সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

‘নির্বাচনও নাই, বিরানিও নাই’

শুক্রবার, ১৬ আগস্ট ২০১৯, ২১:৫৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ‘গত বছর নির্বাচন আছিল, ম্যালা আয়োজনও আছিল। ম্যালা জায়গায় বিরানি পাইছি। দিনে তিন-চাইরডা প্যাকেট পাইছি। ভালা-মন্দ তেমন একটা খাইতে পাই না। এই মাসে খুইজা ফিরি কই কী হয়। কিন্তু এইবার তো আর নির্বাচন নাই, তাই বিরানিও নাই।’

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শহরে অনুষ্ঠিত এক মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে এসে হতাশ ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা সামিনা আক্তার এমন মন্তব্য করেন। ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবিকা নির্বাহ করেন বলে জানান তিনি।

গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় গত বছরের ডিসেম্বরে। এর চার মাস আগে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের অনেক নেতৃবৃন্দই বিভিন্ন স্থানে শোকসভা ও মিলাদ মাহফিল আয়োজন করেন। পুরো আগস্ট মাস জুড়েই চলে এ আয়োজন। দোয়া মাহফিলে নেওয়াজ হিসেবে অধিকাংশ সময়ই বিরিয়ানি বিতরণ করতে দেখা গেছে। অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক ভিড় দেখা যায়। এমনকি অনুষ্ঠান শেষে নেওয়াজ বিতরণের সময় একাধিকবার হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে।

গত বছর একই দিন একই সময়ে বিভিন্ন এলাকায় শোক দিবসের মিলাদ মাহফিলের আয়োজন দেখা গেছে। শোক দিবসের কর্মসূচিগুলোতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদেরই বেশি দেখা গেছে। নিজ উদ্যোগে শোকসভার আয়োজন তো ছিলই এমনকি অন্যের আয়োজনেও অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকতে দেখা গেছে। কিন্তু এবারের শোক দিবসে তেমন দৃশ্য চিত্রিত হয়নি। গত বছরের তুলনায় অনেক এলাকায়ই শোক দিবস পালনের লক্ষ্যে কাঙালিভোজ কিংবা মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়নি।

গত বছর কেবল শহরেই নয় সিদ্ধিরগঞ্জ, ফতুল্লা, বন্দর, সোনারগাঁ, রূপগঞ্জ, আড়াইহাজারেও শোক দিবস উপলক্ষে মাসজুড়ে ছিল নানা আয়োজন। নেতাদের পাশাপাশি পিছিয়ে ছিলেন না নারী নেত্রীরাও। তারাও বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছেন। দলীয় কর্মসূচির পাশাপাশি নিজস্ব উদ্যোগেও নানা আয়োজন দেখা যায়। কিন্তু এবার তেমনটা হয়নি। এমনকি শোক দিবস উপলক্ষে দলীয় কর্মসূচিতেও অনেক নেতাকে দেখা যায়নি।

এমনটা হওয়ার কারণ হিসেবে ক্ষমতাসীন দলেরই একাধিক নেতার মন্তব্য, গত বছর যারা বিভিন্ন আয়োজন করেছিলেন তাদের বেশিরভাগ নেতাই ছিলেন নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী। সেসব নেতারা আলোচনায় আসার জন্য এসব আয়োজন করেছেন। অনেকেই আবার মনোনয়ন প্রত্যাশা না করলেও নির্বাচনের পূর্বে নিজের অবস্থান তুলে ধরার খাতিরে সেসব আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন। এখন নির্বাচন নেই তাই তাদের এসব আয়োজনেরও কোন প্রয়োজন নেই বলেই মনে করেছেন। নইলে এবার কেন প্রোগ্রাম করলো না?

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ