বুধবার ১৪ নভেম্বর, ২০১৮

না.গঞ্জে ‘দেবী’ হতাশ

রবিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:০০

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ঢাকার মতো নারায়ণগঞ্জেও মুক্তি পেয়েছে জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদের উপন্যাসের কাহিনি অবলম্বনে জয়া আহসান ও চঞ্চল চৌধুরী অভিনিত সিনেমা ‘দেবী’। তবে পুরো জেলায় কেবলমাত্র একটি পেক্ষাগৃহ নবাব সিরাজদ্দৌলা রোডে অবস্থিত ‘মেট্রো হলে’ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছে। মুক্তির প্রথমদিন হাউজফুল থাকলেও পরেদিনগুলোতে তেমন সাড়া মেলেনি দর্শকদের।

শুক্রবার দর্শকদের ভিড় লক্ষ করা গেলেও শনিবার ও রবিবার দর্শকদের উপস্থিতি ছিল হতাশাজনক। প্রেক্ষাগৃহ কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, সিনেমাটি মুক্তির প্রথমদিন শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) সারাদিনে মোট ৬২২টি টিকেট বিক্রি হয়। এরপরদিন শনিবার (২০ অক্টোবর) বেলা ১২টায় শো’তে মাত্র ৯২টি টিকেট বিক্রি হয় এবং বিকেলের শো’তে ৯৯টি । দর্শকদের সাড়া না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করেন ‘মেট্রো হল’ কর্তৃপক্ষ।

প্রথমবারের মতো সিনেমা পরিচালনা করেছেন অনম বিশ্বাস। প্রথম সিনেমা হিসেবে তিনি বেছে নিয়েছেন হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস ‘দেবী’। প্রত্যাশার চাপ মাথায় দিয়ে শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি। সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার আগেই ব্যাপক আলোচনায় ছিল। মুক্তি পাওয়ার পর এখনো ব্যাপক আলোচনায় রয়েছে। দর্শকদের একাংশের কাছে সিনেমাটি অসাধারণ মনে হলেও মিসির আলীর ভক্তদের চোখেমুখে হতাশার ছাপ।

বুশরা আলম নারায়ণগঞ্জ তোলারাম কলেজের অনার্সে পড়ুয়া একজন শিক্ষার্থী। কলেজের প্রথম বর্ষ থেকেই হুমায়ূন আহমেদের লেখা গল্পের জনপ্রিয় চরিত্র মিসির আলীর ভক্ত। বুশরা আলম বলেন, ‘আমি অনেক বছর যাবত মিসির আলীর ভক্ত। দেবী গল্পটি আমি পড়েছি। তাই আমার মধ্যে মিসির আলী চরিত্রটিকে নিযে অনেক আশা ছিল। আমরা মিসির আলীকে যেভাবে চিনি, তার যে চরিত্র সেটা আসলে সিনেমায় উঠে আসেনি। পুরো সিনেমায় শুধু মাত্র জয়ার চরিত্র রানুকেই তুরে ধরা হয়েছে। সিনেমায় মিসির আলীতে তেমনভাবে প্রাধান্য দেয় হয়নি।’

নারায়ণগঞ্জ কলেজের শিক্ষার্থী শান্ত হাসান। শান্ত বলেন, ‘ছবিতে জয়া আহসান, চঞ্চল চৌধুরী, অনিমেষ আইচ, ইরেশ যাকের ও শবনম ফারিয়া সবাই খুব ভালো অভিনয় করেছেন। রানুর চরিত্রে জয়া আহসানের অভিনয় এক কথায় জাস্ট অসাধারণ। আর মিসির আলীর চরিত্রকে চঞ্চল চৌধুরী খুব ভালোভাবেই ফুটিয়ে তুলেছেন। আমার কাছে সিনেমাটি খুব ভালো লেগেছে।’

সিনেমা দেখতে আসা আরেকজন দর্শক জাহিদ হাসান বলেন, ‘সিনেমা কখনো উপন্যাসের মতো হতে পারে না। কেননা একটি উপন্যাস পড়লে একেকজনের মাইন্ড একেক রকমভাবে চরিত্রগুলোকে কল্পনা করে। আমরা যদি আমাদের কল্পনাকে পর্দায় দেখতে চাই তাহলে সেটা ভুল হবে। আমার কাছে সিনেমাটি খুব ভালো লেগেছে। যারা গল্পটি আগে পড়েনি তাদের কাছে ছবিটি অবশ্যই অসাধারণ লেগেছে।’

সাহেরা রহমান বলেন, ‘ছবিটি অনেক ভৌতিক হয়ে গেছে। রহস্য তৈরি করতে গিয়ে ছবিটি বেশি ভৌতিক করে ফেলা হয়েছে। তবে সকলের অভিনয় খুব ভালো লেগেছে।’

নবাব সিরাজুদ্দুল্লাহ রোডে অবস্থিত ‘মেট্রো হলের তত্বাবধায়ক সুমকী বলেন, ‘আমরা সব সময় চেষ্টা করি ভালো মানের সিনেমাগুলো আমাদের দর্শকদের জন্য নিয়ে আসতে। ‘দেবী’ সিনেমাটি দর্শকদের তেমনভাবে আকৃষ্ট করতে পারেনি। আমরা যেমনটা আশা করেছিলাম দেবী দর্শকদের মাঝে তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি।

সব খবর