বুধবার ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের বাজেট নিয়ে তরুণদের প্রত্যাশা

মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০১৯, ২১:৫৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

আফসানা আক্তার (প্রেস নারায়ণগঞ্জ): আগামী ১৪ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ২০১৯-২০ বছরের বাজেট ঘোষণা করতে যাচ্ছেন নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এদিন তিনি তুলে ধরবেন আগামী ১ বছরের নগর উন্নয়নে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের আয়-ব্যয়ের খতিয়ান। তারই সঙ্গে থাকবে নগরবাসীর দুর্ভোগ নিরসনের বিভিন্ন নগর পরিকল্পনা। কেমন হবে এই অর্থবছরের বাজেট, সমাধান হবে কোন কোন নাগরিক দুর্ভোগ, কি থাকছে তরুণদের জন্য, আসন্ন বাজেট নিয়েই বা কি ভাবছে তরুণ সমাজ। এমন সব প্রশ্ন ও আসন্ন বাজেট নিয়ে তরুণদের ভাবনা নিয়ে সরাসরি তরুণদের সঙ্গে কথা বলেছে প্রেস নারায়ণগঞ্জ।

আসন্ন বাজেটে জনদুর্ভোগ নিরসনই তরুণদের প্রধান প্রত্যাশা। স্থায়ী সমাধানের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জকে একটি সুন্দর, গোছানো ও সুরক্ষিত নগর হিসেবেই দেখতে চান তরুণ সমাজ।

সম্প্রতি সময়ে জনজীবনে বাধা প্রদানকারী প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে শহরে চলাচলকারী রিকশা ও রিকশা ভাড়া। নগরবাসীর মধ্যে এ নিয়ে যেন ক্ষোভের শেষ নেই। প্রায় সময়ই শহরে রিকশাচালক ও যাত্রীদের মধ্যে বিরোধ দেখা যায়। কিন্তু কোনো রকম সমাধান না হওয়ায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বিভিন্ন কাজে প্রতিদিন শহরে আসা সাধারণ মানুষ। আসন্ন বাজেটে ঠিক এই সমস্যা সমাধানের প্রত্যাশা করেন তরুণ সংগঠক আমানুর রহমান।

আমানুর রহমান বলেন, ‘চাষাঢ়া থেকে নিতাইগঞ্জের দূরত্ব ১ কিলোমিটার। কিন্তু এই এক কিলোমিটার বঙ্গবন্ধু সড়কে নেই কোনো গণপরিবহণ। ফলে রিকশাই আমাদের একমাত্র ভরসা। এই নির্ভরশীলতাকে কাজে লাগিয়ে নগরবাসীকে জিম্মি করে রেখেছে রিকশা চালকরা। ইচ্ছানুযায়ী ভাড়া নিচ্ছে। এটা আমাদের দৈনন্দিন জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা মনে করি, আগামী বাজেটে এই সমস্যার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করে এবং এর জন্য কিছু কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণ করে তাহলে এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান সম্ভব। এক্ষেত্রে নাসিক কর্তৃক রিকশার লাইসেন্স নিয়ন্ত্রণ ও ভাড়া নির্ধারণ কার্যকরী পদক্ষেপ হতে পারে বলে আমি মনে করি।’

ঐতিহ্যবাহী এই শহরে নগরায়ন ঘটলেও নাগরিক সুবিধা পর্যাপ্ত নয় বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষার্থী অনামিকা। অনামিকা বলেন, ‘এ শহরে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ যাওয়া আসা করে। শতশত নারী শিক্ষাগত, পেশাগত বা অপেশাগত কারণে এই শহরে আসে। কিন্তু এই হাজার হাজার মানুষের ব্যবহারের জন্য নেই পর্যাপ্ত পাবলিক টয়লেট। যেগুলো আছে তাতে নেই নারীদের জন্য স্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও নিরাপত্তা।’

অনামিকা আরো বলেন, ‘কিছুদিন পরই বাজেট। আমি আমাদের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে অনুরোধ করবো আমাদের এই সামান্যতম সমস্যা সামাধান করবেন এবং এই বাজেটে পাবলিক টয়লেটের সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য বরাদ্দ রাখবেন।’

সিদ্ধিরগঞ্জ মিলিটারি ইনসস্টিটিউট অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজির শিক্ষার্থী সাইফুল্লাহ মজুমদার তানজিল বলেন, ‘আমাদের মূল শহরে কোনো বিনোদন কেন্দ্র নেই। এমন স্থান নেই যেখানে নগরবাসী একটু বসতে পারে এবং অবকাশ যাপন করতে পারে। কোনো বিনোদন কেন্দ্র না থাকায় চাষাঢ়া শহীদ মিনারকে তারা বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত করেছে। ফলে বিভিন্ন সময় মানুষ এই পবিত্র স্থানটির অবমাননা করে। জুতা নিয়েই শহীদ বেদিতে উঠে পরে, মিনারে মোটর সাইকেল নিয়ে আসে, আড্ডা দেয়, ধুমপান করে; যা দৃষ্টিকটু। আর এসবের কারণে স্থানটি অরক্ষিত হয়ে পড়ে।’

তানজিল আরো বলেন, ‘আমার মনে হয়, নাসিকের এ বিষয়ে কিছু করা উচিত। আমি মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে অনুরোধ করবো এই শহীদ মিনারের রক্ষনাবেক্ষনের জন্য রক্ষক বা দারোয়ান নিয়োগ দেয়া হোক এবং চাষাঢ়া কেন্দ্রীক একটি বিনোদন কেন্দ্র তৈরি করা হোক।’

এছাড়াও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে শহরের যানজট সমস্যা, চাষাঢ়া চত্তরে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ, সিটির ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও শহরের ময়লা অপসারণ সামস্যার সামাধানও চান এই তরুণরা।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ