বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯

না.গঞ্জ শহরে রিকশার অতিরিক্ত ভাড়ার লাগাম টানার দাবি

বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ১৭:১১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ শহরে কোন গণপরিবহন না থাকাতে রিকশাই কম দূরত্বের যাতায়াতের জন্য একমাত্র বাহন। কিন্তু সেই বাহনই এখন গোদের উপর বিষফোঁড়া হয়ে দাড়িয়েছে নগরবাসীর জন্য। মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছেন রিকশা চালকরা। স্বাভাবিকের তুলনায় দ্বিগুন ভাড়াও দাবি করছেন তারা। যার ফলে রীতিমতো ক্ষুব্দ নগরবাসী। প্রায় সময়ই রিকশা ভাড়া নিয়ে চালক-আরোহীর বাকবিতন্ডা চোখে পড়ছে শহরের বিভিন্ন সড়কে। এমন অবস্থায় রিকশার অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ে লাগাম টানার দাবি জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন নারায়ণগঞ্জবাসী।

উৎসব-পার্বনে রিকশার ভাড়া স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে যায়। কিন্তু বেশ কয়েকদিন যাবৎ উৎসব ছাড়াও অতিরিক্ত রিকশা ভাড়া আদায় করছেন চালকরা। ঈদ-উল-ফিতরকে উপলক্ষ করে ঈদের কয়েকদিন আগ থেকেই অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছিল রিকশা চালকরা। ঈদ উপলক্ষে কোন কোন অবস্থায় দ্বিগুনের বেশি ভাড়াও আদায় করেছেন তারা। ঈদের পরের কয়েকদিনও ছিল একই অবস্থা। ঈদ উপলক্ষে এমন ভাড়ার বিষয়ে তেমন কেউ উচ্যবাচ্য করেনি। কিন্তু ঈদ শেষেও একই অবস্থা বজায় রেখেছেন রিকশা চালকরা। এতে ক্ষুব্দ নগরবাসী।

খানপুরের বাসিন্দা রাকিব বলেন, চাষাড়া থেকে বরফকল মাঠের ভাড়া স্বাভাবিকভাবে বিশ টাকা। অথচ রিকশাচালক দাবি করছেন পঞ্চাশ টাকা।

কালিরবাজার ব্যাংকের মোড় থেকে চাষাড়া মার্ক টাওয়ারের সামনে নেমে পনেরো টাকা রিকশা চালককে দিলে তিনি পঁচিশ টাকা দাবি করেন। এতে ক্ষুব্দ জন কলেজ ছাত্রী সায়মা। চালকের সাথে কিছুক্ষন তর্কের পর পরে বিশ টাকা ভাড়া দেন সায়মা। পরে তিনি প্রেস নারায়ণগঞ্জের এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘ব্যাংকের মোড় থেকে ভাড়া ১০ টাকা। সেখানে পনেরো টাকা দিলাম তবুও পঁচিশ টাকা ভাড়া চায়। এ তো রীতিমতো ডাকাতি।’

তিনি আরো বলেন, ‘দামাদামি করে না উঠলেই এই সুযোগটা নেয় রিকশাওয়ালারা। এর একটা মিমাংসা হওয়া দরকার। রিকশা ভাড়া নির্দিষ্ট করা দরকার।’

অতিরিক্ত রিকশা ভাড়ায় অতিষ্ঠ অনেকেই রীতিমতো ক্ষোভ ঝারছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও। গত তিনদিন যাবৎ নারায়ণগঞ্জের জনপ্রিয় ফেসবুক গ্রুপ ‘নারায়ণগঞ্জস্থান’সহ বিভিন্ন গ্রুপে আলোচনা হচ্ছে শহরে রিকশার অতিরিক্ত ভাড়া আদায় নিয়ে।

ফেসবুক ব্যবহারকারী শাকিল আহমেদ লিখেছেন, ‘রিকশা ভাড়া নিয়ে নারায়ণগঞ্জবাসী অতিষ্ঠ। তাই সকলের একটাই দাবি যাতে করে প্রতিটি রিকশার পেছনে ন্যায্য ভাড়ার মূল্য তালিকা করে দেয়া হয়। সিটি কর্পোরেশনের কাছে এটা আমাদের দাবি।’

‘নারায়ণগঞ্জস্থান’ গ্রুপের এডমিন আরেফিন রওশন হৃদয় লিখেছেন, ‘ফুটপাত মুক্ত শান্তি। এখন রিকশা ভাড়া নির্ধারণ হলে আরো একটা শান্তি পাবো। নারায়ণগঞ্জ সিস্টেমে আসুক এটাই প্রত্যাশা।’

হামাদ ওমরান লিখেছেন, ‘রিকশাওয়ালাদের সাথে বাকবিতন্ডা এখন একটা নিয়মিত অসুখ।’

এদিকে সিটি কর্পোরেশন বলছে, ভাড়া নির্ধারণ করে দেওয়া হলে রিকশা চালক তো দূরে থাক সাধারণ যাত্রীরাই তা মেনে চলেন না। যার ফলে এ বিষয়ে উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছে সিটি কর্পোরেশন।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ে নাসিকের পরিকল্পনা জানতে চাওয়া হলে সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এফএম এহতেশামূল হক প্রেস নারায়ণগঞ্জকে জানান, ‘প্রতি বছরই আমরা এ বিষয়টি মোকাবেলায় পদক্ষেপ নিয়েছি। রিকশা ভাড়াও নির্ধারণ করা ছিল পূর্ববর্তী বছরগুলোতে। কিন্তু এইগুলা কেউ মানে না। তাই উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছি। যে জিনিসটা কেউ মানবেই না সেই জিনিস করে লাভ কি?’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ