সোমবার ২২ জুলাই, ২০১৯

নাসিক বাজেট: নাগরিক সমাজের প্রত্যাশা

বুধবার, ১০ জুলাই ২০১৯, ২১:৩৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: আর মাত্র তিনদিন পর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা হতে যাচ্ছে। প্রতিবছর এই বাজেটকে কেন্দ্র করে নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে নাগরিক সমাজের রয়েছে বেশ কিছু প্রত্যাশা। যে প্রত্যাশাগুলোর মধ্য দিয়ে উঠে আসে নাগরিক সমস্যা, দুর্ভোগ, সমাধানের পথ, সর্বোপরি নগরচিত্র। কেমন হতে পারে এ অর্থ বছরের বাজেট, এ বাজেটে কি প্রত্যাশা থাকছে নাগরিক সমাজের, এমন সব প্রশ্ন নিয়ে প্রেস নারায়ণগঞ্জ কথা বলেছে নাগরিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে।

নারায়ণগঞ্জ শহরটিকে একটি সুন্দর, পরিচ্ছন্ন সিটি হিসেবে দেখতে চান নাগরিক প্রতিনিধিরা। তাই এ বাজেটে নারী- শিশুর সামাজিক সুরক্ষা ও নিরাপত্তা, পরিবেশ রক্ষা ও জনদুর্ভোগ নিরসন প্রত্যাশাই রাখেন তারা। তার পাশাপশি শহরকে যানজট ও হকারমুক্ত রাখার বিষয়ে প্রত্যাশা জানান তারা।

জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি লক্ষ্মী চক্রবর্তী বলেন, ‘সারাদেশের ন্যায় নারায়ণগঞ্জ জেলায় নারী ও শিশুর নিরাপত্তা এখন একটি প্রশ্ন। খবরের কাগজ খুললেই প্রতিদিনই দেখা যাচ্ছে ধর্ষণ, শিশু ধর্ষণ, ধর্ষণ শেষে খুনের মত ঘটনা। সম্প্রতি সিদ্ধিরগঞ্জের ২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঘটনায় এখন সবাই উদ্বিগ্ন। আমি মনে করি নাসিক ও নাসিক কাউন্সিলরদের এ বিষয়ে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ প্রয়োজন।’

তিনি আরো বলেন, ‘একটি ওয়ার্ডের সব কিছু জানেন ও দেখাশোনা করেন সে ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। মেয়র চাইলে নগরবাসী ও নাসিকের সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ট করার লক্ষ্যে কাউন্সিলর ও এলাকবাসীর সমন্বয়ে এলাকার নিরাপত্তা জোরদার করতে পারেন। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ‘নাগরিক সচেতনতা সভা’ নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর ও এলাকাবাসীর সমন্বয়ে সিসি টিভি ক্যামেরা স্থাপনের মাধ্যমে এলাকা সার্বক্ষণিক নজরদারিতে নিয়ে আসলে এলাকায় ইভটিজিং, মাদকসহ সকল অপকর্মের উপর লাগাম টানা সম্ভব হবে।’

নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, ‘সুন্দর পরিচ্ছন্ন নগরই আমাদের প্রথম প্রত্যাশা। তবে এই বাজেটে আমার বিশেষ প্রত্যাশা থাকবে নিরাপদ খাবার পানি। নগরবাসী ওয়াসার যে পানি ব্যবহার করে তা খুবই অপরিচ্ছন্ন এবং অনিরাপদ। বিভিন্ন সময় দুর্গন্ধযুক্ত ও ময়লা পানি আসে যা পানের অযোগ্য। তাই আসন্ন বাজেটে নাসিক মেয়রের কাছে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে, নগরবাসীর জন্য নিরাপদ ও সুপেয় পানির ব্যবস্থার লক্ষ্যে তিনি কিছু করবেন।’

সম্প্রতি শহরে রিকশার আধিক্য ও দৌরাত্ম বিষয়টি নাসিক বাজেটে তুলে ধরার প্রয়োজন আছে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘শহরে পরিমাণের তুলনায় অধিক ও অবৈধ রিকশা চলাচল করছে যা নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন। পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে, রিকশায় উঠলেই ২০ টাকা। আমি মনে করি, শহরে অবৈধ রিকশা প্রবেশ ও রিকশার লাইসেন্সের ক্ষেত্রে নাসিকের নজরদারির প্রয়োজন রয়েছে। এ ক্ষেত্রে রিকশার পরিবর্তে ছোট গণপরিবহন চলাচল ও ভাড়া নির্ধারণ করা কার্যকরি পদক্ষেপ হিসেবে প্রমাণিত হবে।’

নারায়ণগঞ্জ সিটির প্রাকৃতিক পরিবেশের অবনতি ঘটছে বলে মনে করেন নাগরিক কমিটির সভাপতি এবি সিদ্দিক। তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মূল শহরে গাছের সংখ্যা খুবই কম। বিশ্বের অন্য কোনো সিটিতে এমনটা নেই। নারায়ণগঞ্জ সিটিতে গাছ নেই বললেই চলে। তার উপর সিটির মধ্যে যে সকল খাল ও পুকুর রয়েছে সেগুলোর বেহাল দশা। মেয়র খাল রক্ষায় কাজ করছেন কিন্তু তা পর্যাপ্ত নয়। আমি মনে করি, সিটির মধ্যে যে সকল পুকুর ও খাল রয়েছে সেগুলোর সংরক্ষণের প্রয়োজন আছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বাজেট একটি চলমান প্রক্রিয়া। প্রতি বছরই এটা হয়ে থাকে। তবে এ বছর বাজেটে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে নারায়ণগঞ্জ সিটির পরিবেশ উন্নয়ন। উন্নয়ন তো হচ্ছে; সেই সাথে পরিবেশ উন্নয়নের জন্য এবার নাসিক বাজেটে বিশেষ বরাদ্দের প্রয়োজন আছে। নাসিক পরিবেশ উন্নয়নে অবদান রাখবে এই প্রত্যাশাই আমরা করি।’

নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জিয়াউল ইসলাম কাজল বলেন, ‘শহরে নগরবাসীর চিত্ত বিনোদন ও অবকাশ যাপনের স্থানের অভাব রয়েছে। তার পাশাপশি সংস্কৃতি চর্চার জন্য স্থাপনা সংকট সব সময়ই ছিল। এগুলো একটি শহরের সুস্থ্যতা নিশ্চিতের জন্য আবশ্যক।’

তিনি আরো বলেন, ‘মেয়র সাংস্কৃতিক চর্চার জন্য শহরের মধ্যে আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তন তৈরি করেছেন এবং অবকাশ যাপনের জন্য শেখ রাসেল পার্ক তৈরী করছেন। কিন্তু এ দুটি নগরবাসীর জন্য পর্যাপ্ত নয়। আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনের সিট সংখ্যা খুব কম। তাই এই বছরের বাজেটে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে চাষাঢ়া শহর কেন্দ্রীক বিনোদন কেন্দ্র স্থাপন ও সংস্কৃতি চর্চার পরিকল্পনা গ্রহণ।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ