সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

নারায়ণগঞ্জস্থান গ্রুপের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গির অভিযোগ

শনিবার, ৫ অক্টোবর ২০১৯, ২২:৪২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ‘নারায়ণগঞ্জস্থান’ নামে নারায়ণগঞ্জ জেলা কেন্দ্রীক একটি ফেসবুক গ্রুপের এডমিন ঘোষণা দিয়েছেন ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’ এই ধরণের পোষ্ট এপ্রুভ হবে না। বিষয়টিকে ‘সাম্প্রদায়িক উস্কানি’ বলে অভিহিত করেছেন নারায়ণগঞ্জের বিশিষ্টজনেরা। এ ব্যাপারে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন তারা। জেলা পুলিশ বলছে বিষয়টি খতিয়ে দেখে তারা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর ‘নারায়ণগঞ্জস্থান’ নামের ওই ফেসবুক গ্রুপের এডমিন আরেফিন রওশন হৃদয় একটি পোষ্টে ঘোষণা দেন, ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার বা ধর্ম যার যার উৎসব তার তার’ এই ধরনের পোষ্ট এপ্রুভ হবেনা। গত বছরও তিনি পোষ্টে ঘোষণা দেন ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার এ ধরনের পোষ্ট এপ্রুভ হবেনা’। গত বছর পোষ্টের নিচে আরিফ রহমান নামের একজন মন্তব্য করেন, ‘এটা তো সরকারের বক্তব্য, আপনি এটা ব্যান করে গ্রুপটাকে ব্যান করতে চান নাকি মিয়া ভাই ?’ এর উত্তরে আরেফিন রওশন রিদয় লেখেন, ‘গ্রুপের নিয়ম মানুন’। এ বছরের শুরুতে গ্রুপটি বন্ধ করে দেয় ফেসবুক। পরে তারা আবার একই নামে আরেকটি গ্রুপ চালু করে।

বিষয়টি সম্পর্কে নারায়ণগঞ্জের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রফিউর রাব্বি বলেন, ‘পাকিস্থান এর নামের সাথে মিলিয়ে গ্রুপটির নাম নারায়ণগঞ্জস্থান। গ্রুপটির নামেই বোঝা যায় এটি কোন ধারার এডমিনদের পরিচালিত। জামায়াত বা কট্টর মৌলবাদি গ্রুপের অনেকেই নিজেদের পরিচয় গোপন রেখে ফেসবুকে সাম্প্রদায়িক উস্কানি দেয়ার চেষ্টা করে। এই গ্রুপটি যেহেতু পরপর দুই বছর একই ধরণের দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করে এ ঘোষণা দিয়েছে তাই তাদের ব্যাপারে তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, শত শত বছর ধরে পরস্পরের ধর্মীয় উৎসবে হিন্দু মুসলমান আমরা সবাই অংশ নিচ্ছি। সাম্প্রতিক সময়ে কেউ কেউ কট্টর সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গি প্রচারের চেষ্টা করছে। এদের সম্পর্কে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি এডভোকেট মাহবুবুর রহমান মাসুম এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’ এটা জাতীয় ভিত্তিক একটি স্লোগান। ফলে এ গ্রুপ পরপর দু’বছর এ স্লোগান নিষিদ্ধ করায় বোঝা যাচ্ছে কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে তারা এটা করেছে। প্রশাসন তাদের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিবে সে দাবি জানাই।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, খোদ প্রধানমন্ত্রী এ স্লোগান দেন। যারা এ স্লোগানের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে তারা উগ্র সাম্প্রদায়িক মনোভাব পোষন করে বলেই মনে হয়। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এ ব্যাপারে খোজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করবে আশা করি।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মনিরুল ইসলাম বলেন, আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। আমরা আগেই বলেছি ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে কেউ যদি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে নষ্ট করতে চায় বা ধর্মীয় বিভাজন তৈরি করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইসিটি আইনে ব্যবস্থা নিবো।

এ বিষয়ে ‘নারায়ণগঞ্জস্থান’ গ্রুপের এডমিন আরেফিন রওশন হৃদয় বলেন, ‘আসলে আমি দু’রকম পোস্টই দিয়েছিলাম। এখানে সাম্প্রদায়িক উস্কানির কোন বিষয় ছিল না। এই বিষয়টা নিয়ে কেউ পোস্ট দিলে সেখানে অনেক বিরূপ মন্তব্য পড়ে। যা নিয়ে কমেন্টের মধ্যেই অনেকে ঝগড়া লেগে যায়। তাই এই বিষয়টা এড়ানোর জন্যই এই পোস্ট করেছিলাম। হয়তো অনেকে ভুল বুঝেছেন।’

সব খবর
সোশাল মিডিয়া বিভাগের সর্বশেষ