বুধবার ২০ নভেম্বর, ২০১৯

নারায়ণগঞ্জে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত

রবিবার, ৬ অক্টোবর ২০১৯, ১৬:০৮

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: দেশের অন্যান্য জেলার মতো নারায়ণগঞ্জেও জাঁকজমকপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসব। দুর্গা পূজার একটি প্রধান অংশ অষ্টমীর কুমারী পূজা। প্রতি বছরের ন্যায় নারায়ণগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমে সকল আনুষ্ঠানিকতার সঙ্গে জাঁকজমকপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে কুমারী পূজা।

রোববার (৬ অক্টোবর) বেলা ১২টায় মিশনপাড়া রামকৃষ্ণ মিশনে অনুষ্ঠিত হয়েছে কুমারী পূজা। ধর্মীয় মাঙ্গলিক আচারানুষ্ঠান ও ভক্তদের অঞ্জলি প্রদানের মাধ্যমে পূজা সম্পন্ন হয়েছে। এ সময় চারদিক মুখরিত হয়ে উঠে শঙ্খ ও উলুধ্বনিতে আর দেবীর স্তব-স্তুতিতে।

এ বছর কুমারী ছিলেন নগরীর পাইকপাড়া এলাকার পরিমল চক্রবর্তী ও মিতা চক্রবর্তীর ৯ বছর ৬ মাসের কন্যা ঐশী চক্রবর্তী। পূজার পূর্বে কুমারীকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরানো হয়। কুমারী মাকে কোলে করে মন্ডপে নিয়ে এসে হাতে দেওয়া হয় ফুল, কপালে সিদুরের তিলক এবং পায়ে আলতা। ঠিক সময়ে সুসজ্জিত আসনে বসিয়ে ষোড়শোপচারে পূজা করা হয় কুমারী মাকে।

এ সময় মিশনপাড়ায় রামকৃষ্ণ মিশন পরির্দশন করেন র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক কর্ণেল কাজী শামসের উদ্দিন।

এ সময় তিনি বলেন, আজকের এই সুন্দর আয়োজনে আমরা আপনাদের পাশে আছি। অনেক হিন্দু ধর্মাবলম্বী লোকজন এই পূজাকে কেন্দ্র করে একত্রিত হন। আমরা প্রতিবারের মতো এবারও বড় বড় পূজা মন্ডপগুলোসহ সব মন্ডপে আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। আমরা পুলিশ, র‌্যাব সকলেই সজাগ রয়েছি। কোন ধরণের কোন খবর আপনাদের কাছে থাকলে আমাদের জানাবেন।

নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে বিপুল সংখ্যক পুলিশের পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবীরা কঠোর পরিশ্রম করেন। পুলিশ লাইন এবং সদর মডেল থানা থেকে মহিলা ও পুরুষ পুলিশ পোশাকে এবং সাদা পোশাকে নিরাপত্তার জন্য উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া গোয়েন্দা নজরদারিও ছিল সেখানে।

কুমারী পূজা সম্পর্কে রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমের অধ্যক্ষ স্বামী একনাথনন্দ মহারাজ সাংবাদিকদের বলেন, ‘ভগবতির এটি একটি অংশ। ভগবতির বিশেষ প্রকাশ। শিশু, কুমারীর মাঝে দেবীত্ব প্রকাশ পায় বলে আমরা তার পূজা করে থাকি। শুদ্ধ আত্মা কুমারীর মাঝে যদি দেবীত্ব উপলব্ধি করতে পারি, তাহলে প্রত্যেক মায়ের মধ্যে উপলব্ধি করতে পারবো। মাকে যদি সম্মান, শ্রদ্ধা করি তাহলে সমাজ, দেশ শান্তিতে থাকবে। কুমারী পূজা শুধু হিন্দু ধর্মালম্বীদের জন্যই নয়। এটা সকলের উৎসব, সবাই এ পূজায় আসেন এবং উদযাপন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, এফবিসিআই এর পরিচালক প্রবীর কুমার সাহা ও সাধুনাগ মহাশয় আশ্রমের তারাপদ আচার্য, জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার শিপন, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরুন দাস প্রমুখ।

সব খবর
ধর্ম ও নৈতিকতা বিভাগের সর্বশেষ