব আমাদের মাঝে নাই। নির্বাচনকে সামনে রেখে আমাদের মধ্যে বৃহত্তর ঐক্য সংগঠিত হয়েছে। এবং এই ঐক্যবদ্ধতাকে কাজে লাগিয়ে আগামী যে আইনজীবি সমিতির নির্বাচন সেখানে আমরা জহিরুল হক এবং আব্দুল হামিদ ভাসানী পরিষদ দিয়েছি। যদি সুষ্ঠ ভাবে নির্বাচনটা হয় তবে আমরা পূর্ণ প্যানেলে এ নির্বাচনে জয়ী হবো। তবে একটা কথা হলো আমরা সবাই শহিদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রাহমানের সৈনিক। নারায়ণগঞ্জে জাতীয়তাবদী আইনজীবি ফোরামে যত আইনজীবি আছে আমরা সবাই নির্বাচনের প্রশ্নে ঐক্যবদ্ধ। আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে প্যনেল দিয়েছি। ঐক্যবদ্ধভাবেই নির্বাচন করবো।

প্রশ্ন: নির্বাচন নিয়ে কোন সংশয় বা শঙ্কা আছে কিনা?
সাখাওয়াত হোসেন খান: এ নির্বাচনে আইনজীবিদের মধ্যে কিছুটা সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে কারণ আইনজীবিদের বাইরেও এ নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করার প্রবণতা আমরা লক্ষ্য করছি। যেই হস্তক্ষেপটা ইতিপূর্বে এত মাত্রায় হয়নি। আপনারা দেখবেন, আইনজীবি সমিতির যে নির্বাচন সেখানে সরকারি দলের ছাত্র সংগঠন মিছিল নিয়ে প্রচার প্রচারণা করেন। যেটা ইতিপূর্বে এ ধরণের নজির আমরা দেখি নাই। এখন এই কারণে এ নির্বাচন নিয়ে সকলের মধ্যে একটা উদ্বিগ্নতা রয়েছে। আমরা চাই এটা যেহেতু আইজীবিদের নির্বাচন সেহেতু আইনজীবি ছাড়া অন্যকারো প্রভাব যেন না খাটে। এখানে আইনজীবিরাই তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করবেন। এই নির্বাচন যেন সুষ্ঠ হয় এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হয় এটাই আমরা চাই। এখানে প্রসাশনের বিশেষ ভূমিকা আমরা আশা করছি।

প্রশ্ন: নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেলকে কিভাবে দেখছেন?
সাখাওয়াত হোসেন খান: যদি সরকারের গ্রহণযোগ্যতা থাকে তবে সরকার দলীয় প্রার্থী ভোট পাবে। জোর জবরদস্তি করার প্রয়োজন পড়ে না। নির্বাচন সুষ্ঠ হবে আশারাখি। এ নির্বাচন সুষ্ঠ হলে আমরা পূর্ণ প্যানেলে নির্বাচিত হবো। ইতিপূর্বে এ আইজীবি সমিতির নির্বাচনে সরকার দলের প্রার্থিরা বড় বড় পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। নির্বাচিত হয়ে তারা যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন। নির্বাচিত হওয়ার পরে তারা তাদের প্রতিশ্রুতি রাখেন নাই। তারা আইনজীবিদের সুখে, দুঃখে পাশে থাকে নাই। আইজীবিদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন তারা ঘটাইতে পারে নাই। ফলে আমি মনে করি জাতীয়তাবাদী আইনজীবি ফোরাম যে প্যানেল নির্বাচনে দাঁড়িয়েছে সাধারণ আইনজীবীরা তাদের নির্বাচিত করবে।

প্রশ্ন: প্যানেলের প্রচরনা কিভাবে চলছে?
সাখাওয়াত হোসেন খান: আমাদের ১৭ জনের প্যানেল। আমাদের তো আইনজীবি সংগঠন রয়েছে। সেই সংগঠনের মাধ্যমে আমরা প্রচার কাজ করছি। আরো যারা সংগঠনের বাইরে আছে তাদেরকে সাথে নিয়ে নির্বাচন করার পরিকল্পনা রয়েছে। রাজনৈতিক নেতৃত্ব, মুরুব্বি যারা আমাদের সাথে আছে তাদেরকে নিয়ে আমরা নির্বাচনের বাকিটা পথ হাঁটতে পারবো।

প্রশ্ন: জয়ের ব্যাপারে কতটা আশাবাদী?
সাখাওয়াত হোসেন খান: এটা আইনজীবিদের নির্বাচন। এখানে জোর জবদস্তির কোন স্থান নাই। আমরা আশা করি একটা সুষ্ঠ নির্বাচন হবে। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে সাধারণ আইনজীবিরা পরিবর্তনের পথে হাঁটবে এবং পরিবর্তনের জন্যই তারা ভোট দেবে। আপনারা দেখে থাকবেন আজকে আমরা এবং সরকারদলীয় উনারা একসাথে নমিনেশন পেপার জমা দিয়েছি। আমাদের সাথে প্রায় ১০০ আইনজীবি ছিল উনাদের পক্ষে এত আইনজীবি ছিল না। সারাধারণ আইনজীবি থেকে শুরু করে আমরা সকলইে ঐক্যবদ্ধ। একটি সুষ্ঠ নির্বাচন হলে আমরা পূর্ন প্যানেল জয় লাভ করবো, ইনশাল্লাহ।

সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
সাখাওয়াত হোসেন খান: আপনাদেরও ধন্যবাদ।

সব খবর
সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বশেষ