বৃহস্পতিবার ১৭ অক্টোবর, ২০১৯

নারায়ণগঞ্জে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব

বুধবার, ৯ অক্টোবর ২০১৯, ০০:৩৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) রাতে নারায়ণগঞ্জে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে ঘটে পাঁচ দিনব্যাপী দুর্গোৎসবের সমাপ্তি হয়েছে।

মঙ্গলবার বিজয়া দশমীতে ছিল মণ্ডপে মণ্ডপে দশমীর বিহিত পূজা অতঃপর দেবী বিসর্জন আর শান্তিজল গ্রহণ। হিন্দু বিশ্বাসে টানা পাঁচদিন মৃন্ময়ীরূপে দেবী দুর্গা মণ্ডপে মণ্ডপে থেকে ফিরে গেছেন কৈলাসে স্বামী শিবের সান্নিধ্যে।

সকালে বিহিত পূজার পর ভক্তের কায়মনো প্রার্থনা আর ঢাক-ঊলুধ্বনি-শঙ্খ নিনাদে হিন্দু রমণীদের পরম আকাঙ্খিত সিঁদুর খেলায় মুখর হয়ে ওঠে মন্দিরগুলো। একদিকে বিদায়ের সুর। অন্যদিকে উৎসবের আমেজ।

সন্ধ্যার পর থেকেই বিভিন্ন এলাকার পূজামণ্ডপ থেকে ভক্তরা ট্রাক ও ঠেলাগাড়িতে প্রতিমা নিয়ে সমবেত হতে শুরু করেন শহরের ৩নং মাছ ঘাট এলাকাতে। ট্রাকে প্রতিমা নিয়ে ভক্তরা ঢাক-ঢোল, করতাল ও অন্যান্য বাদ্যযন্ত্রসহ শোভাযাত্রায় যোগ দেয়। শোভাযাত্রার পূর্বে নারীরা দেবীর ললাটের সিঁদুর আপন ললাটে এঁকে নেন। নগরীর রাস্তার দু’পাশে দাঁড়ানো হিন্দু নারীদের উলু ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠে চারদিক। এ সময় শহরে এক উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

মন্দির ও শোভাযাত্রার পথে বিপুল সংখ্যক পুলিশের পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছিল র‍্যাবও আনসার সদস্যদেরও। সন্ধ্যার পর থেকেই শহরের প্রধান সড়ক বঙ্গবন্ধু সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। সড়কজুড়ে মানুষেল ঢল নামে।

প্রতিমা ঘাটে নিয়ে আসার পর ভক্তকুল শেষবারের মতো ধুপধুনো নিয়ে আরতিতে মেতে ওঠেন। শেষে পুরোহিতের মন্ত্রপাঠের মধ্যদিয়ে দেবীকে নৌকায় তুলে বিসর্জন দেওয়া হয়। নদীপাড়ে ধর্মীয় রীতি মেনে অপরাজিতা পূজা অনুষ্ঠিত হয়। শেষে প্রতিমা জলে ফেলে গ্রহণ করা হয় শান্তিজল। অনেকে ঘরে আনেন সেই শান্তি জল।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ