সোমবার ২০ আগস্ট, ২০১৮

নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে শিক্ষকদের মিলন মেলা

সোমবার, ৩০ জুলাই ২০১৮, ২১:৪২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা শিক্ষা অফিসের আয়োজনে শিক্ষার গুনগত মানোন্নয়ন মাল্টিমিডিয়া শ্রেণি কার্যক্রম জোরদার করণসহ জঙ্গি, মাদক ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম প্রতিরোধে শিক্ষক গনের করনীয় শীর্ষক মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার ( ৩০ জুলাই ) বিকাল সাড়ে ৩টায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে নারায়ণগঞ্জ জেলার মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকগনের (ইংরেজি, গনিত, আইসিটি, বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা) সমন্বয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় শিক্ষকদের মিলন মেলায় পরিনত হয় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের মিলনায়তন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন , নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার মইনুল হক বিপিএম পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( শিক্ষা ও আইসিটি) মো. রেজাউল বারী, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা, নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের সভাপতি তানভীর আহমেদ টিটু, তোলারাম কলেজের অধ্যক্ষ বেলা রানী সিংহ, নারায়ণগঞ্জ কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সিরিন বেগম, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার হোসনে আরা বেগম, নারায়ণগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার মো. শরিফুল ইসলাম প্রমুখ ।

অনুষ্ঠানে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৮ নারায়ণগঞ্জের শেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান, শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী, শ্রেষ্ঠ শ্রেণি পুরুষ্কার দেওয়া হয়। এরমধ্যে ১৪টি প্রথম পুরুস্কার দেওয়া হয়। এছাড়াও জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে অংশগ্রহনকারীদের ফলাফল, শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থীও শিক্ষকদের ক্যাটাগরীর চূড়ান্ত ফলাফল ও শ্রেষ্ঠ উপজেরা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের ক্যাটাগরীর চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষনা করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার মইনুল হক বিপিএম পিপিএম বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থা যে প্রথম বিষয়টা সেটা সম্পর্কে আমি নাই বলি, আমি বলি দ্বিতীয় বিষয় মাদক ও জঙ্গিবাদ নিয়ে। দুনিয়াতে কেউ দোযখের স্বাদ গ্রহন করতে চায় তাহলে একটি পরিবারে একজন মাদকাসক্তই যথেষ্ঠ। আর এই মাদক গ্রহণ করেই মানুষ মনুষ্যত্ব থেকে দূরে চলে যাচ্ছে। যার কারনে সৃষ্টি হচ্ছে জঙ্গিবাদ। আর এই মাদক ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে শিক্ষক যেভাবে অবদান রাখতে পারবে তা আর কারও পক্ষে করতে পারা সম্ভব নয়। কারন শিক্ষকরাই জাতির নতুন প্রজন্মকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলে। তারাই মানুষের মাঝে মনুষ্যত্ব জাগিয়ে তুলতে পারে।

জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া বলেন, শিক্ষকদের প্রতি অনুরোধ কোন কখনোই ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি অবিচার করবেন না। সম্পর্কের বাধঁনে পরে কখনো অবিচার করবেন না। আমি নিজেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনৈতিক সমস্যার কারনে অবিচার শিকার হয়ে ছিলাম। শিক্ষকদের প্রতি আমার অগাধ শ্রদ্ধা রয়েছে। সারাজীবন যতদিন বেঁচে থাকি আমি শিক্ষকদের একজন এম্বাসেডর ও একজন রাষ্ট্রদূতের মত আপনাদের সাথে কাজ করব। আমি মনে করি উন্নতির জন্য অর্থনীতিতে নয় শিক্ষাকে গুরুত্ব দিতে হবে।

তিনি বলেন, আপনারা হয়ত অনেক শিক্ষক রয়েছেন যারা মনে বলেন আপনাদের এখানে টাকা কম, সম্মান নাই, কে বলছে কে এখানে থাকার জন্য। বিকল্প পথ না বের করার আগে এখানেই । আপনার যদি যোগ্যতা থাকে অন্য দিকে চলে যান আপনাকে তো জোড় করে রাখেনি। আমাদের অনেক বেকআপ আছে এখানে চাকরি দেওয়ার জন্য। বহু মানুষ ঘুরছে। আমারা তাদেরকে নিয়ে আসব। আমাদের নিজের কাজকে ভালবেসে কাজ করতে হবে। শিক্ষা পেশাকে ভালবাসতে হবে। ভালবেসে দায়িত্ববোধের সাথে কাজ করতে হবে। আমি নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক, এখানে এসপি সাহেব আছেন। আমরা যতদিন নারায়ণগঞ্জে আছি আমাদের নারায়ণগঞ্জকে নিয়ে আপন ভাবতে হবে, ভালবাসতে হবে। শুধু চাকরির কথা ভাবলে হবে না।

তিনি আরো বলেন, শিক্ষকদের বেতন কাঠামো ও অন্যান্য সুবিধা রয়েছে সেগুলো অনেক ক্ষেত্রেই হয়ত কম রয়েছে কিন্তু এই সব সুবিধা দেখলে চলবে না। আপনাদের কাজটা অতি গুরুত্বপূন শিক্ষকরা দুই ধরনের সন্তান লালন করে। এক নিজেদের উরসজাতক সন্তান আরেক হল আপনাদের শিক্ষার্থীরা। ছাত্র-ছাত্রীদের নিজেরদের সন্তান হিসেবে চিন্তা করে পড়াবেন। আপনাদের শিক্ষার্থীরাই হয়ে উঠবে একদিন আপনাদের গর্ব।

সব খবর
শিক্ষাঙ্গন বিভাগের সর্বশেষ