শুক্রবার ২৩ আগস্ট, ২০১৯

নারায়ণগঞ্জেও ফেসবুকে ‘আড়ং’ বয়কটের ঝড়

মঙ্গলবার, ৪ জুন ২০১৯, ১২:২৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: আড়ংয়ের উত্তরা শাখাকে জরিমানা করা সরকারি কর্মকর্তার বদলির ঘটনায় নারায়ণগঞ্জে বসবাসরত মানুষের ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে ফেসবুকে। আড়ং এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে আড়ংয়ের সবধরনের পণ্য ‘বয়কট’ এর ডাক দিয়েছেন অনেকেই। ইতোমধ্যে হ্যাশ ট্যাগ দিয়ে চালু হয়েছে ‘বয়কট আড়ং ক্যাম্পেইন’ (#boycot_aarong)।

ওই কর্মকর্তার বদলির নেপথ্যে আড়ংয়ের প্রভাব রয়েছে মনে করে ফেসবুকে প্রতিষ্ঠানটি বয়কটের এই ডাক এসেছে। একইসঙ্গে ওই কর্মকর্তাকে বদলির সিদ্ধান্তেরও প্রতিবাদ জানানো হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা নাজমুল হক লিখেছেন, এটা জাতীয় লজ্জা এবং আইন ধর্ষন হলো আজ ক্ষমতার কাছে।

‘নারায়ণগঞ্জ টুডে’র সম্পাদক সীমান্ত প্রধান লিখেন, আড়ং এবং পারসোনায় অভিযান চালিয়ে জরিমানা আদায় করা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারকে বেশ দামি উপহার দিয়েছে আমাদের সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়! এমন পুরস্কারই দিয়েছেন যে ভবিষ্যতে আর কেউ কারো অনিয়ম, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কোনো রকম অ্যাকশন চালাতে যাবে না। ভোক্তাদের অধিকার লঙ্ঘন হোক অথবা ভোক্তাদের গো.. মারা সারা হলেও কেউ আর অভিযান চালাবে না প্রচলিত আইনে।

কেন চালাবে, এসব অভিযান চালাবে কী বা.. ফেলাইতে? বড় বড় বুলি আওড়ান, সততার বুলি কপচান টিভি স্ক্রিনের সামনে ‘দুর্নীতিমুক্ত’ দেশ গড়বেন! আপনেরা বা.. করবেন। আর ওই বা.. করবেন বইলাইতো মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারকে আড়ংকে জরিমানা করার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বদলি করে বুঝিয়ে দিলেন, খবরদার এই দেশে দুর্নীতিবাজদের রাজত্ব চলবে। কিছু কইতে পারবি না। তুই ব্যাটা জরিমানা করার কোন হরিদাস পাল?

ব্যবসায়ী আরিফ হোসেন নিজ টাইমলাইনে লিখেছেন, ব্র্যাকের পরিচালক ফজলে হাছান আবেদ আড়ংয়ের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, তিনি ১৬ কোটি মানুষকে মনে করিয়ে দিলেন প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে যেতে নেই। ফজলে হাছান আবেদের কালো হাতের ইশারায়, উত্তরা আড়ংয়ের আউটলেট সাময়িকভাবে বন্ধ করা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সাহসী উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারকে বদলি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। ভোক্তা অধিকারের ভেজাল পণ্য ও বিভিন্ন অভিযান ধীরে ধীরে মানুষের মন জয় করা শুরু করেছিলো। প্রিয় বাংলাদেশে প্রভাবশালীদের এই রকম কালো ক্ষমতার খেলা চলতে থাকলে আগামীতে সরকার আরো প্রশ্নবিদ্ধ হবে! আর যেখানে সরকারী প্রতিষ্ঠান মানেই দুর্নীতির অভয়ারণ্য তার মাঝেও দু’চারজন সাহসী নীতিবান যারা আছে তারাতো ভয়ে তাদের কাজের গতি হারাবে এবং থেমে যাবে।

নারায়ণগঞ্জের অন্যতম জনপ্রিয় একটি ফেসবুক গ্রুপের এডমিন এমএইচ অপু আড়ংয়ের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়ে লিখেছেন, প্রতিবাদটা শুরু হোক আজ থেকেই, প্রতিবাদটা শুরু হোক নিজ অবস্থান থেকে। আসুন বয়কট করি আড়ংকে।

আরমান সূরি নামে এক কলেজ ছাত্র লিখেন, জরিমানা করা আমার কনসার্ন না। আড়ং এ দাম বেশি রাখে সেটা সবাই ই জানে ও বোঝে। আমি অনেক শপিং করি আড়ং থেকে। কিন্তু যখন জরিমানা করা ম্যাজিস্ট্রেট এক দিনের মাঝেই বদলি হয়ে যায় তখন আমি কনসার্নড। তখন আমি বুঝতে পারি দুর্নীতি কতো গভীরে গ্রোথিত। আমি ব্যক্তিগতভাবে আজ থেকে আড়ং বর্জন করলাম। এটা ব্যক্তিগতভাবে বেশ বড় একটা প্রতিবাদ আমার জন্য। কারণ আমি নিয়মিত ক্রেতা তাদের। আমাকে কনভিন্স না করতে পারলে বা কোন ঘটনায় আমি আমার মত না বদলানো পর্যন্ত এই বর্জন বলবৎ থাকবে। ধন্যবাদ।

উল্লেখ্য, সোমবার (৩ জুন) বিকেলে আড়ংয়ের উত্তরা শাখায় একই পণ্য পাঁচদিনের ব্যবধানে প্রায় দ্বিগুণ দামে বিক্রির অপরাধে প্রতিষ্ঠানটিকে চার লাখ টাকা জরিমানা, দ্বিগুণ দাম রাখা ওই পণ্যের বিক্রি নিষিদ্ধ এবং একদিন শো-রুমটি বন্ধ রাখার আদেশ দেন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার।

তবে ওইদিন রাতেই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের খুলনা বদলির প্রজ্ঞাপন জারি করা হলে আবারও বিতর্ক তৈরি হয় আড়ংকে ঘিরে।

নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের উকিলপাড়ায় আড়ংয়ের একটি আউটলেট শো-রুম রয়েছে। এই শো-রুম নিয়েও বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকজন নানা অভিযোগ করে ইতিপূর্বে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছিলেন।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ