শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

নারায়ণগঞ্জে কিছু অতি উৎসাহী অফিসার আছে: শামীম ওসমান

শনিবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২০:১৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে কিছু অতি উৎসাহী অফিসার আছে মন্তব্য করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপারের সাথে আমি কথা বলেছিলাম। সিদ্ধিরগঞ্জের মানুষ উত্তেজিত হয়েছিলো ৭৪ জনের নামে মামলা হওয়ায়। ঘটনা হলো ১নং ওয়ার্ডে, মামলার আসামি অন্য ওয়ার্ডে। ৭০ ভাগ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, বাকি ৩০ ভাগ স্বাধীনতার পক্ষের ব্যাবসায়ীরা।’

শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে শহরের মিশনপাড়া মোড়ে নবাব সলিমুল্লাহ সড়কের উপর অনুষ্ঠিত জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে অতি উৎসাহী কিছু অফিসার আছে। তাদের সাথে রাজাকার সমর্থিত পত্রিকার ভালো সম্পর্ক। নেতাকর্মীদের নামে টেক্সট করে বলে নিজাম, বাবু, সানি, সাজনু, খোকন সাহা, হেলালের বিরুদ্ধে নিউজ করেন। আরে ও তো নারায়ণগঞ্জের ছেলে। ওর ভাইতো আমরা। টেক্সট নিয়া আপনার থেকে কি খায় জানি না কিন্তু খাওয়ার পর আমারে দেখাইয়া কয়, এইযে ভাই টেক্সট করছে কিন্তু।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘পুলিশ সুপারের সাথে কথা হয়েছে। উনি একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তিত্ব। আমি তাকে বলেছি, এই গেম গুলা হচ্ছে। এসপি আমাকে বলেছেন, লিডার আমি আপনাকে কথা দিচ্ছি যে, আমি বিষয়টি দেখছি এবং যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘ছোট-খাটো অফিসার যারা ফেসবুকে স্ট্যাটাস মারো তারা বুইঝা রাখো ১৭ দিন আমার এলাকায় কেউ ঢুকতে পারে নাই। আমরা সেই খেলোয়াড়। সাধারণ মানুষ চিন্তা করে দুইয়ে দুইয়ে চার হয় আর আমরা বলি বাইশ হয়। কারণ আমরা অনেক দূর আগায়া চিন্তা করি। যারা মনে করেন আমি আপনাদের উপর ভরসা করে চলি তারা আজ জেনে রাখেন আমার জন্য আল্লাহই যথেষ্ট।’

তিনি আরো বলেন, ‘অনেকে জিজ্ঞাস করে মিটিং ডেকে কি পুলিশের সাথে যুদ্ধ করবেন? নাহ্, তারা আমাদের ভাই, প্রশাসনের ব্যর্থতা মানে সরকারের ব্যর্থতা। আল্লাহ বলেছেন ধৈর্যধারীকে পছন্দ করেন। তবে কেউ থাপ্পড় দিলে তারে পালটা থাপ্পড় দেওয়ার অনুমতি আছে। আবার ক্ষমা করারও কথা বলা আছে।’

জনসভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মো. বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, সহ সভাপতি চন্দন শীল, এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শামসুল ইসলাম ভূইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন ভূইয়া সাজনু, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রফেসর শিরিন বেগম, মহানগর মহিলা লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান স্মৃতি, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ও নাসিক ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান, নাসিক ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজল, নাসিক ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু, নাসিক ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শফিউদ্দিন প্রধান, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. নাজিমউদ্দিন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, সাফায়েত আলম সানি, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক মোহসিন মিয়া, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইসরাত জাহান স্মৃতি, ফতুল্লা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিছির আলী, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসমাঈল রাফেল, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু প্রমুখ।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ