শুক্রবার ০৫ মার্চ, ২০২১

নগরীতে ৫ বাম শ্রমিক সংগঠনের মানববন্ধন

বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৯:৩৬

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: শ্রমিক কর্মচারীদের বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট না দেওয়ার চক্রান্ত বন্ধ করে বাজার দরের সাথে সঙ্গতি রেখে মহার্ঘ্য ভাতা চালুর দাবিতে বাম প্রগতিশীল ৫ টি শ্রমিক সংগঠনের উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) সকাল ১১ টা থেকে ১২ পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে বিকেএমইএ কার্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের জেলা সভাপতি এম এ শাহীনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা সভাপতি সেলিম মাহমুদ, বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির জেলা কমিটির সভাপতি অঞ্জন দাস, জেলার নেতা জাহাঙ্গীর আলম বাবু, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার দাস, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট জেলার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরিফ, জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের জেলার সভাপতি হুমায়ুন কবির, সাধারণ সম্পাদক এইচ রবিউল চৌধুরী, বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির নেত্রী রাশিদা বেগম ও রোকসানা আক্তার প্রমূখ।

মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনাকালীন সময়ে গার্মেন্টস মালিকরা নানা রকম নাটক দেখিয়েছে। এখন শ্রমিক কর্মচারীদের বাৎসরিক ইনক্রিমেন্টের উপর তাদের চোখ পড়েছে। মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএ ও বিজিএমইএ শ্রমিক কর্মচারীদের বাৎসরিক মজুরি বৃদ্ধি না করার চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছে। তাদের এ আচরণ অত্যন্ত অমানবিক ও দুঃখজনক। করোনা মহামারীর মধ্যে শ্রমিকরা মৃত্যু ভয় উপেক্ষা করে গার্মেন্টস শিল্পের উৎপাদন অব্যাহত রেখেছে। তাদের এই অবদানের জন্য মালিক ও সরকারের পক্ষ থেকে পুরস্কার দেয়া উচিত। কিন্তু তা না করে মালিকরা ছলচাতুরির আশ্রয় নিয়ে শ্রমিক-কর্মচারীদের বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট থেকে বঞ্চিত করার পাঁয়তারা চালিয়েছে। বাৎসরিক মজুরি বৃদ্ধি না করার মালিক পক্ষের বক্তব্য পুরোপুরি অনৈতিক ও অযৌক্তিক।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, করোনা সংকটের শুরুর দিকে মালিকরা নানা অজুহাত দেখিয়ে শ্রমিকদের বেতন দেওয়ার কথা বলে সরকারের কাছ থেকে ৫ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা প্যাকেজ সহ ৯ হাজার ১৮৮ কোটি টাকার নগদ সুবিধা নিয়েছে। কিন্তু শ্রমিকদেরকে তারা কোন সুবিধা দেয়নি বরং উল্টো ৩৫ শতাংশ হারে বেতন কেটে নিয়েছে ঈদ বোনাস কম দিয়েছে। গণহারে ছাঁটাই করে দুর্দিনে লাখো লাখো শ্রমিককে চরম বিপদে ফেলে দিয়েছে। এখন আবার শ্রমিকদের বাৎসরিক ইনক্রিমেন্টের উপর তাদের চোখ পড়েছে। অন্যদিকে সরকারের কাছ থেকে আরো প্রণোদনা নেওয়ার ধান্দা করছে। মালিকদের এই মুনাফা লোভী মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। শ্রমিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র চেক করার অজুহাতে ছাঁটাই-নির্যাতন ও শ্রমিক স্বার্থবিরোধী সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলে সকল ষড়যন্ত্রের দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে। বাজারে জিনিসপত্রের দাম বাড়ার কারণে জীবন যাত্রার ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় শ্রমিক-কর্মচারীদের প্রাপ্ত মজুরিতে জীবন ধারণ করা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। তা বিবেচনায় নিয়ে বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট বাড়িয়ে দেওয়াসহ বাজার দরের সাথে সঙ্গতি রেখে শ্রমিক কর্মচারীদের জন্য মহার্ঘ্য ভাতা প্রদানের দাবি জানান নেতৃবৃন্দ।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ